সৈকতের বালিয়াড়িতে নির্মিত হচ্ছে বঙ্গবন্ধু'র সর্ববৃহৎ বালুর ভাস্কর্য - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১ ৩রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-১২-১৩ ১৬:৪৭:৪২

সৈকতের বালিয়াড়িতে নির্মিত হচ্ছে বঙ্গবন্ধু’র সর্ববৃহৎ বালুর ভাস্কর্য

সৈকতের বালিয়াড়িতে নির্মিত হচ্ছে বঙ্গবন্ধু'র সর্ববৃহৎ বালুর ভাস্কর্য

সাইফুল ইসলাম  : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিুবুর রহমানে জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে বালুর ভাস্কর্য নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রায় ১০ ফুট উচ্চতার আবক্ষ ফ্রি স্টান্ডিং, ৬ ফুট উচ্চতা এবং ১৪ ফুট প্রস্থত এই ভাস্কর্য দুইটি বানাতে কাজ করেছে ভাস্কর কামরুল হাসান শিপনের নেতৃত্বে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের ১০ জন প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের একটি দল। কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের বাস্তবায়নে নির্মিত ভাস্কর্য উদ্ধোধন হবে ১৬ ডিসেম্বর এবং স্থায়ীত্বকাল থাকবে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

এ বিষয়ে ভাস্কর কামরুল হাসান শিপন জানান, কক্সবাজার হচ্ছে পৃথিবীর দীঘতম সমুদ্র সৈকত। সে উদ্যোগে আমরা যাকে বানাচ্ছি পৃথিবীর সর্ব বৃহত্তর নেতা আমাদের কাছে সে। বৃহত্তর জায়গায় বৃহত্তর মানুষকে দেখাতে চায় সারা বাংলাদেশে এবং বিশ্বের মানুষ এই উদ্দশ্যে বালু ভাস্কর্য নির্মাণ। বাংলাদেশে যতো বালু ভাস্কর্য নির্মাণ হয়েছে তাদের মধ্যেই এটাই সর্ববৃহৎ। এ নিয়ে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক কামাল হোসেন জানান, জাতির পিতার ভাস্কর্য অবমাননার প্রতিবাদে স্বরুপ এই সৃষ্টিশীল এই আয়োজন। বালুর ভাস্কর্য নির্মাণ হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর। এটাই হচ্ছে আমাদের একটি বড় প্রতিবাদ। বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য সারা বাংলাদেশে থাকবে এবং সারা পৃথিবীতে থাকবে। আমরা আমাদের কক্সবাজারের দীর্ঘ বালুকাময় সমুদ্র সৈকতে বালুর ভাস্কর্য নিমার্ণ করে সেই চেতনা ছড়িয়ে দিতে চাই। যারা এর পিছনে রয়েছে তাদেরকে জানিয়ে দিতে চাই এধরণের ভাস্কর্য আরও হবে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ রাখবেন সেই প্রত্যয় নিয়ে এই বাংলাদেশের কাছে এবং সার বিশ্বের কাছে কক্সবাজার যেমন পরিচিত লাভ করেছে তেমনি বঙ্গবন্ধুর সম্মানকে অম্লান রাখার জন্য এটাই তৈরী করা।

এই আয়োজনে পরিকল্পনা ও সহযোগিতা করেছেন ব্রান্ডিং কক্সবাজার। ব্রান্ডিং কক্সবাজারের সমন্বয়ক ইশতিয়াক আহমেদ জয় বলেন, এই বছর হচ্ছে মুজিব বর্ষ। জাতির পিতার জন্মশত বার্ষিকী। সেই দিন আসছে ১৬ ডিসেম্বর। বিজয়ের মাস হচ্ছে উৎসবের মাস। সারা বাংলাদেশসহ বিশ্বের নানান প্রান্ত থেকে হাজার হাজার পর্যটক আসবে। এই পর্যটকদের এবং নতুন প্রজন্মের সাথে বঙ্গবন্ধুর অবয়ব এবং বালু ভাস্কর্য আমরা তা পরিচিত এবং মিলন ঘটানোর জন্য বিজয়ের যে মাস সেটাকে উৎসবের সাথে পালন করার জন্য এই ১৬ ডিসেম্বরটাই হচ্ছে আমাদের জন্য মূখ্যম দিন এবং যে ধর্মান্ধ মৌলবাদ গোষ্ঠি আছে তাদেরকে জবাব দেয়ার মুখ্যম সুযোগ। আয়োজকদের প্রত্যাশা নতুন প্রজন্মের কাছে জাতির পিতাকে তুলে ধরার জন্য এ আয়োজন।

আরো সংবাদ