সদকাতুল ফিতরের অদ্যোপান্ত- হেলাল আহমদ রিজভী - কক্সবাজার কন্ঠ । কক্সবাজারের মুখপত্র

শনিবার, ৬ জুন ২০২০ ২৩শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৫-০৪ ১৬:১১:০৮

সদকাতুল ফিতরের অদ্যোপান্ত- হেলাল আহমদ রিজভী

জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল “কক্সবাজার কন্ঠ’র সৌজন্যে মাহে রমজানের ধারাবাহিক “রমজান কন্ঠ” কলাম থেকে-

ধারাবাহিক পর্ব-১১

🔶সদকাতুল ফিতর কী:
‘সাদকাতুল ফিতর’—এখানে দুটি আরবি শব্দ রয়েছে। এক. ‘সদকা’, দুই. ‘ফিতর’। সদকা মানে দান, আর ফিতর মানে রোজার সমাপন বা ঈদুল ফিতর। অর্থাৎ ঈদুল ফিতরের দিন আদায় করা সদকাকেই সদকাতুল ফিতর বলা হয়। এ ছাড়া এটিকে যাকাতুল ফিতর বা ফিতরাও বলা হয়ে থাকে। শরিয়ত মতে, সদকাতুল ফিতর আদায় করা ওয়াজিব। হাদিস শরিফে ইরশাদ হয়েছে : হজরত ইবনে ওমর (রা.) বলেন, রাসুল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) সদকাতুল ফিতর অপরিহার্য করেছেন। এর পরিমাণ হলো, এক সা জব বা এক সা খেজুর। ছোট-বড়, স্বাধীন-পরাধীন—সবার ওপরই এটি ওয়াজিব। (বুখারি শরিফ, হাদিস : ১৫১২)

🔶সদকাতুল ফিতরের উদ্দ্যেশ্য:
এটি যাকাতের মতো একটি আর্থিক ইবাদত। পবিত্র মাহে রমজানে সিয়াম পালনকালে মানুষের যে ভুলত্রুটি হয়ে যায়, সেই ত্রুটি-বিচ্যুতির ক্ষতিপূরণ হিসেবে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের পক্ষ থেকে নির্ধারিত একটি ইবাদতের নাম। সদকাতুল ফিতরকে মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে পবিত্র উপহার হিসেবেও চিহ্নিত করা যেতে পারে।

আমাদের সমাজে সদকাতুল ফিতরের উদ্দেশ্য হিসেবে শুধু ‘গরিব-দুঃখীদের ঈদের খুশিতে শরিক করা’ দেখা হয়ে থাকে। মূলত এই ধারণা যথার্থ নয়। কেননা হাদিস শরিফে সদকাতুল ফিতরকে ‘কাফফারাতুন লিসসাওম’—রোজা অবস্থায় অবচেতনভাবে যে ত্রুটি-বিচ্যুতি হয়ে যায়, তার কাফফারা বা ক্ষতিপূরণ হিসেবেও উল্লেখ করা হয়েছে।

🔶সদকাতুল ফিতর কার ওপর ওয়াজিব:
সাদকাতুল ফিতরের নিসাব যাকাতের নিসাবের সমপরিমাণ। অর্থাৎ কারো কাছে সাড়ে সাত ভরি সোনা বা সাড়ে বায়ান্ন ভরি রুপা অথবা তার সমমূল্যের নগদ অর্থ কিংবা নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের অতিরিক্ত সম্পদ ঈদুল ফিতরের দিন সুবহে সাদিকের সময় বিদ্যমান থাকলে তার ওপর সদকাতুল ফিতর ওয়াজিব হবে। যাঁর ওপর সদকাতুল ফিতর আদায় করা ওয়াজিব, তিনি নিজের পক্ষ থেকে যেমন আদায় করবেন, তেমনি নিজের অধীনদের পক্ষ থেকেও আদায় করবেন। তবে এতে যাকাতের মতো বর্ষ অতিক্রম হওয়া শর্ত নয়। (ফাতহুল ক্বাদির : ২/২৮১)
এমনকি পবিত্র রমজানের শেষ দিনেও যে নবজাতক দুনিয়ায় এসেছে কিংবা কোনো ব্যক্তি ইসলাম গ্রহণ করেছে, তার পক্ষ থেকেও সদকাতুল ফিতর আদায় করতে হবে। (ফতোওয়ায়ে আলমগিরি : ১/১৯২)

