লড়াকু বাঙালির বিজয়গাথা ১ ডিসেম্বর ১৯৭১ - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১ ৩রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

রবিবার

প্রকাশ :  ২০২০-১১-৩০ ২১:১৭:১৮

লড়াকু বাঙালির বিজয়গাথা ১ ডিসেম্বর ১৯৭১

লড়াকু বাঙালির বিজয়গাথা ১ ডিসেম্বর ১৯৭১

সাদেকুর রহমান : আজ ১ ডিসেম্বর। ১৯৭১ সালে দিনটি ছিল বুধবার, ২০২০ সালে মঙ্গলবার। লড়াকু বাঙালির বিজয়ের মাস, গৌরবের মাস, স্বজন হারানো শোকার্ত মাস, মানুষরূপী হায়েনাদের চরম নিষ্ঠুরতার স্মারক মাস ডিসেম্বরের শুরু। ১৯৭১ সালের এদিনটি ছিল গনগনে উত্তপ্ত। এই মাসেই দীর্ঘ ৯ মাস পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে ৩০ লাখ শহিদের এক সাগর রক্ত আর ২ লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে ১৬ ডিসেম্বর সূচিত হয় স্বাধীন পরিচয়ের নতুন নিশান, আসে আমাদের কাঙ্খিত বিজয়। উনপঞ্চাশ বছর আগে বিশ্বমঞ্চে আবির্ভূত হওয়া বাংলাদেশ নামক শিশু রাষ্ট্রটি আজ শৌর্য-বীর্যে প্রবল পরিণত। আগামী বছর পালন করা হবে নজরুলের বাংলাদেশ, বঙ্গবন্ধুর ‘সোনার বাংলা’র ৫০তম জন্মদিন, সুবর্ণজয়ন্তী। মহাসমারোহে দিনটি উদযাপনে জাতি উদগ্রীব প্রহর গুণছে।

’৭১-এর মার্চ থেকে চলমান মুক্তিযুদ্ধ ডিসেম্বরে এসে সর্বাত্মক রূপ পায়। সারাদেশ জুড়ে যুদ্ধের দামামা। মুক্তিবাহিনীর কাছে দিন দিন কোনঠাসা হয়ে পড়ে পাক বাহিনী। একের পর এক প্রবল আক্রমণের মুখে পিছু হটতে বাধ্য হচ্ছে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী। ১৯৭১ সালের এই দিনে নিউইয়র্ক টাইমস পত্রিকার এক রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়, “বাংলাদেশের অভ্যন্তরে গেরিলা তৎপরতা বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে পশ্চিম পাকিস্তানি সামরিক জান্তাদের নির্দেশে সামরিক বাহিনীর লোকেরা পুনরায় গ্রামবাসীদের হত্যা এবং বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেওয়ার বর্বর অভিযান শুরু করেছে। গেরিলা সন্দেহে জিঞ্জিরার অনেক যুবককে সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে হত্যা করা হয়েছে। বুড়িগঙ্গার অপর পাড়ের এই গ্রামটিতে অন্তত ৮৭ জনকে হত্যা করেছে পাক হানাদার বাহিনী। নারী, শিশুরা পর্যন্ত তাদের নিষ্ঠুরতার হাত থেকে রক্ষা পায়নি।”

এ সময় বাঙালির স্বাধীনতার লড়াইকে আড়ালে রাখতে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান ‘পাক-ভারত যুদ্ধ’ শুরু হয়েছে বলে বেতারে ঘোষণা দেন। তবে সেদিন কোনো ষড়যন্ত্রই বাঙালিকে বিজয় অর্জন থেকে পিছিয়ে রাখতে পারেনি। মাতৃভূমিকে দখলদারমুক্ত করতে তারা মরণপণ লড়াই চালিয়ে যান।

এই দিনে মুক্তিযোদ্ধারা অপারেশন চালিয়ে ঢাকায় দুজন মুসলিম লীগ কর্মীকে হত্যা করে। বাকি দুজনকে বুলেটবিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এদিন ভারতের প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী পার্লামেন্টের উচ্চ পরিষদে বক্তৃতাকালে উপমহাদেশে শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ইয়াহিয়া খানের প্রতি বাংলাদেশ থেকে পাকিস্তানি সৈন্য প্রত্যাহারের আহবান জানান।

এদিকে, মুক্তিযোদ্ধারা শেষরাতের দিকে সিলেটের শমসেরনগরে অতর্কিতে আক্রমণ চালিয়ে পাকবাহিনীকে নাজেহাল করে তোলে। মুক্তিবাহিনীর তীব্র আক্রমণে পাকবাহিনী এই এলাকা থেকে পালাতে শুরু করে। মুক্তিবাহিনী টেংরাটিলা ও দুয়ারাবাজার মুক্ত ঘোষণা করে। মুক্তিবাহিনীর অপারেশন অব্যাহত থাকায় পাকবাহিনী এই জেলার গারা, আলিরগাঁও, পিরিজপুর থেকে তাদের বাহিনী গুটিয়ে নিতে বাধ্য হয়। এ সময় রাওয়ালপিন্ডিতে পাকিস্তানের এক মুখপাত্র ‘শেখ মুজিবুর রহমানের বিচার শেষ হয়নি’ বলে বিবৃতি দেন।

