শিক্ষার মান বাড়াতে মাধ্যমিক স্কুলে নজরদারি - Coxsbazarkontho.com

শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০৯-০৮ ২১:১২:১০

শিক্ষার মান বাড়াতে মাধ্যমিক স্কুলে নজরদারি

শিক্ষার মান বাড়ানো এবং জঙ্গিবাদসহ মৌলবাদী ও নিষিদ্ধ সংগঠনের কার্যকলাপ ঠেকাতে দেশের ৩৬ হাজারেরও বেশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে আনা হচ্ছে নজরদারিতে। প্রতিবছর পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদফতর (ডিআইএ) সংগ্রহ করবে এসব প্রতিষ্ঠানের আমলনামা। বর্তমান সরকারের ইশতেহার বাস্তবায়নে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এমন পদক্ষেপ হাতে নিতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। শিগগিরই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা (মাউশি) বিভাগে অনুষ্ঠিতব্য সভায় এ কর্মপরিকল্পনা চ‚ড়ান্ত করা হবে বলে জানিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র। উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ স্কুল-কলেজে মাদকের বিস্তার রোধ করা, শিশু শিক্ষার্থীদের শারীরিক শাস্তি বন্ধ এবং নারী শিক্ষক ও ছাত্রীদের যৌন হয়রানি প্রতিরোধ করা এ বিশেষ নজরদারির অন্যতম উদ্দেশ্য।

মন্ত্রণালয়ের সূত্রে জানা গেছে, সারাদেশে শিক্ষার মানোন্নয়নে জবাবদিহিমূলক শিক্ষা প্রশাসন তৈরির কাজ শুরু করা হয়েছে। এ লক্ষ্যে প্রতি বছর সরকারি-বেসরকারি ৩৬ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করা হবে। সরকারের শিক্ষা খাতে নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নের অংশ হিসেবেই তা করা হবে। এ-সংক্রান্ত একাধিক সভাও হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এবং মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. সোহরাব হোসেন এসব সভায় ছিলেন। এসব সভার প্রস্তাব সমন্বয় করে আগামী মাসে অনুষ্ঠিতব্য সভায় চ‚ড়ান্ত সিদ্ধান্ত হওয়ার কথা।

জানা যায়, রাজধানীর হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলার পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নজরদারির ইস্যু প্রথমবারের মতো সবার সামনে আসে। ওই হামলায় একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়সহ কয়েকটি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের শিক্ষার্থীদের জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়ার তথ্য মেলে। এরপর গুলশান ও ধানমণ্ডিতে পরিচালিত লেকহেড গ্রামার স্কুলের মালিকপক্ষ ও শিক্ষকদের জঙ্গিবাদে সম্পৃক্ততা ও অর্থায়নের তথ্য পাওয়া যায়। খোদ রাজধানীর প্রাণকেন্দ্রে পরিচালিত এ স্কুলের বিরুদ্ধে এমন তথ্য আসায় নড়েচড়ে বসে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ও। এরপর প্রতিটি স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়কে নির্দেশ দেয়া হয়, টানা ১০ দিন বিনা অনুমতিতে অনুপস্থিত থাকা শিক্ষার্থীদের তালিকা সরকার ও স্থানীয় থানাকে জানাতে হবে। প্রথম কিছুদিন এ নির্দেশ প্রতিপালিত হলেও এখন আবার তা থেমে গেছে। এ নিয়ে উদ্বিগ্ন শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

মাউশির কর্মসূচি সমন্বয়কর্মতা মো. আখতার হোসাইন জানান, শিশু শিক্ষার্থীদের মারধর করে আহত করার অভিযোগ মন্ত্রণালয়ে প্রায় দিনই আসছে। কিছু কিছু শিক্ষক শিশুদের সঙ্গে নির্মম আচরণ করেন। এগুলো বন্ধ হওয়া দরকার। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন বাড়ানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সঙ্গে পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদফতর (ডিআইএ) দিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তহবিল অডিট করা হবে।
ডিআইএর যুগ্ম পরিচালক বিপুল চন্দ্র সরকার বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শনে ও তদন্তে দেখা যায় কিছু শিক্ষক-কর্মচারীর শিক্ষা সনদ জাল। কমিটির লোকরা জেনেশুনেই তাদের নিয়োগ দিচ্ছেন অসৎ উদ্দেশ্যে। এসব কারণে প্রতিষ্ঠানে সরেজমিন পরিদর্শন বাড়ানো হবে। বর্তমান সরকারের নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে ডিআইএ তাদের পরিদর্শনের আওতা বাড়াচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বর্তমান সরকারের শিক্ষা খাতে নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নে কাজ শুরু করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে এ সংক্রান্ত একাধিক সভা হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপুমনি এবং মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. সোহরাব হোসেনের উপস্থিতিতে এসব সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় শিক্ষা খাতের সব বিভাগকে কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করতে বলা হয়। আগামী ৮ অক্টোবর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে শিক্ষামন্ত্রীর সভাপতিত্বে এ সংক্রান্ত আরো একটি সভায় সব কর্মপরিকল্পনা চ‚ড়ান্ত করা হবে।

মাউশি পরিচালক (মাধ্যমিক) প্রফেসর ড. আব্দুল মান্নান বলেন, শিক্ষার মানোন্নয়নে জবাবদিহিতামূলক শিক্ষা প্রশাসন তৈরির কাজ শুরু করা হয়েছে। এ লক্ষ্যে প্রতি বছর দেশের সরকারি-বেসরকারি ৩৬ হাজার ৭০০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করা হবে। নিয়মিত পরিদর্শন, নিরীক্ষা ও অভিযোগ তদন্ত করে এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রতিবেদন পাঠানো হবে। একই সঙ্গে এর মাধ্যমে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রকৃত অবস্থা যাচাই করা হবে। নজরদারি আরো বাড়ানো হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি ভবিষ্যতে নজরদারি বাড়ানো হতে পারে এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডিআইএর পরিচালক অধ্যাপক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, স্বচ্ছ জবাবদিহিতামূলক শিক্ষা প্রশাসন তৈরিতে একটি পরিকল্পনা তৈরি করেছি। এর মাধ্যমে প্রতিবছর দেশের সব সরকারি-বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান মনিটরিং করা হবে। এজন্য ডিআইএতে জনবল বাড়ানো হচ্ছে।
তিনি আরো বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে আমাদের কর্মপরিকল্পনাটি অনুমোদন করলে আগামী বছর তা বাস্তবায়ন করা হবে। এজন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও প্রতিষ্ঠান প্রধানদের বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে।

মন্ত্রণালয় সূত্রে আরো জানা যায়, বিদ্যালয় তদন্ত ও পরিদর্শনে ডিআইএ একটি অটোমেশন সফটওয়্যার তৈরি করা হবে। এর মাধ্যমে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন ও নিরীক্ষা কার্যক্রম সহজীকরণসহ স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা হবে। এজন্য ডিআইএর জনবল বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে ৩৫ জন কর্মকর্তার নিয়োগ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। পাশাপাশি ডিআইএর কর্মকর্তা ও দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানদের নিয়মিত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
সেপ্টেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০