শহরের স্টেডিয়াম পাড়ায় নানা কেলেংকারির অভিযোগে আটক ৩ - কক্সবাজার কন্ঠ । কক্সবাজারের মুখপত্র

মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০ ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৪-০৬ ১২:২৫:১৭

শহরের স্টেডিয়াম পাড়ায় নানা কেলেংকারির অভিযোগে আটক ৩

সংবাদদাতা, কক্সবাজার কন্ঠ:  কক্সবাজার শহরের স্টেডিয়াম পাড়ায় নারী নিয়ে কেলেংকারি ও মাদক সেবনের অভিযোগে নারীসহ ৩ জনকে ধরে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয় জনতা। এ সময় অবৈধ কেলেংকারি ব্যবসায়ী  সদীপ পালকে গণধোলাই দেয়া হয়েছে। তিনি একই এলাকার মৃত মহন ভাসির ছেলে । ৫ এপ্রিল রাতে সদীপ পাল তার ঘরে প্রতিদিনের মত  অসামাজিক কার্যকলাপ চালায়। এ সময় খবর পেয়ে এলাকাবাসি তার ঘর ঘিরে পুলিশকে খবর দেয়। সদীপ পাল ঘরের বাহিরে লোকজনের উপস্থিতি টের পেয়ে দরজা খোলে স্থানীয় ব্যক্তিবর্গকে হুমকি দেয়। অবশেষে পালানোর চেষ্টার  সময় জনতার হাতে গণধোলায়ের শিকার হয়। কিছূক্ষনের মধ্যে কক্সবাজার সদর থানার এস আই মুহাম্মদ আলি সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছলে এলাকাবাসী নারী, ইয়াবা ও খদ্দরসহ  ৩ জনকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। এতে উপস্থিত ছিলেন স্টেডিয়াম পাড়া সমাজ কমিটির সভাপতি ফরিদ আলম টোন্টো, সাধারণ সম্পাদক এম ইউ বাহাদুর, ৯ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবু ওবায়েদসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিগণ।

শহরের স্টেডিয়াম পাড়া সমাজ কমিটির সভাপতি ফরিদ আলম টোন্টো জানান, দীর্ঘ দিন ধরে  সদীপ পাল আমাদের এলাকায় নিজে ইয়াবা সেবন,  ইয়াবা সেবন কারিদের আড্ডা এবং বিভিন্ন নারী রেখে অসামাজিক কার্যকলাপ চালিয়ে আসছিল।  এসব কার্যকলাপ  চালিয়ে সমাজের পরিবেশ বিঘ্ন না ঘটানোর জন্য তাকে একাধিকবার সতর্ক করা হয়েছিল।কিন্তু চোর না শুনে ধর্মের কাহিনী। তিনি আরো জানান, সদীপ পালরা পারিবারিকভাবে এসব অসামাজিক কার্যকলাপের সাথে জড়িত। বিজলী নামে পরিচিত তার মাকেও সে আমলে অনেকবার নিষেধ করা হয়েছে। তিনিও এসব ব্যবসায় জড়িত ছিলো। তাদের এসব কার্যকলাপের প্রতিবাদ করলে এলাকার লোকদের হুমকি-ধমকি দেয়া হতো।  কিন্তু চোরের দশ দিন গৃহস্থের এক দিন প্রমাণিত হলো। এ ঘটনায় সমাজ কমিটিকে সহযোগিতা করায় পুলিশ প্রশাসনকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়েছে  স্টেডিয়াম পাড়া সমাজ কমিটির সভাপতি ফরিদ আলম টোন্টো, সাধারণ সম্পাদক এম ইউ বাহাদুর, ৯ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবু ওবায়েদসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিগণ।

আরো সংবাদ