সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষোভের ঝড় - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯ ১লা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বুধবার

প্রকাশ :  ২০১৯-১০-০৮ ২০:৩৬:১৮

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষোভের ঝড়

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক, সংবাদ :বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগযোগমাধ্যমে নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ। দেশ এবং দেশের বাইরে থেকে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে এই হত্যাকাণ্ডের বিচার চেয়েছে সবাই। তবে ভারতের যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তনুশ্রী রায়ের একটি ফেসবুক স্টেটাস মুহূর্তেই ভাইরাল হয় গতকাল। অন্যদিকে আবরার ফাহাদের ফেসবুক প্রোফাইলকে বিশেষভাবে স্মরণে রাখার জন্য ‘রিমেম্বারিং’ ট্যাগযুক্ত করেছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।


আবরার সর্বশেষ ফেসবুক স্টেটাসে লেখেন, ‘১.৪৭ এ দেশভাগের পর দেশের পশ্চিমাংশে কোন সমুদ্রবন্দর ছিল না। তৎকালীন সরকার ৬ মাসের জন্য কলকাতা বন্দর ব্যবহারের জন্য ভারতের কাছে অনুরোধ করল। কিন্তু দাদারা নিজেদের রাস্তা নিজেদের মাপার পরামর্শ দিচ্ছিল। বাধ্য হয়ে দুর্ভিক্ষ দমনে উদ্বোধনের আগেই মোংলা বন্দর খুলে দেয়া হয়েছিল। ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে আজ ইন্ডিয়াকে সে মোংলা বন্দর ব্যবহারের জন্য হাত পাততে হচ্ছে। ২. কাবেরি নদীর পানি ছাড়াছাড়ি নিয়ে কানাড়ি আর তামিলদের কামড়াকামড়ি কয়েক বছর আগে শিরোনাম হয়েছিল। যে দেশের এক রাজ্যই অন্যকে পানি দিতে চাই না সেখানে আমরা বিনিময় ছাড়া দিনে দেড় লাখ কিউবিক মিটার পানি দেব। ৩. কয়েক বছর আগে নিজেদের সম্পদ রক্ষার দোহাই দিয়ে উত্তর ভারত কয়লা-পাথর রপ্তানি বন্ধ করেছে অথচ আমরা তাদের গ্যাস দেব। যেখানে গ্যাসের অভাবে নিজেদের কারখানা বন্ধ করা লাগে সেখানে নিজের সম্পদ দিয়ে বন্ধুর বাতি জ্বালাব। হয়তো এ সুখের খোঁজেই কবি লিখেছেন- ‘পরের কারণে স্বার্থ দিয়া বলি, এ জীবন মন সকলি দাও, তার মতো সুখ কোথাও কি আছে, আপনার কথা ভুলিয়া যাও।’

এই স্টেটাস দেয়া পর গত রোববার রাত তিনটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শের-ই-বাংলা হলের দোতলায় ওঠার সিঁড়ির মাঝ থেকে আবরার ফাহাদের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। জানা যায়, রাতে বুয়েটের শের-ই বাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে আবরারকে পেটান বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা। এই হত্যাকাণ্ডের পর বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

আশরাদুল বারি নামক এক ব্যক্তি তার ফেসবুক স্টেটাসে লিখেন, ‘আবরার ফাহাদ ও আবরার ফাইয়াজ। দেশের সেরা মেধাবী দুই ভাই। দু’দিন ধরে বারবার শুধু ভাবছি আবরারের বাবা মায়ের কেমন লাগছে সন্তান হারিয়ে। ছয় ঘণ্টা ধরে মানুষরূপী কিছু হায়েনারা তার শরীরে যখন এক একেকটা করে আঘাত করছিল কতবার ই না মৃত্যু যন্ত্রণায় ছটফট করে বাবা মা বলে চিৎকার করেছে ছেলেটি? ওই পশু-জানোয়াড়দের কি একবারও নিজ ভাই-বোনের কথা মনে পড়েনি? ছেলের পুরো শরীরের এমন দৃশ্য দেখে ওই বাবা মায়ের বুকটা কেমন করছে?