🔶সদকাতুল ফিতরের পরিমাণ:
এর পরিমাণ সম্পর্কে শরিয়তে দুটি মাপকাঠি নির্ধারণ করা হয়েছে; তা হচ্ছে ‘এক সা’ বা ‘আধা সা’। খেজুর, পনির, জব ও কিশমিশ দ্বারা আদায়ের ক্ষেত্রে ‘এক সা’=৩২৭০.৬০ গ্রাম (প্রায়), অর্থাৎ তিন কেজি ২৭০ গ্রামের কিছু বেশি। এ ছাড়া গম দ্বারা আদায় করতে চাইলে ‘নিসফে সা’=১৬৩৫.৩১৫ গ্রাম বা ১.৬৩৫৩১৫ কেজি (প্রায়), অর্থাৎ এক কেজি ৬৩৫ গ্রামের কিছু বেশি প্রযোজ্য হবে। (আওজানে শরইয়্যাহ, পৃ. ১৮)

রাসুল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম )-এর যুগে মোট চারটি পণ্য দ্বারা সদকাতুল ফিতর আদায় করা হতো—খেজুর, কিশমিশ, জব ও পনির। হজরত আবু সাঈদ খুদরি (রা.) বলেন, আমাদের সময় ঈদের দিন এক সা খাদ্য দ্বারা সদকা আদায় করতাম। আর তখন আমাদের খাদ্য ছিল জব, কিশমিশ, পনির ও খেজুর। (বুখারি, হাদিস : ১৪৩৭)

🔶এবছর সদকাতুল ফিতরের সমমূল্যের পরিমাণ: এ বছর সাদকাতুল ফিতরের পরিমাণ জনপ্রতি সর্বোচ্চ ২২০০ টাকা এবং সর্বনিম্ন ৭০ টাকা নির্ধারণ করেছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন।
তাই যাঁরা আটা দ্বারা ফিতরা আদায় করতে চান, তাঁরা জনপ্রতি আধা সা (১ কেজি ৬৫০ গ্রাম) আটা বা এর সর্বোচ্চ বাজারমূল্য ৭০ টাকা দেবেন। যাঁরা যব দ্বারা আদায় করতে চান, তাঁরা এক সা (৩ কেজি ৩০০ গ্রাম) বা এর সর্বোচ্চ বাজারমূল্য ৭০০ টাকা আদায় করবেন। যাঁরা কিশমিশ দ্বারা আদায় করতে চান, তাঁরা এক সা (৩ কেজি ৩০০ গ্রাম) বা এর সর্বোচ্চ বাজারমূল্য ১৫২০ টাকা আদায় করবেন। যাঁরা খেজুর দিয়ে আদায় করতে চান, তাঁদের এক সা (৩ কেজি ৩০০ গ্রাম) খেজুর বা এর সর্বোচ্চ বাজারমূল্য ১৮৫০ টাকা আদায় করতে হবে। এমনিভাবে যাঁরা পনির দ্বারা আদায় করতে চান, তাঁরা এক সা (৩ কেজি ৩০০ গ্রাম) পনির বা এর সর্বোচ্চ বাজারমূল্য ২২০০ টাকা ফিতরা আদায় করবেন।

🔶 সদকাতুল ফিতর কাকে দিবেন:
যাঁরা যাকাত গ্রহণের উপযুক্ত, তাঁরা সদকাতুল ফিতর গ্রহণেরও উপযুক্ত। (রদ্দুল মুহতার : ৩/৩৭৯)

লেখক :
মাওলানা হেলাল আহমদ রিজভী
কামিল (এম,এ) ফার্স্ট ক্লাস
খতিব, রহমত নগর জামে মসজিদ, উত্তর সোনারপাড়া ঝাউবাগান, উখিয়া, কক্সবাজার।
মোবাইল- ০১৮২৪৮৭৮৭২১
ইমেইল-helalrezvi87@gmail.com

আরো সংবাদ