সব রেকর্ড ভেঙে ভারতে আবারও করোনায় সর্বোচ্চ সংক্রমণ - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৯-০৩ ১৮:৪০:৪২

সব রেকর্ড ভেঙে ভারতে আবারও করোনায় সর্বোচ্চ সংক্রমণ

কক্সবাজার কন্ঠ ডেস্ক :  ভারতে ফের দেখা গেল সর্বোচ্চ হারে করোনা সংক্রমণ। গত ২৪ ঘন্টায় করোনা আক্রান্ত হলেন দেশটির ৮৩ হাজার ৮৮৩ জন মানুষ। একই সময়ের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১০৪৩ জনের। একদিনের মধ্যে দেশে সর্বোচ্চ সংক্রমণ এটাই। নতুন সংক্রমণের জেরে দেশে মোট আক্রান্ত দাঁড়িয়েছে ৩৮ লক্ষ ৫৩ হাজার ৪০৭। এরমধ্যে অ্যাক্টিভ কেস রয়েছে ৮ লক্ষ ১৫ হাজার ৫৩৮ টি। সুস্থ হয়ে উঠেছে মোট ২৯ লক্ষ ৩৯ হাজার মানুষ। দেশজুড়ে এখন পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ৬৭ হাজার ৩৭৬ জনের।এদিকে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে একদিনে আরও ৩২ জনের মৃত্যু হয়েছে, নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন ২ হাজার ১৫৮ জন।

বৃহস্পতিবার বিকালে সংবাদমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে দেশে করোনাভাইরাস পরিস্থিতির এই সবশেষ তথ্য জানানো হয়।

সেখানে বলা হয়, সকাল ৮টা পর্যন্ত শনাক্ত ২ হাজার ১৫৮ জনকে নিয়ে দেশে করোনাভাইরাসে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ১৯ হাজার ৬৮৬ জন হল।

আর গত এক দিনে মারা যাওয়া ৩২ জনকে নিয়ে দেশে করোনাভাইরাসে মোট মৃতের সংখ্যা ৪ হাজার ৩৮৩ জনে দাঁড়াল।

আইইডিসিআরের হিসাবে বাসা ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরও ২ হাজার ৯৬৪ জন রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন গত এক দিনে। তাতে সুস্থ রোগীর মোট সংখ্যা বেড়ে ২ লাখ ১৩ হাজার ৯৮০ জন হয়েছে।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়ে ৮ মার্চ, ২৬ অগাস্ট তা তিন লাখ পেরিয়ে যায়। এর মধ্যে ২ জুলাই ৪ হাজার ১৯ জন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়, যা এক দিনের সর্বোচ্চ শনাক্ত।

প্রথম রোগী শনাক্তের ১০ দিন পর ১৮ মার্চ দেশে প্রথম মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। ২৫ অগাস্ট সেই সংখ্যা চার হাজার ছাড়িয়ে যায়। এর মধ্যে ৩০ জুন এক দিনেই ৬৪ জনের মৃত্যুর খবর জানানো হয়, যা এক দিনের সর্বোচ্চ মৃত্যু।

বিশ্বে এ পর্যন্ত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ইতোমধ্যে ২ কোটি ৬০ লাখ পেরিয়েছে; মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৮ লাখ ৬৩ হাজারে।

জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বিবেচনায় বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান এখন ১৫তম স্থানে। তার মৃতের সংখ্যায় বাংলাদেশ রয়েছে ২৯তম অবস্থানে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ৯৩টি ল্যাবে ১৪ হাজার ৪২২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এ পর্যন্ত পরীক্ষা হয়েছে ১৫ লাখ ৯২ হাজার ৩৮টি নমুনা।

২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৪ দশমিক ৯৬ শতাংশ, এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ২০ দশমিক ০৮ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৬৬ দশমিক ৯৩ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩৭ শতাংশ।

গত এক দিনে যারা মারা গেছেন তাদের মধ্যে পুরুষ ২৪ জন, নারী ৮ জন। তাদের মধ্যে ৩১ জন হাসপাতালে এবং ১ জন বাড়িতে মারা গেছেন।

তাদের মধ্যে ১৮ জনের বয়স ছিল ৬০ বছরের বেশি। ১২ জনের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে এবং ২ জনের বয়স ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ছিল।

১৫ জন ঢাকা বিভাগের, ৭ জন চট্টগ্রাম বিভাগের, ৩ জন সিলেট বিভাগের, ৬ জন রংপুর বিভাগের এবং ১ জন ময়মনসিংহ বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন।

দেশে এ পর্যন্ত মারা যাওয়া ৪ হাজার ৩৮৩ জনের মধ্যে ৩ হাজার ৪৩২ জনই পুরুষ এবং ৯৫১ জন নারী।

তাদের মধ্যে ২ হাজার ১৭৬ জনের বয়স ছিল ৬০ বছরের বেশি। এছাড়া ১ হাজার ২০১ জনের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে, ৫৮২ জনের বয়স ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে, ২৬৪ জনের বয়স ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে, ১০৫ জনের বয়স ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে, ৩৬ জনের বয়স ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে এবং ১৯ জনের বয়স ছিল ১০ বছরের কম।

এর মধ্যে ২ হাজার ১২০ জন ঢাকা বিভাগের, ৯৫০ জন চট্টগ্রাম বিভাগের, ২৯১ জন রাজশাহী বিভাগের, ৩৬৩ জন খুলনা বিভাগের, ১৬৯ জন বরিশাল বিভাগের, ১৯৭ জন সিলেট বিভাগের, ২০০ জন রংপুর বিভাগের এবং ৯৩ জন ময়মনসিংহ বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন।

আরো সংবাদ