সংবাদ সম্মেলন-মানববন্ধন-আলোচনা সভায় বিএনপির বছর পার - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ২৪ জানুয়ারী ২০২১ ১০ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১২-৩১ ১৩:২২:৩৬

সংবাদ সম্মেলন-মানববন্ধন-আলোচনা সভায় বিএনপির বছর পার

স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি

নিউজ ডেস্ক :  করোনার বিষে বিশ শেষ। বছরজুড়েই ছিল করোনা ভাইরাসের থাবা। করোনায় নাস্তানাবুদ হয়ে পাল্টে যায় পৃথিবীর স্বাভাবিক নিয়ম। থমকে যায় সব। বাদ যায়নি রাজনীতির অঙ্গন। টুকটাক আলাচনা আর ভার্চ্যুয়াল সভার মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল দেশের রাজনৈতিক দলগুলো। এর ব্যতিক্রম ছিল না বিএনপিতেও। রাজনীতির মাঠে গেল বছরে দলটির বড় কোনো কর্মসূচি ছিল না। ভার্চ্যুয়াল আলোচনার মাধ্যমে দলটি নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ করে সংগঠনকে শক্তিশালী করার চেষ্টা করেছে। এদিকে করোনার এই সময়ে মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করেছে তারা। শর্তসাপেক্ষে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি ছিল বছরের আলোচিত বিষয়। নানা অভিযোগ করেও প্রায় সবগুলো সংসদীয় উপনির্বাচন, সিটি করপোরেশন নির্বাচন, স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নেয় বিএনপি। করোনা মহামারির মধ্যে নিয়মিত সংবাদ সম্মেলন, নানা ইস্যুতে মানববন্ধন, আলোচনা সভার আয়োজন করেছে দলটি।

ছোট ছোট কর্মসূচিতে বিএনপির বছর

করোনা মহামারিতে গত ২৫ মার্চ থেকে ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিএনপির সাংগঠনিক কার্যক্রম বন্ধ ছিল। একাদশ সংসদ নির্বাচনের ফলের পর থেকেই নতুন করে সংগঠন গোছানোর কার্যক্রম শুরু করে বিএনপি। এই সময়ে ছাত্রদল, যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলে নতুন নেতৃত্ব আসে। এ বছর যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি পূর্ণাঙ্গ করা হয়। পাশাপাশি বেশ কয়েকেটি জেলা-উপজেলায় নতুন কমিটি করা হয়।

দুই সিটি নির্বাচন

এ বছরে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে নেতাকর্মীদের সক্রিয় করা ছিল বিএনপির বড় অর্জন। ড. কামাল হোসেনের ‘দোয়া’ নিয়ে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মাঠে নামে ইশরাক হোসেন ও তাবিথ আউয়াল। নির্বাচনী গণসংযোগ নিয়ে ঢাকার অলিগলি চষে বেড়ান এই তরুণ দুই নেতা। চাঙ্গা হয় দলটির নেতাকর্মীরা। নির্বাচনে বিএনপির দুই প্রার্থীর পরাজয় হলেও দলীয় নেতা-কর্মী ও ভোটারদের অনেকাংশের মন জয় করে নিতে সক্ষম হন তারা।

এক হরতাল-এক সমাবেশ

ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ এনে গত ২ ফেব্রুয়ারি রাজধানীতে হরতাল পালন করে বিএনপি। তবে হরতাল ডেকে কেন্দ্রীয় নেতারা কেউ মাঠে ছিলেন না। কর্মীরাও ছিলেন নিষ্ক্রিয়। কিছু কর্মী নিয়ে রুহুল কবির রিজভী কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে কিছু সময় অবস্থান করেন। তাছাড়া কোথাও হরতালের প্রভাব পড়েনি। সবকিছু ছিল স্বাভাবিক। তারপরও এটাই ছিল এ বছর বিএনপির একমাত্র হরতাল পালন। খালেদার মুক্তির দাবিতে ৮ ফেব্রুয়ারি দুপুর ২টায় নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করে বিএনপি। সমাবেশে যোগ দিতে যাওয়ার সময় নাইটিঙ্গেল মোড় থেকে দলটির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলনসহ তিন নেতাক আটক করে পুলিশ। বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বছরের একমাত্র সমাবেশ করে বিএনপি।

শর্তসাপেক্ষে খালেদা জিয়ার মুক্তি

দুই বছর এক মাস ১৬ দিন পর মানবিক দিক এবং বয়স বিবেচনায় শর্তসাপেক্ষে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয় সরকার। ২৫ মার্চ বিকেল সোয়া ৪টায় হাসপাতাল থেকে বের হয়ে আসেন তিনি। খালেদা জিয়া দীর্ঘদিন বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাসপাতাল) প্রিজন সেলে চিকিৎসাধীন ছিলেন। ছোটভাই শামীম ইস্কান্দারের জিম্মায় তাকে ওইদিন হস্তান্তর করা হয়। প্রথমে ৬ মাসের জন্য মুক্তি দেয়া হলেও পরে আরো ৬ মাস মুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হয়। চলতি বছরের বিএনপির জন্য এটাই ছিল সবচেয়ে স্বস্তির খবর। মুক্তির পর থেকে বেগম জিয়া গুলশানের বাসা ‘ফিরোজায়’ রয়েছেন। করোনার কারণে সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থায় শুধু ব্যক্তিগত চিকিৎসক ও পরিবারের সদস্যরাই নিয়মিত দেখা-সাক্ষাৎ করছেন তার সঙ্গে। প্রয়োজনে দলের কাউকে ডেকে পাঠান বিএনপি প্রধান নিজেই। এছাড়া লন্ডনে থাকা বড় ছেলে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান, দুই পুত্রবধূ ও নাতনিদের সঙ্গে ফোনে কথাবার্তা বলে সময় কাটাচ্ছেন। মাঝে মধ্যে বড় ভাই প্রয়াত সাঈদ এস্কান্দারের পরিবার, ছোট ভাই শামীম এস্কান্দারের পরিবার, বোন সেলিনা ইসলাম ও তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেও বাসায় কথাবার্তা বলে সময় কাটে বিএনপি চেয়ারপারসনের।

