শহরের দু’ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভর্তিযুদ্ধ শুরু - Coxsbazarkontho.com

বুধবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২০ ১৫ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০১৯-১২-১৮ ০৪:০২:৪৮

শহরের দু’ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভর্তিযুদ্ধ শুরু

এম.বেদারুল আলম: কক্সবাজার শহরের দু’ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষা আজ ১৮ ডিসেম্বর সকাল ১০ টা থেকে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এবার ভর্তি পরীক্ষা যথারীতি অনুষ্ঠিত হচেছ ৪টি ভেন্যুতে । ১৬ ডিসেম্বর রাত ১২টা পর্যন্ত ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহনকারিদের আবেদনপত্র অনলাইনে গ্রহন করেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। আবেদন অনুযায়ি এবার জেলার ২টি বিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় ৪৮০ আসনের বিপরীতে লড়বে ২৪৫৮ জন পরীক্ষার্থী। এদের মধ্যে কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ২৪০টি আসনের বিপরীতে পরীক্ষা দেবে ১২৩৩ জন। অপরদিকে কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে সমান সংখ্যক আসনে পরীক্ষা দেবে ১২২৫ জন । উভয় বিদ্যালয়ে ১ আসনের বিপরীতে পরীক্ষা দেবে ৫ দশমিক ১২ জন।

ভর্তি কমিটির সদস্য সচিব রাম মোহন সেন জানান, সরকারি ২ উচ্চ বিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার জন্য সকল প্রস্থুতি সম্পন্ন হয়েছে। সর্ম্পূন নিরপেক্ষ এবং স্বচ্চভাবে পরীক্ষা গ্রহনের জন্য এবার পরীক্ষার্থীরা ৪টি ভেন্যুতে পরীক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্র অনুযায়ি আসন বিন্যাস হল কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে আবেদনকারি ছাত্রদের রোল নং ৬০০০০০১ থেকে ৬০০০৭৯৪ পর্যন্ত ৭৯৪ জন এবং একই বিদ্যালয়ে আবেদনকারি ছাত্রদের অপর ভেন্যু পৌরপ্রিপ্যারাটরি উচ্চ বিদ্যালয়ে রোল নং ৬০০০৭৯৫ থেকে ৬০০১২৩৩ পর্যন্ত ।
অপরদিকে কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভর্তির জন্য সে ভেন্যুতে পরীক্ষা দেবে রোল নং ৬০০০০১ থেকে ৬০০০৬৩০ পর্যন্ত ৬৩০ জন এবং বায়তুশ শরফ জব্বারিয়া একাডেমি কেন্দ্রে রোল নং ৬০০৬৩১ থেকে ৬০০১২২৫ পর্যন্ত ।
ভর্তি কমিটির সদস্য সচিব রাম মোহন সেন আরও জানান, পরীক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের সুবিধার্থে আসন বিন্যাস উভয় বিদ্যালয়ের নোটিশ বোর্ডে ও দেওয়া হয়েছে।  উল্লেখ্য জেলার অনেক অভিভাবকের তীব্র আকাংখা সন্তানদের  উক্ত ২ বিদ্যালয়ে ভর্তি করানো। ফলে অনেকটা ভর্তি পরীক্ষার জন্য পরীক্ষার্থীদের চেয়ে অভিভাবকদের দৌড়ঝাপ বেশি পরীলক্ষিত হয়। প্রশাসন ও এ ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে বাড়তি সর্তকতা অবলম্বন করে থাকে। অনেক অভিভাবক বিভিন্ন সাংসদ, উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা এমনকি পরিচিতজনদের কাছে সন্তানকে ভর্তি করানোর জন্য নানা তদবির করতে দেখা গেছে। উল্লেখ্য ভর্তি পরীক্ষার জন্য ২ ডজন শিক্ষক ২০ দিন যাবৎ কোচিং করিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ। উক্ত চিহ্নিত কোচিংবাজ শিক্ষকদের ভর্তি পরীক্ষার সকল কার্যক্রম থেকে বাইরে রাখার অনুরোধ জানিয়েছেন সচেতন অভিভাবকগণ।

আরো সংবাদ