সন্ত্রাসীদের সহযোগিতাকারীকে ছাড় দেয়া হবে না - Coxsbazarkontho.com

বুধবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২০ ১৫ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০১৯-১১-২৩ ১১:৫৯:৩৭

সন্ত্রাসীদের সহযোগিতাকারীকে ছাড় দেয়া হবে না

কাইসার হামিদ মহেশখালী থেকে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডাকে সাড়া দিয়ে সুন্দরবনের দস্যূ, পাবনার চরমপন্থী, টেকনাফের ইয়াবা ব্যবসায়ী ও ২য় বারের মত মহেশখালীর জলদস্যূরা আত্মসমর্পণ করেছে। আর যারা আত্মসমর্পণ করেনি তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি বলেন, সরকার সন্ত্রাসীদের দমন করবে। আর তাদের সহযোগিতাকারী সে যেই হোক না কেন তাকে ছাড় দেয়া হবে না। সে যদি সংসদ সদস্য হয় তবুও তাদের ছাড় দেয়া হবে না।

Advertisements

২৩ নভেম্বর দুপুরে কক্সবাজার জেলা পুলিশের আয়োজনে মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে জলদস্যূদের আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মহেশখালীতে সরকারের উন্নয়নযজ্ঞ চলছে তাই এখানে কোন জলদস্যু বা সন্ত্রাসী থাকতে পারবে না। সব সন্ত্রাসীদেরকে দমন করবো। এটা সারাদেশে চলবে এবং চলছে।
এ অনুষ্ঠানে ১৮ বাহিনীর ৯৬ জলদস্যু ও অস্ত্র কারিগর আত্মসমর্পণ করেছে। তারা কালারমারছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের হাতে অস্ত্র ও গুলি জমা দিয়ে জলদস্যুরা আত্মসমর্পণ করেন।
পুলিশ জানায়, মোট ১৮টি বাহিনীর ৯৬ জন জলদস্যু ও অস্ত্রকারিগর স্বেচ্ছায় আত্মসমর্পণ করেন। একই সাথে দেড় শতাধিক বিভিন্ন ধরণের আগ্নেয়াস্ত্র ও দুই হাজারেরও বেশি গোলাবারুদ জমা দেন তারা। আত্মসমর্পণকারীদের মধ্যে, মহেশখালীর কালারমারছড়ার আলোচিত জিয়া বাহিনীর প্রধান জিয়াউর রহমান জিয়া, তার বাহিনীর মানিক, আয়াতুল্লাহ, আবদুস শুক্কুর, সিরিপ মিয়া, একরাম ও বশিরসহ অন্তত ১৫, কালা জাহাঙ্গীর বাহিনীর প্রধান জাহাঙ্গীর আলম, সদস্য আবুল, সোনা মিয়া, জমির উদ্দীনসহ প্রায় ১৫ জন, মহেশখালীর নুনাছড়ির মাহমুদুল্লাহ বাহিনীর প্রধান মোহাম্মদ আলী, সেকেন্ড-ইন-কমান্ড বদাইয়াসহ ১৫ জন, ঝাপুয়ার সিরাজ বাহিনীর প্রধান সিরাজ-উদ-দৌলাহ, নলবিলার মুজিব বাহিনীর প্রধান মজিবুর রহমান প্রকাশ শেখ মুজিব এবং কুতুবদিয়ার লেমশিখালীর কালু বাহিনীর প্রধান কালু প্রকাশ গুরা কালুসহ তার বাহিনীর ১৫-২০ জন জলদস্যু ও অস্ত্রবাজ রয়েছে।
Advertisements

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে পুলিশের মহাপরিদর্শক ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী, চট্টগ্রাম বিভাগের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক, মহেশখালী-কুতুবদিয়া আসনের সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক, চকরিয়া-পেকুয়া আসনের সংসদ সদস্য জাফর আলম, কক্সবাজার সদর-রামু আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা ও সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান, পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য ২০১৮ সালের ২০ অক্টোবর র‌্যাবের মাধ্যমে মহেশখালী-কুতুবদিয়ার ৪৩ জলদস্যু আত্মসমর্পণের পর ধরা ছোঁয়ার বাইরে থেকে যায় অনেক শীর্ষ দস্যু ও অস্ত্র কারিগর। যার কারণে বিভিন্ন পাহাড় ও সাগর উপকূলে অভিযান বৃদ্ধি করে পুলিশ। অভিযানের মুখে আবারও আত্মসমর্পণ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে মহেশখালী, কুতুবদিয়া, চকরিয়া ও পেকুয়ার দস্যু ও অস্ত্র কারিগররা।

আরো সংবাদ