সদর খাদ্য গুদামে সরকার বিরোধী চক্র সক্রিয় - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯ ২৭শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মঙ্গলবার

প্রকাশ :  ২০১৯-১০-২৩ ০৫:৪৮:৪৮

সদর খাদ্য গুদামে সরকার বিরোধী চক্র সক্রিয়

কক্সবাজার: সদর খাদ্য গুদামের বিরুদ্ধে একের পর বিতর্ক ও অনিয়মের অভিযোগ যেন থামছেই না। একেক সময় একে অভিযোগ আসছে গণমাধ্যমে। স্থানীয় বাসিন্দাদের মুখেমুখে খাদ্যগুদামের কর্তাব্যক্তিদের দুর্নীতির কথা। অবশেষে দীর্ঘদিনের অভিযোগের সত্যতা মিলেছে। প্রশাসনের অভিযানে ধরা পড়েছে চাউল নিয়ে ভয়ানক জালিয়াতি।
বিদেশী দাতা সংস্থার চাল রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সরবরাহ দেয়ার আগের দিনই ঘটেছে এ ঘটনা। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এর আগেও এরকম সরবরাহ দেয়ার আগের দিন এভাবে চাল বস্তা থেকে চাল চুরি করা হয়েছিল।
একের পর এক জালিয়াতিতে সরকারের ভাবমুর্তি মারাতœকভাবে ক্ষুন্ন হচ্ছে। অপরদিকে বিদেশী দাতা সংস্থার আস্থাও হারাচ্ছে সরকারি খাদ্য মওজুদ রাখার প্রতিষ্টানসমূহ। অনেকেই সন্দেহ পোষণ করেন যে, বিদেশীদের কাছে সরকারি ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন করার জন্যই ইচ্ছাপূর্বক পরিকল্পিত চুরির ঘটনা ঘটাচ্ছে গুদামের অভ্যন্তরে কর্মরত ঘাপটি মেরে থাকা সরকার বিরোধী কর্মকর্তারা।

Advertisements

বিষয়টি উচ্চ পর্যায়ে তদন্ত করা দরকার মনে করেন অনেকেই। তবে খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তা দিয়ে তদন্ত করা হলে ফলাফল হবে একই রকমের। কেননা ওসি এলএসডি এবং কর্মরত অন্যান্যরা তাদের মোটা অংকের টাকা দিয়ে ম্যানেজ করে ফেলার অভিযোগ রয়েছে।
একটি দাতা সংস্থার জন্য ৩০ কেজি করে পরিমাপ করে রাখা প্রত্যেক বস্তা থেকে বিশেষ কায়দায় চাউল বের করে গোপনে আলাদা বস্তাভর্তি করার দৃশ্যে হতবাক হন অভিযানকারীরা।
রবিবার (২০ অক্টোবর) দুপুরে সরেজমিন দেখা গেছে, ৫ নং গুদামের পশ্চিম পাশে সাদা বস্তায় স্তুপ করে রাখা হয়েছে প্রায় ৩০০ টন মতো চাউল। যেগুলো নির্ধারিত একটি দাতাসংস্থাকে সরবরাহ করবে। কিন্তু সরবরাহের পূর্বেই প্রতিবস্তা থেকে অন্তত কেজি/দুই কেজি করে চাউল বিশেষ কায়দায় বের করে ফেলা হয়েছে। যা আলাদা বস্তায় ভরছে শ্রমিকরা। এখবর পৌঁছে যায় প্রশাসনের কাছে। ঘটনাস্থলে গেলে মেলে তার পুরোপুরি সত্যতা। চালানো হয় অভিযান।

