সুগন্ধার মোড়ে ঘুমিয়ে থাকা শিশুটি কোথায় যাবে! - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ৫ ডিসেম্বর ২০২০ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৩-২৭ ১২:১৪:০০

সুগন্ধার মোড়ে ঘুমিয়ে থাকা শিশুটি কোথায় যাবে!

শাহাজাহান চৌধুরী শাহীন: নোভেল করোনা ভাইরাস। বিশ্বব্যাপী এক আতংকের নাম। তেমনি আমাদের দেশেও কম নয়। করোনা এড়াতে লকডাউন চলছে। লকডাউনে পর্যটনের এই কক্সবাজার শহরে সবাই যখন আপন ঘরে স্বেচ্ছায় বন্ধী! তখন কিছু মানুষ খোলা আকাশের নিচেই রয়েছে।

জনসমাগম এলাকা হিসেবে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতে পর্যটক বিচরণের উপর কড়াকড়ি আরোপ করেছে জেলা প্রশাসন। এখন সৈকতে চিকচিক বালু ছাড়া কিছু নেই, তবে ঢেউয়ের নাচন একটুও কমেনি।

চারদিকে যখন লকডাউন, ঠিক সেই মুহুর্তে সৈকতে একটি ঘুমন্ত শিশু আর কুকুর একসাথে ঘুমানোর একটি ছবি সর্বত্র হৈচৈতে ফেলে দিয়েছে। ছবির শিরোনাম নাম সুগন্ধার মোড়ে ঘুমিয়ে থাকা শিশুটি কোথায় যাবে।

একজন মানবিক পুলিশ অফিসার, কক্সবাজার জেলা গোয়েন্দা শাখার ইন্সপেক্টর মানষ বড়ুয়ার দৃষ্টি এড়াতে পারেনি সেই দৃশ্যটি। সবাই যখন ঘর বন্দী, নিজেদের নিরাপত্তার কথা না ভেবে, জনগনের জন্য বাইরে রয়েছে প্রশাসনের এই মানবিক পুলিশগুলো। সৈকত ফাঁকা। এই শিশুটি সৈকতে ঘুমিয়ে আছে, আর পাশে ঘুমিয়ে আছে ভালোবাসার কুকুরটাও। কারণ দুইজনই ভবঘুরে। লকডাউনের শহরে তাদের ঘর নেই! তাই তাদের ওপেন স্কাই ই ঘর। সবদিকের অস্থিরতার মাঝেও কুকুরটি তার বন্ধুকে ছেড়ে যেতে পারেনি। করোনায়, কেউ কারো পাশে নেই, সবাই নিরাপদ দুরত্বে। কিন্তু রাত হলেই ঘুমন্ত মনিব শিশুর পাশে শুয়ে থাকছে কুকুর। কুকুরটি ঘুমন্ত মনিবের পাশে চুপচাপ বিষন্ন ভঙ্গিতে বসে থেকেছে। প্রভুভক্তির দৃষ্টান্ত স্থাপনকারী কুকুরটিকে এই সংকটময় মুহুর্তের মাঝেও মনিব থেকে আলাদা করতে পারেনি কেউ। মানুষ আর কুকুরের এই গভীর অনুভূতির সম্পর্কটা প্রভু-ভৃত্য বা মনিব-মান্য ছবিটি সচেতন মানুষের বিবেককে নাড়া দিয়েছেন। তবে, কক্সবাজার জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ইন্সপেক্টর মানস বড়ুয়া তার ফেসবুক ওয়ালে ছবিটি পোস্ট করলেও ছবির শিশুটির নাম পরিচয় প্রকাশ করেননি।
ছবিটি আপলোড দেয়ার মুহুর্তে অনেকে লাইক কমেন্ট, শেয়ার করেছে। এডভোকেট সাহাব উদদীন নামের একজন কমেন্ট করেছেন,”এই ছবি আমাকে ও কক্সবাজারে অভিভাবকসহ দায়িত্ববানদের লজ্জা দিল। সত্যিই এই ছবিতে নিজকে পরাজিত মনে হলো। সাংবাদিক মোর্শেদুর রহমান খোকন লিখেছেন পুরস্কার পাওয়ার মত ছবি,সাংবাদিক নয় তবে সাংবাদিকতা। এমন মানবিক একটি সম্পর্ক কেবল দুই বন্ধুর মাঝেই থাকতে পারে। কিন্তু কুকুরের মতো একটি প্রাণী কীভাবে মানুষের এত কাছাকাছি এলো? কীভাবে তারা মনিবকে পাহারা দিতে শিখলো? কেন তারা এত প্রভুভক্ত? কত বছরের পরিক্রমায় মানুষের বন্ধুতে পরিণত হয়েছে? কে সর্বপ্রথম কুকুরকে পোষ মানিয়েছিল? এসব প্রশ্নের কোন উত্তর নেই! তার পাশে কুকুর আছে বলে, সে কখনো নিজেকে একাকীত্ব ভাবেনি। বন্ধু কিংবা অন্য সম্পক ভাংবে ও গড়বে। কিন্তু কুকুর জীবনের শেষ মুহুর্তে পর্যন্ত আপনার সঙ্গে থাকবে। কুকুর অবিচ্ছেধ্য সঙ্গী। মানুষের তোলনায় তাদের বোঝার ক্ষমতা বেশি। তাদের ভালোবাসা নি:শর্ত।

আরো সংবাদ