সুমাইয়া আহমেদ রিতু ফেসবুক স্টেটাসে লিখেন, ‘সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে নাস্তা খেতে খেতে এই রকম একটা খবর পড়া… কিছুক্ষণের জন্য স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিলাম। ছেলেটার নাম আবরার ফাহাদ। বুয়েটের ছাত্র। আমার ছেলের নামও আবরার জাবির। আমাদেরও খুব ইচ্ছে ছেলে বুয়েটে পড়বে। কিন্তু যখন সে বুঝতে শিখবে সে নিজেই সিদ্ধান্ত নেবে। আমরা শুধু এখন আমাদেরটাই বলতে পারি। আমি নিজেই ছেলেকে পড়াই। মাঝে একজন টিউটর দিয়েছিলাম, বাট ভরসা করতে পারিনি। হাজার ব্যস্ততা কিংবা নিজের অসুস্থতার মাঝেও ছেলের পড়াশোনায় অবহেলা করতে দেই না। নিশ্চয়ই আবরারের মা ও ছেলেকে এভাবে আগলিয়ে রেখেছিলেন। কতটা ত্যাগ-তিতিক্ষার পর ছেলেটা বুয়েটে ভর্তি হতে পেরেছিল। মায়ের বুকের ধন গতকাল বিকেলেই বাড়ি থেকে ফিরেছিল হলে। অথচ আজ সেই ছেলেই যাবে আবার বাড়িতে কিন্তু হেঁটে নয় লাশ হয়ে। তার পরিবারের কাছে এর চেয়ে মর্মান্তিক কোন খবর কী আর পৃথিবীতে আছে? আহা! কোথায় থাকবে আমাদের বাচ্চারা নিরাপদে? কোন পৃথিবীতে তাদের রেখে যাব আমরা?’

রকিবুল খান স্বপ্নীল লিখেন, ‘কত মেধাবী হত্যা করে আর হত্যার শিকার হয়ে হারিয়ে গেছে তার কোন হিসাব রাজনৈতিক নেতারা রেখেছে. তাদের সন্তানরা বিদেশে পড়ে, তারপর উওরাধিকার সূত্রে নেতা হয়ে যায়. আর আমরা গরিবের সন্তান মরতেই থাকি নয়তো মারতে থাকি।’

Advertisements



সৈকত ইসলাম তার স্টেটাসে লিখেন, একটা মানুষ দলের হলেই আমরা তাকে নানাভাবে ঘৃণা করতে শেখাই! এই ঘৃণা করতে যারা মূলত শেখায়, তারা হলো আবরার হত্যার আসল খুনি! যে যে দলেরই হোক, সবার আগে সে তো মানুষ! মানুষ ভাবার শিক্ষাটা আবার যে দিন হতে দেয়া হবে, সে দিন হতে এই খুন বন্ধ হবে!

রাকিব মুসাব্বির লিখেন, চলছে এ কেমন নিষ্ঠুর অধ্যায়, নিজেকে মারি আজ বুক শ্রদ্ধায়, উলা বিবি ভর করে আমাদের আত্মায়, মাইট্টা জিনের আছর হয় নিরীহ এ বাংলায়…। আবরার তোমার মৃত্যুর প্রতিশোধ প্রকৃতি ও সৃষ্টিকর্তার হাতেই ছেড়ে দিলাম। ওপারে ভালো থেকো ভাই আমার।

ইশতিয়াক মাহমুদ লিখেন, এই দেশে মূল্যবোধ, নৈতিকতা, দেশপ্রেম, মানবিকতার অভাব নেই। অভাব হলো পরিচর্যার। ফুলের বাগানে ভালো মালি দরকার।

হত্যার বিষয়ে বিস্ময় প্রকাশ করে ভারতের যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তনুশ্রী রায় তার ফেসবুক স্টেটাসে লিখেন, ‘যদিও আমি ভারতীয় তারপরও বাংলাদেশের প্রতি আমার আলাদা একটা টান রয়েছে। কারণ আমার পূর্বপুরুষ বাংলাদেশেরই মানুষ ছিলেন। ’৪৭-র দেশভাগের পর ভারতে চলে আসেন। বাংলাদেশের মানুষ ভালো থাকুক এটা আমি সব সময় চাই। শুনলাম ভারত-বাংলাদেশের চুক্তি নিয়ে স্টেটাস দেয়ায় একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকে হত্যা করা হয়েছে। স্টেটাসটা আমি পড়লাম, নিজের দেশের স্বার্থ নিয়ে লিখার জন্য কিভাবে নিজের দেশেরই লোক একটা ছেলেকে এভাবে পিটিয়ে হত্যা করে ফেলে, এটা আমার কাছে আশ্চর্য লাগছে। সামান্য ফেসবুক স্টেটাসের কারণে মানুষ খুন করে ফেলা হচ্ছে বাংলাদেশে। কিভাবে এমন একটা দেশে মানুষ বাস করে!’

Advertisements



অন্যদিকে আবরার ফাহাদের ফেসবুক প্রোফাইলকে বিশেষভাবে স্মরণে রাখার জন্য ‘রিমেম্বারিং’ ট্যাগ যুক্ত করেছে ফেসবুক। বন্ধু ও শুভাকাক্সক্ষীদের কাছে বিশেষভাবে স্মরণে রাখার জন্য ফেসবুক আবরারের প্রোফাইলে ‘রিমেম্বারিং’ ট্যাগে এড করেছে। এতে তার প্রোফাইলে অন্য কেউ আর লগইন করতে পারবে না। এছাড়া একাউন্টটি হ্যাক হওয়ার ঝুঁকি থেকেও রক্ষা পেল।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
অক্টোবর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১