তবে, অভিযানের খবরে জালিয়াতি ও অপকর্মের মূল হোতা হিসেবে অভিযুক্ত উপখাদ্য পরিদর্শক কামরুল ইসলামসহ সিন্ডিকেটের সদস্যরা পালিয়ে যায়। এমনকি বন্ধ রাখে তাদের ব্যবহারের মুঠোফোনও। বারবার চেষ্টা করেও কামরুল ইসলামের সংযোগ পাননি গুদামের শীর্ষ কর্মকর্তারা। ঘটনাস্থল থেকে বড় কোন কর্মকর্তাকে আটক না করলেও জায়িলাতির কাজে নিয়োজিত দুই শ্রমিককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সদর মডেল থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। রবিবার রাত ৮ টায় রিপোর্ট তৈরীর সময় তারা থানা হেফাজতে ছিল বলে সুত্র মারফত জানা গেছে।
এূলতঃ স্থানীয়দের দেয়া তথ্য ও বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার খবরের সুত্র ধরে অভিযান চালায় জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সদর সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহরিয়ার মুক্তার।
সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এএইচএম মাহফুজুর রহমানের নির্দেশে ঘটনাস্থলে পৌঁছেন এসিল্যান্ড শাহরিয়ার মুক্তার। চাল নিয়ে জালিয়াতির বিষয়ে প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় তিনি নিজেই উপস্থিত থাকাবস্থায় ৬ নং গুদামটি সীলগালা করে দেন। সতর্ক করেন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের।
স্থানীয়রা জানিয়েছে, সদর খাদ্য গুদামের কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ সালাহ উদ্দিনের আস্কারায় জালিয়াতির সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে। কিছু অসাধু ব্যক্তির কারণে বদনাম হচ্ছে সরকারের। উর্ধ্বতন কর্তাদের সাথে হাত করে একযুগেরও বেশি সময় ধরে একই কর্মস্থলে রয়ে গেছেন কামরুল ইসলাম এবং সোলতানা রাজিয়া। বরং তারা একের একের পর এক পদোন্নতিও হাতিয়ে নিচ্ছেন। কামরুলের সুবিধা হচ্ছে তাকে বদলী করা হলেই তিনি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসাবে দৌঁড়ঝাপ দিয়ে তা ঠেকিয়ে দেন।
স্থানীয় এক ব্যবসায়ী জানান, কামরুল ইসলাম ও পরিদর্শক সোলতানা রাজিয়ার পরিকল্পনাতেই গুদামের যাবতীয় অপকর্ম দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে। অথচ কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। সোলতানা রাজিয়া দীর্ঘ এক যুগেরও বেশী সময় ধরে একই চেয়ারে থেকে কামরুল ইসলামকে দিয়ে কারবার চালিয়ে আসছেন।
Advertisements

সাইফুদ্দিন ভুচু (মাঝি), দারুয়ান ছৈয়দ হোসেন, ঝাড়–দার স্বপন কুমার মল্লিকও চাল জালিয়াতির অংশিদার বলে গোয়েন্দা সুত্রে প্রকাশ পেয়েছে। গুদামের গেইটের আবদুল গফুর সওদাগরসহ আরো বেশ কয়েকজন লোক আকামে জড়িত। দুই নাম্বার চালের সিংহভাগ ক্রেতা ‘সাগর’ নামের বহুল আলোচিত এক ব্যক্তি।
বিসিকে কালু হাজির পরিত্যক্ত ভবনে তিনি ভেজাল চালের গুদাম করেছেন। ডব্লিওএফপির ২৯ জনা ‘চাল সিন্ডিকেটের’ তিনি অন্যতম নিয়ন্ত্রক।

এদিকে, সদর খাদ্যগুদামে ভয়ানক জালিয়াতির খবরে ছুটে যান জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক দেবদাস চাকমা। তিনি ঘটনায় জড়িতদের কঠোর ব্যবস্থা নেবেন বলে জানান।
বিশেষ করে ওসি মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন, উপখাদ্য সহকারী কামরুল ইসলামের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তপূর্বক যথাযথ ব্যবস্থা নেবেন বলে তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় গণমাধ্যমকে জানান।
রবিবার দিবাগত রাত ৮টার দিকে মুঠোফোনে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক দেবদাস চাকমা জানান, এ ঘটনায় উখিয়া উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক সেলিম হেলালিকে প্রধান করে ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্য হিসেবে রয়েছেন- মহেশখালী উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা তপন বড়–য়া ও রামুর ইন্সপেক্টর মুরশেদুল করিম। প্রতিবেদন সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অভিযানে নেতৃত্বদানকারী জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সদর সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহরিয়ার মুক্তার জানান, চাউল জালিয়াতির বিষয়ে প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে। গুদাম সীলগালা করা হয়েছে। পরবর্তী তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Advertisements

এদিকে খোঁজখবর নিয়ে জানা গেছে, কক্সবাজার শহরের বিসিকে (র‌্যাব ক্যাম্প সংলগ্ন) কালু হাজির ঝুঁকিপূর্ণ ও পরিত্যক্ত গুদামে বিভিন্ন জায়গা থেকে কম দামে ভেজাল চাউল মজুত করে ওখান থেকেই রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চাউল সরবরাহ করা হয়। প্রায় ৩০ টাকায় টেন্ডারের চাউল কেজিতে ১৭ টাকা দরে কিনেছে সাগর এন্টারপ্রাইজ ও খাজা ভান্ডার। বর্তমানে ৫০০০ টন চাউল সরবরাহ করবে চিহ্নিত সিন্ডিকেটটি। তবে, সাগর কোল্ডস্টোরেজে বেশিরভাগই নি¤œমানের খাদ্য পন্য মজুত করা হয় বলে সুত্রটির দাবী। দাতা সংস্থা ডব্লিউএফপির চাউলের টেন্ডার ২৯ জনের সিন্ডিকেটের নিয়ন্ত্রণে।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
নভেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০