এদিকে, পিপলস পার্টির ঢাকা অফিস বোমা বিস্ফোরণের ফলে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। জুলফিকার আলী ভুট্টো দুমাস আগে এ অফিস উদ্বোধন করেন। রাঙ্গামাটিতে ব্যাপটিস্ট মিশনে পাকহানাদার বাহিনীর বর্বর হামলায় চার্লস আর. হাউজার নামে একজন ধর্মযাজক এবং বহু বাঙালি নিহত হন।

অন্যদিকে, স্বাধীন-পূর্ব সরকারের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা ও তৎপরতা সম্পর্কে পাকিস্তান সরকারের আমলা, পরবর্তীতে মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সরকারের সচিব ও বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অন্যতম উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম তার ‘বাংলাদেশ সরকার ১৯৭১’ গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন, “২ ডিসেম্বর আমার কাছে এই মর্মে একটি বার্তা পৌঁছে যে, সিলেট এবং ময়মনসিংহ জেলার মুক্ত-অঞ্চলে পাকা ধান কাটার অপেক্ষায় আছে। কোনো কোনো ব্যবসায়ী এই ধান অল্প দামে ক্রয় করে সীমান্তের ওপারে ভারতে চালান করছে। বিনিময়ে লবণ, কেরোসিন তেল ইত্যাদি নিয়ে গিয়ে চড়া দামে বিক্রি করছে। সংবাদটি পেয়েই আমি অর্থ ও বাণিজ্য সচিবকে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করি।”

উক্ত গ্রন্থে তিনি আরো উল্লেখ করেন, “ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকেই ভারতীয় সেনাবাহিনীর ইস্টার্ন কমান্ডের সাথে আমাদের প্রত্যক্ষ যোগাযোগ স্থাপন করা হয়েছিল। এখান থেকে মিত্রবাহিনীর সমস্ত অগ্রযাত্রা পর্যবেক্ষণ করা হতো। বাংলাদেশ এবং ভারতীয় বাহিনীর কোন্ ইউনিট কোথায় যুদ্ধরত, কোন্ কোন্ শহর দখল করছে, ইত্যাদি তথ্য ঘণ্টায় ঘণ্টায় মনিটর করা হতো। প্রতিরক্ষা-সচিব সামাদ, সচিব নূরুল কাদের ও আমি ঘন ঘন গিয়ে খবর নিতাম। অনেক সময় গ্রুপ ক্যাপ্টেন (পরববর্তীতে বিমান বাহিনী প্রধান ও পরিকল্পনা মন্ত্রী) এ কে খন্দকার সাথে থাকতেন। এর মধ্যে প্রতিদিনই আমাদের একবার করে ইস্টার্ন কমান্ডের হেডকোয়ার্টার ফোর্ট উইলিয়ামে যেতে হত। ওখানে বিশেষ স্থাপনাগুলো এবং গোপন অফিস সবই মাটির নিচে; বাইরে থেকে বোঝার উপায় ছিল না। অপরপক্ষে আমাদের যোগাযোগের মূলকেন্দ্র বাঙালি মেজর জেনারেল বি.এন. সরকার, যাকে ওই সময় ‘সিভিল অ্যাফেয়ার্স লিয়াজোঁ অফিসার’ নিয়োগ করা হয়েছিল, তিনি ছিলেন ইস্টার্ন কমান্ডের ‘ডিরেক্টর অব অপারেশন্স’; অত্যন্ত অমায়িক ছিলেন ভদ্রলোক। বাংলাদেশে ভারতীয় দূতাবাস প্রতিষ্ঠিত হলে জেনারেল সরকার প্রথম ভারতীয় মিলিটারি অ্যাটাশে নিযুক্ত হয়েছিলেন। আমাদের অন্যান্য অফিসাররা যোগাযোগ করতেন কর্নেল মরিস, লে. কর্নেল বাত্রা প্রমুখের সঙ্গে। ফোর্ট উইলিয়াম থেকে আমাদের সামরিক পরিচয়পত্র দেয়া হয়েছিল যাতে আমাদের চলাচলে কোনো বিঘ্ন সৃষ্টি না হয়।”

বাংলাদেশের বুকে স্বাধীনতার রক্তলাল সূর্যোদয়ের ভিত্তি সূচিত হয়েছিল বেশ আগেই। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণে উদ্দীপ্ত বাঙালি জাতি দৃঢ় শপথ নিয়েছিল স্বাধীনতা অর্জনের। ২৫ মার্চের নির্মম নৃশংস হত্যাকান্ডের পর তারা রুখে দাঁড়িয়েছিল শোষণের বিরুদ্ধে। এক সাগর রক্তের বিনিময়ে বীর বাঙালি বিজয় ছিনিয়ে এনেছিল একাত্তরের ১৬ ডিসেম্বরে। তবে এ মাসের প্রতিটি দিনই ছিল ঘটনাবহুল।

স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন হৃদয়ে লালন করেছে বাঙালি যুগে যুগে। ইতিহাসের মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে তারই হাত ধরে পূরণ হয়েছিল সেই আজন্ম লালিত স্বপ্ন।

লেখক : সংবাদকর্মী ও মুক্ত গবেষক, srahman5271@gmail.com.

আরো সংবাদ