সেন্টমার্টিন ব্যবসায়িদের ডাকা ধর্মঘট প্রত্যাহার - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০২-০২ ২০:৩৭:১০

সেন্টমার্টিন ব্যবসায়িদের ডাকা ধর্মঘট প্রত্যাহার

সেন্টমার্টিন ব্যবসায়িদের ডাকা ধর্মঘট ধর্মঘট প্রত্যাহার

জসিম সিদ্দিকী : কক্সবাজারের টেকনাফের সেন্টমাটিনের ছেঁড়াদিয়ায় পর্যটক নিষিদ্ধ করায় সেন্টমার্টিনের দ্বীপবাসিসহ পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়িদের ডাকা ধর্মঘট ইউএনও’র কর্তৃক স্থানীয়দের জীবন-জীবিকার বিষয়ে বিবেচনার আশ্বাসে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

সেন্টমার্টিনের ইউপি চেয়ারম্যান নুর আহমদ জানিয়েছেন, মঙ্গলবার বেলা ১২ টায় স্বারকলিপি প্রদানের পর টেকনাফের ইউএনও’র সঙ্গে এক বৈঠকে আন্দোলনকারিরা ধর্মঘট প্রত্যাহারের এ ঘোষণা দিয়েছেন।

ধর্মঘট প্রত্যাহার করায় সেন্টমার্টিনে এখন স্বাভাবিক পরিস্থিতি বিরাজ করছে বলে জানান স্থানীয় এ ইউপি চেয়ারম্যান।

গত বছর ১২ অক্টোবর পরিবেশ, বন ও জলবায়ু মন্ত্রণালয় সেন্টমার্টিন দ্বীপের ছেঁড়াদিয়া এলাকায় পর্যটক যাতায়ত নিষিদ্ধ করে। পরে এ বছর গত ২ জানুয়ারী ১৪ টি নির্দেশনার আলোকে পরিবেশ অধিদপ্তর এক গণবিজ্ঞপ্তি জারি করে। সেই নির্দেশনা বাস্তবায়নের দায়িত্ব পায় কোস্টগার্ড। রোববার থেকে ছেঁড়াদিয়ায় পর্যটক যাতায়ত বন্ধে কোস্টগার্ড কড়াকড়ি আলোপ করে।

এ নিয়ে ক্ষুদ্ধ সেন্টমার্টিন দ্বীপবাসি ও স্থানীয় পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়িরা রোববার সকাল থেকে ধর্মঘটের কর্মসূচী ঘোষণা করে। এতে দ্বীপটির সবধরণের দোকানপাট, পরিবহন, হোটেল-কটেজ ও নৌযানগুলো বন্ধ হয়েছে। ধর্মঘটের কারণে চরম ভোগান্তিতে পড়ে সেখানে বেড়াতে যাওয়া পর্যটকরা।

ইউপি চেয়ারম্যান নুর আহমদ বলেন, ছেঁড়াদিয়ায় পর্যটকদের যাতায়ত নিষিদ্ধ করার কারণে দ্বীপবাসিসহ পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়িরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। মঙ্গলবার সকালে এ নিয়ে আন্দোলনকারিরা বিভিন্ন দাবিতে টেকনাফের ইউএনও বরাবরে স্বারকলিপি প্রদান করতে যায়। এদিকে ধর্মঘটের তৃতীয়দিনেও পর্যটকবাহী জাহাজ যোগে সেন্টমার্টিনে বেড়াতে আসে বেশ কিছু সংখ্যক পর্যটক।

“ স্বারকলিপি প্রদানকালে ইউএনও পর্যটকদের অসুবিধার কথা বিবেচনা আন্দোলনকারিদের ধর্মঘট প্রত্যাহারের আহবান জানান। এসময় স্থানীয়দের জীবন-জীবিকার বিষয়টি ইউএনও উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাসও প্রদান করেছেন। ”

সার্বিক দিক বিবেচনায় আন্দোলনকারিরা ধর্মঘট প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলেন স্থানীয় এ ইউপি চেয়ারম্যান।

নুর আহমদ বলেন, সেন্টমার্টিনে স্থানীয় ১০ হাজার বাসিন্দার পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা আরো ৪ হাজার মানুষ বসবাস করে। তাদের মধ্যে ৬ হাজারের বেশী মানুষের জীবন-জীবিকা পর্যটন নির্ভর। পর্যটকদের সেন্টমার্টিন আসার প্রধান আকর্ষণ ছেঁড়াদ্বীপ ভ্রমণ।

এখন ছেঁড়াদ্বীপে পর্যটক যাতায়ত নিষিদ্ধ হলে দ্বীপবাসিসহ পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়িরা ক্ষতির মুখে পড়বে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

টেকনাফের ইউএনও মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন, ছেঁড়াদ্বীপে পর্যটক যাতায়তের নিষিদ্ধে কারণের স্থানীয়রা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়াসহ জীবন-জীবিকার বিষয়টি বিবেচনা করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলার আশ্বাসের প্রেক্ষিতে আন্দোলনকারিরা ধর্মঘট প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

ধর্মঘট প্রত্যাহার করায় এখন সেন্টমার্টিন দ্বীপে স্বাভাবিক পরিস্থিতি বিরাজ করছে বলে জানান স্থানীয় এ ইউএনও।

আরো সংবাদ