শহরে স্টেডিয়াম পাড়ার ডজন মামলার আসামী ছিনতাইকারি বাহাদুর বেপরোয়া - Coxsbazarkontho.com

শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০৬-১৪ ১৩:৫৪:২১

শহরে স্টেডিয়াম পাড়ার ডজন মামলার আসামী ছিনতাইকারি বাহাদুর বেপরোয়া


নিজস্ব প্রতিবেদক: চুরি, ছিনতাই, হত্যা, ডাকাতি প্রস্তুতি ও একাধিক নাশকতাসহ ডজন মামলার আসামী ছিনতাইকারি লিডার এম.ইউ বাহাদুর আবারো বেপরোয়া হয়ে ওঠেছে। প্রতিনিয়ত স্টেডিয়াম এলাকা, সার্কিট হাউজ রোড, হাসপাতাল সড়ক ও পর্যটন এলাকায় তার নেতৃত্ত্বে ছিনতাইসহ নানা অপকর্মের ঘটনা ঘটছে। অভিযোগ ওঠেছে দীর্ঘদিন ধরে কারাভোগ করে সম্প্রতি সময়ে জামিনে বের হয়ে আবারো ছিনতাইয়ের দলবল নিয়ে ভোর রাতে এবং গভীর রাতে ছিনতাইয়ের মত জঘন্যতম ঘটনার জন্ম দিয়ে যাচ্ছে প্রতিনিয়তই। জানা যায়, শহরের স্টেডিয়াম পাড়া এলাকার মৃত মুস্তাফিজুর রহমানের ছেলে এম.ইউ বাহাদুর দীর্ঘদিন ধরে তার সন্ত্রাসি ও ছিনতাইকারি গ্রুপ দিয়ে শহরের বিভিন্ন এলাকাসহ পর্যটন এলাকায় অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। তার ছিনতাইকারি গ্রুপের সেকেন্ড ইন কমান্ড তার ছোট ভাই জসিমের বিরুদ্ধে রয়েছে ১০টি মামলা। বর্তমানে এই জসিম কক্সবাজার জেলা কারাগারে রয়েছে। কয়েক মাস পূর্বে নরসিংদী জেলা গোয়েন্দা শাখার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নেতৃত্ত্বে একদল পুলিশ কক্সবাজার সদর মডেল থানার পুলিশের সহযোগিতায় হাসপাতাল রোড থেকে বাহাদুরকে আটক করে। এসময় তার হাত থেকে উদ্ধার করা হয় ছিনতাইকৃত মোবাইল সেট। পরে ওই মামলায় তাকে পুলিশ নরসিংদি নিয়ে গেলেও দীর্ঘদিন যাবৎ কারাভোগ করে বের হয় ছিনতাইকারি লিডার এম.ইউ বাহাদুর। বর্তমানে এই বাহাদুরের বেপরোয়া ছিনতাই ও নানা ভেসে মাদক বিক্রি ও সেবনের কারনে অতিষ্ঠি হয়ে ওঠেছে শহরবাসী। হাসপাতাল রোড এলাকার মোঃ ওসমান গনি জানান, এক সময়ের শিবিরের দুর্ধষ ক্যাডার স্টেডিয়াম পাড়ার ছিনতাইকারি লিডার বাহাদুর বর্তমানে নানা অপকর্ম করে তালিকাভুক্ত ছিনতাইকারি হিসেবে পরিচিত হয়েছে। তার অপকর্মের কারনে অনেক ব্যবসায়ি অসহায়। এলাকার মাদক নিয়ন্ত্রন ও চুরি, ছিনতাই দমনে তাকে আইনের আওতায় আনা জরুরি। একইভাবে সার্কিট হাউজ এলাকার ব্যবসায়ি হাফেজ নুরুল আবছার জানান, এই বাহাদুরের বিরুদ্ধে চুরি, ছিনতাই, নাশকতা, হত্যা ও ডাকাতি প্রস্তুতিসহ একাধিক মামলা রয়েছে। পাশাপাশি তার চেয়ে খারাপ তার ছোট ভাই আরেক তালিকাভুক্ত ছিনতাইকারি জসিম। জসিম বর্তমানে কারাগারে থাকলেও বাহাদুর জামিনে বের হওয়ায় আবারো এলাকায় ছিনতাইসহ নানা অপকর্ম বেড়ে গেছে। প্রশাসনের দরকার তাকে জরুরি ভিত্তিত্ত্বে গ্রেফতার পূর্বক আইনের আওতায় আনা। কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ফরিদ উদ্দিন খন্দকার পিপিএম বলেন, তার বিরুদ্ধে যদি ৫টির অধিক মামলা থেকে থাকে এবং চুরি, ছিনতাই, হত্যা, নাশকতা মামলার আসামী হয় তাহলে সে আইনের আওতায় অবশ্যই আশার কথা। দ্রুত সময়ে এই সন্ত্রাসির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
সেপ্টেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০