কথা রেখেছেন রিজভী

খালেদা জিয়া দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে কারাগারে যাওয়ার পর থেকে দলীয় অফিস ছাড়েননি রুহুল কবির রিজভী। নেত্রীকে মুক্তি না করা পর্যন্ত দলীয় কার্যালয় ছাড়বেন না বলে সিন্ধান্ত নেন তিনি। অবশেষে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির পর ২৬ মার্চ তিনি নয়াপল্টন দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে মোহাম্মদপুরে নিজ বাসায় ফিরে যান।

করোনাকালে মানুষের পাশে বিএনপি

করোনা ভাইরাসের বিস্তারের পর থেকে নিজেদের সাধ্যমত সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। এছাড়া করোনা পরীক্ষায় জালিয়াতির সঙ্গে জড়িতদের শাস্তির দাবিও জানায় তারা। বিএনপির পক্ষ থেকে এই মাহমারিতে সারাদেশের প্রায় আড়াই কোটি সাধারণ মানুষকে করোনা সুরক্ষা সামগ্রীসহ ত্রাণ সামগ্রী দেয়া হয়েছে বলে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে।

সংবাদ সম্মেলন-আলোচনা সভা-মানববন্ধন

বিভিন্ন দিবসকেন্দ্রিক ভার্চ্যুয়াল সভা সেমিনার এবং নয়াপলটন ও গুলশান চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে নিজেদের সীমাবদ্ধ রেখেছে বিএনপি। দলের সিনিয়র নেতারা শুধুমাত্র সংবাদ সম্মেলনে নিজেদের সীমাবদ্ধ রাখায় দল এবং দলের বাইরে নানা সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। তাছাড়া পুরো বছর জুড়ে দেশের চলমান বিভিন্ন ইস্যুতে, নানা দিবস উপলক্ষে প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও ভেতরে আলোচনার সভা করেছে দলটি। মেজর (অব.) সিনহা হত্যাকাণ্ড ও সারাদেশে ধর্ষণ এবং নারী নির্যাতরে প্রতিবাদে রাজপথে সরব ছিল বিএনপি। তবে করোনা ভাইরাসের মধ্যেও বিএনপির নীতিনির্ধারণী ফোরামের নিয়মিত বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভার্চুয়াল এ বৈঠকে লন্ডন থেকে বরাবরের মত সভাপতিত্ব করেন দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

দুই ভাইস চেয়ারম্যানকে শোকজ নিয়ে নানা আলোচনা

দলীয় শৃঙ্খলাবিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে গত ১৪ ডিসেম্বর বিএনপির দুই ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমদ ও শওকত মাহমুদকে কারণ দর্শানোর নোটিশ (শোকজ) পাঠায় বিএনপি। এই চিঠির পর থেকেই রাজনৈতিক অঙ্গনে শুরু হয় নানা জল্পনা কল্পনা। শওকত মাহমুদ নিরবে চিঠির জবাব দিলেও মেজর হাফিজ চিঠির জবাব দিয়ে গণমাধ্যমে খোলামেলা কথা বলেন।

উপ-নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ

করোনা মহামারীর মধ্যেই গত জুলাই মাসে অনুষ্ঠিত বগুড়া-১ ও যশোর-৬ আসনের উপনির্বাচনে অংশ নেয়নি বিএনপি। অবশ্য পরবর্তী সময়ে ঢাকাসহ বেশ কয়েকটি উপনির্বাচনে দলটি অংশ নিয়েছে। একাদশ সংসদ নির্বাচনের পর এই সরকারের অধীনে আর কোনো নির্বাচনে অংশ না নেয়ার ঘোষণা দিয়েছিল বিএনপি। পরে এই সিদ্ধান্তে তারা পরিবর্তন আনে। সবশেষ অনুষ্ঠিত ঢাকা-৫ ও ঢাকা-১৮সহ কয়েকটি উপনির্বাচনে অনিয়মের প্রতিবাদে বিক্ষোভসহ নানা কর্মসূচি পালন করে বিএনপি। স্থানীয় সরকার নির্বাচনেও অংশ নিচ্ছে বিএনপি। নানা অনিয়মের মধ্যে নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে প্রশ্ন উঠে বিভিন্ন মহলে। প্রশ্নের জবাবে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না জেনেও আমরা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। কারণ হিসবে তিনি বলেন, এই সরকারের অধীনে যে নির্বাচন সুষ্ঠু হতে পারে না তা প্রমাণ করার জন্য আমরা নির্বাচনে যাচ্ছি।

যাদের হারালো বিএনপি

চলতি বছর করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বেশ কয়েকজন নেতার মৃত্যু হয়েছে। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, বিএনপি চেয়ারপাসনের উপদেষ্টা এম এ হক, সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল আউয়াল খান, বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদক সানাউল্লাহ মিয়া, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আহসানউল্লাহ হাসান, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সফিউল বারী বাবুসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ নেতা চলে গেছেন না ফেরার দেশে। এছাড়া বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী শাহজাহান সিরাজ মারা গেছেন অন্য রোগে আক্রান্ত হয়ে।

আরো সংবাদ