সামাজিক কল্যাণে যাকাত ও দান-খয়রাত - কক্সবাজার কন্ঠ । কক্সবাজারের মুখপত্র

শনিবার, ৬ জুন ২০২০ ২৩শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৫-১৮ ২২:০৯:১৯

সামাজিক কল্যাণে যাকাত ও দান-খয়রাত

জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল “কক্সবাজার কন্ঠ” এর সৌজন্যে মাহে রমজানের ধারাবাহিক “রমজান কন্ঠ” কলাম থেকে-

ধারাবাহিক পর্ব-২৩

🔷সামাজিক কল্যাণে যাকাত এবং দান খয়রাতঃ
(ক) সামাজিক কল্যাণে যাকাতঃ
ইসলামের ৫টি স্তম্ভের মধ্যে যাকাত অর্থনৈতিক স্তম্ভ। ইসলামে যাকাত ব্যবস্থা সমাজের দারিদ্র্য ও দুঃখ-কষ্ট দূর করা ও মানবতার কল্যাণ সাধন করা। ধনীদের সম্পদে গরীব ও বঞ্চিতের হক রয়েছে। সঠিক হিসাব করে নিয়মিত যাকাত প্রদান করার ফলে ধনীর সম্পদের উপর গরীবের হক পরিশোধ হয়। ফলে সম্পদ পরিশুদ্ধ ও হিফাযত হয়, যাকাতদাতার মনকে লোভ থেকে পবিত্র করে এবং দান ও ত্যাগ স্বীকারে অভ্যস্থ হতে সাহায্য করে। যাকাত প্রদানকারীর জন্য রয়েছে মহান আল্লাহ তায়ালার নিকট হতে অগণিত পার্থিব ও পারলৌকিক কল্যাণ। যাকাতের উপকারভোগী সমাজের দূঃখী-দরিদ্র জনগোষ্ঠি। যাকাতের অর্থে সমাজের দরিদ্র জনগোষ্ঠির অভাব পূরণে সহায়তা করার পাশাপাশি অর্থনৈতিক বৈষম্য হ্রাস পায় এবং সমাজে ধনী- দরিদ্রের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা ও সহানুভূতির গুণাবলী বৃদ্ধি পায়।

(খ)দান – খয়রাতঃ
সম্পদ উপার্জনের লক্ষ্য দুনিয়ার ও আখিরাতের শান্তি লাভ করা। উপার্জনকারী নিজের প্রয়োজন পূরণের পর তার নিকট যে সম্পদ অবশিষ্ট থাকে, তা সমাজের অসহায় মানুষের কল্যাণে ব্যয় করার বিধান রয়েছে। তাই যাকাত ছাড়াও সম্পদ হতে স্বীয় আত্মীয়-স্বজন, প্রতিবেশী, এতিম, মিসকিন ও সাহায্য প্রার্থীদের এবং আল্লাহর রাস্তায় দান করতে হয়। আল্লাহ তায়ালা দানকে বৃদ্ধি ও সমৃদ্ধ করেন।

🔷যাকাত আদায় করার সময়ঃ
নিসাবের মালিক হওয়ার পর এক বৎসর অতিবাহিত হলেই সঙ্গে সঙ্গে যাকাত ওয়াজিব হয়। বিলম্ব করা জায়েয নাই। তবে বর্ষপূর্তির পূর্বে আদায় করা জায়েয।


মাওলানা হেলাল আহমদ রিজভী,
কামিল (মাস্টার্স) ফার্স্ট ক্লাস,
মাওলানা ভিলা, সোনারপাড়া, উখিয়া, কক্সবাজার।
মুঠোফোন- 01824878721
ই-মেইল-helalrezvi87@gmail.com

আরো সংবাদ