সত্যিই কী যুদ্ধ থামল, ধন্দে বিশ্ব - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ১৩ জুলাই ২০২০ ২৯ আষাঢ়, ১৪২৭

সোমবার

প্রকাশ :  ২০২০-০১-১০ ০৭:১১:২৯

সত্যিই কী যুদ্ধ থামল, ধন্দে বিশ্ব

প্রথমে আক্রমণ, পরক্ষণে সামলে যাওয়া। এই আগুন, এই পানি। খানিক আগে গর্জন, তো একটু পরেই ঠান্ডা- এই হল যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের চরিত্র। কখন কী বলেন, কী করেন- কোনো নিশ্চয়তা নেই।

সে হিসেবে ইরানকে শান্তির আহ্বান জানিয়ে নিশ্চিত যুদ্ধ থেকে সরে আসার যে ইঙ্গিত তিনি দিলেন, আদতে তা কতটুকু টেকসই, তা নিয়ে রীতিমতো ধন্দে পড়ে গেছে গোটা বিশ্ব। যুদ্ধ কি আসলেই থামল? সত্যিই কি যুদ্ধ থেকে বেরিয়ে এলেন ট্রাম্প? নাকি দমে গিয়ে দম বাড়াচ্ছেন?

ইরানের শীর্ষ জেনারেল কাসেম সোলেমানিকে হত্যার নির্দেশ দিয়ে মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে উত্তেজনা উসকে দেশে-বিদেশে তীব্র সমালোচনা কুড়িয়েছেন ট্রাম্প। এর কয়েকদিনের মাথায় বুধবার ভোরে ইরান প্রতিশোধ হিসেবে ইরাকে অবস্থিত মার্কিন দুটি ঘাঁটিতে হামলা চালায়।

বিশ্বপরাশক্তি যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এর পাল্টা আঘাত আসার কথা ছিল। তা না করে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে ধকল সামাল দিলেন ট্রাম্প। এরপরই তেহরানের সঙ্গে নিঃশর্ত আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছেন তিনি। ওয়াশিংটনের নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা বলছেন, এটা নিশ্চিত নয় যে, যুক্তরাষ্ট্র ও তাদের মিত্রদের ওপর হামলা চালানো থামিয়ে দিয়েছে ইরান।

তবে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাভাদ জারিফ সোলেমানি হত্যাকাণ্ডের প্রতিক্রিয়া দেখানো তেহরান ‘শেষ করেছে’ বলে জানিয়েছেন। প্রভাবশালী ইরাকি শিয়া নেতা মোক্তাদা আল-সদরও ‘সংকটের সমাপ্তির’ ঘোষণা দেন।

ট্রাম্পও ঠান্ডা স্বরে বলেছেন, ‘ইরান পিছিয়ে গেছে বলে মনে হচ্ছে, এটা উদ্বিগ্ন সব পক্ষের জন্যই ভালো হয়েছে। বিশ্বের জন্যও ভালো।’ বুধবার জাতির উদ্দেশে ভাষণেও তিনি ইরানি হামলার প্রতিক্রিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের পাল্টা হামলার প্রয়োজনীয়তা নেই বলেও মন্তব্য করেছেন।

উত্তেজনা এ হারে কমতে থাকলে ইরানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সংঘর্ষ বাধানোর দায় থেকে মুক্ত হয়েই নভেম্বরের নির্বাচনের প্রচারে নামতে পারবেন এ রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট।

তিনি দীর্ঘদিন ধরেই ইরাক-আফগানিস্তানে পূর্বসূরিদের ‘অন্তহীন যুদ্ধের’ সমালোচনা করে আসছিলেন। সেই ট্রাম্পই কিনা যুদ্ধে জড়িয়ে গেলেন! প্রেসিডেন্টের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত প্রতিনিধি পরিষদের সাবেক রিপাবলিকান স্পিকার নিউট গিংরিচ বলেছেন, ‘ট্রাম্প খুব সুশৃঙ্খলভাবে এবং শান্তভাবে তারা (ইরান) কী প্রতিক্রিয়া দেখায়, এর জন্য অপেক্ষা করছিলেন। তার আর উত্তেজনা বাড়ানোর দরকার নেই। আমার মনে হয়, ট্রাম্প সংযম দেখিয়েছেন।’

তবে সেন্টার ফর এ নিউ আমেরিকান সিকিউরিটির মধ্যপ্রাচ্যবিষয়ক নিরাপত্তা বিশ্লেষক কালেইঘ থমাস বলেন, ‘এটা সবে শুরু।’ এএফপিকে তিনি বলেন, ‘গত শুক্রবার মার্কিন ড্রোন হামলায় সোলেমানির হত্যার পর উত্তেজনার চিত্র পুরো পাল্টে গেছে। তারা (ইরান) কৌশলে পরিকল্পনা আঁটছে, যুক্তরাষ্ট্রকে ধাপে ধাপে ব্যথা দেয়ার ছক কষছে।’

মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন বাহিনীকে নেতৃত্ব দেয়া অবসরপ্রাপ্ত জেনারেল ডেভিড পেট্রাউস বলেন, সোলেমানিকে হত্যা শক্ত বার্তা দিচ্ছে যে, ইরানকে আরও সতর্ক হতে হবে। হেরিটেজ ফাউন্ডেশনের জ্যেষ্ঠ রিসার্চ ফেলো জেমস ফিলিপ বলেন, ইরানের মতো শাসকের বিরুদ্ধে প্রতিবন্ধকতা গড়ে তোলা খুব একটা সহজ কাজ নয়।

তিনি আরও বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্র ও তাদের মিত্রদের ওপর প্রক্সিযুদ্ধ চালানোর ভয়ংকর ইতিহাস রয়েছে ইরানের।

রক্ষণশীল থিংকট্যাংক ফাউন্ডেশনে ফর ডিফেন্স অব ডেমোক্রেটিসের গবেষক অ্যান্ড্রিউ স্ট্রিকার বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের এখনই স্পষ্ট হওয়া উচিত যে, ইরান তাদের দেশকে পরমাণু বোমায় শক্তিধর বানাতে চায় কি না।

ওয়াশিংটনেরও উচিত হবে তেহরানের সঙ্গে যথাসম্ভব সংঘাত এড়িয়ে চলা। তবে তাদের অবশ্যই ইরানের বিরুদ্ধে সব ধরনের শক্তি মোতায়েন রাখতে হবে।

আরো সংবাদ