সোনারপাড়া মাদরাসার সাথে মাসলাকে আ'লা হযরত একটি চমৎকার যুগসুত্র - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ১৫ জুলাই ২০২০ ৩১শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৬-০৩ ০২:১৮:৪৬

সোনারপাড়া মাদরাসার সাথে মাসলাকে আ’লা হযরত একটি চমৎকার যুগসুত্র

দক্ষিণ কক্সবাজারে সুন্নিয়ত প্রচারে গাজী শেরে বাংলা (রাহঃ) ও আল্লামা হাশেমী (রহঃ) সহ ওলামায়ে আহলে সুন্নাতের অবদান অনস্বীকার্য।

লিখা উৎসর্গ- ইমামে আহলে সুন্নাত আল্লামা হাশেমী, শাহ ছলামত উল্লাহ, আশরাফ আলী, মুহাম্মদ তৈয়ব (রাহঃ) এর প্রতি।

বিসমিল্লাহর রাহমানির রাহীম, আলহামদুলিল্লাহি নাহমুদুহু ওয়ানুসাল্লি আলা হাবিবিহিল কারীম। আম্মা বা’দ…আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহ।

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, আশা করি সকলে ভাল আ ছেন। সকলের জ্ঞাতার্থে যে বিষয়ে জানাতে চাচ্ছি তা হয়তো অামাদের অনেকের অজানা। অসৎ কোন মনোভাব নিয়ে নই, মহান আল্লাহর ভয়কে সামনে রেখে একান্ত সদিচ্ছা নিয়ে হারানো ইতিহাস’কে পুনরাবৃত্তি করছি। সকলের প্রতি অনুরোধ, লিখাগুলো নীতিবাচক হিসেবে গ্রহন করবেন। নেতিবাচক কোন উদ্দ্যেশ্য অামার নেই (অাল্লাহ ও রাসুল (দঃ) ভাল জানেন)।

এবার আসুন, উখিয়া উপজেলার সোনারপাড়া গ্রামের দুইজন প্রবীণ আলেমেদ্বীন আলহাজ্ব মাওলানা ছালামত উল্লাহ ও আশরাফ আলী (রাহঃ) উভয়ই ভারত রাজ্য তৎকালীন হিন্দুস্তানের বেরেলী’তে অবস্থিত “মাসলাকে আ’লা হযরত” এর উপর প্রতিষ্ঠিত স্বনামধন্য দ্বীনি মারকায “মানযারুল ইসলাম বেরেলী শরীফ” থেকে টাইটেল (সর্বোচ্চ ডিগ্রী) পাশ করেন। ভারত রাজ্যে গমনের পর থেকে ১৯৫০ সাল পরবর্তী সময় পর্যন্ত তারা উক্ত মাদরাসা থেকে দ্বীনি শিক্ষা অর্জন করার সুবাদে অসংখ্য কিতাবের প্রণেতা, বিশেষত, হানাফি মাজহাবের নির্ভরযোগ্য ফতোয়াগ্রন্থ “বাহরে শরিয়ত” এর লেখক সদরুশ শরীয়ত মুফতী আমজাদ আলী সাহেব (রাহঃ) এর কাছ থেকে শিক্ষা অর্জনের সৌভাগ্য লাভ করেন। সেখান থেকে অধ্যাপনা শেষ করে গ্রামে এসে আল্লাহ ও রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সন্তুষ্টি অর্জনের মানসে ইসলামের সঠিক রুপরেখা আহলে সুন্নাত ওয়াল জাম’আত তথা মাসলাকে আ’লা হযরতের প্রচার-প্রসারের লক্ষ্যে ১৯৫৭ সালে উখিয়া উপজেলাধীন জালিয়াপালং ইউনিয়নের সর্বোচ্চ দ্বীনি শিক্ষার মারকায “সোনারপাড়া আহমদিয়া সুন্নিয়া দাখিল মাদরাসা” প্রতিষ্ঠা করার উদ্যোগ গ্রহন করেন।

মাদরাসা প্রতিষ্ঠা ও এলাকায় সুন্নিয়তের প্রভাব
➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖➖
১৯৫৭ সাল…
মূল প্রতিষ্ঠাতাদ্বয় তৎকালিন প্রবীন আলেমগণ, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ যেমন, মরহুম ফজলুল করিম মাষ্টার, মরহুম আব্দুল আজিজ মিয়া (জনাব ফজলুল কাদের সাবেক মেম্বার সাহেবের দাদা ও পিতা) মরহুম দলিলুর রহমান মাষ্টার (মাদরাসা পরিচালনা কমিটির বর্তমান সভাপতি এসএম ছৈয়দ আলম সাবেক চেয়ারম্যানের পিতা) মরহুম আহমদ হোসাইন মাষ্টার (সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান জাকের হোসাইন মাষ্টারের বড়ভাই), মরহুম হাজী আহমদ হোসাইন (সাবেক শিক্ষক মরহুম মেম্বার শফিউল আলম মাষ্টার ও মাওলানা শামশুল আলম (রাহঃ)’র পিতা), বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম লোকমান হাকীম মাষ্টার, মরহুম আব্দুল জলিল ঘুনারমুর (দাতা সদস্য মৌলভী কামালের পিতা), ও মরহুম আব্দুল মাজেদ, মরহুম বদিউল আলম (বর্তমান পরিচালক মাওলানা রাহমত উল্লাহ’র মেঝ চাচা, সাংবাদিক মাওলানা মুহাম্মদ হোসাইনের পিতা)’সহ নাম অজানা আরো অসংখ্য গুনিজনসহ স্থানীয় ধর্মানুরাগী ব্যক্তিদের পরামর্শ ও সহযোগিতা নিয়ে ১৯৫৭ সালে সোনারপাড়া মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন। একই বছর সালানার জলসার মাধ্যমে মাদরাসা উদ্বোধন ঘোষনা করার পদক্ষেপ গ্রহন করেন। উদ্বোধনি জলসায় প্রধান মেহমান হিসেবে “মাসলাকে আ’লা হযরত” এর উপর মাদরাসার উদ্বোধন ঘোষণা করেন সানিয়ে ওয়ায়েজ করনী, ইমামে আহলে সুন্নাত, গাজীয়ে দ্বীন ও মিল্লাত, আল্লামা আজিজুল হক শেরে বাংলা (রাহঃ)’। (কক্সবাজারের দক্ষিনাঞ্চলে শেরে বাংলা হুজুর এই একবারই এসেছিলেন, আগে পরে আর কখনো আসেননি বলে স্থানীয় মুরব্বী আলেমগণের কাছ থেকে জানতে পেরেছি)। সে সময়ে হুজুরের সাথে সফরসঙ্গী হয়ে এসেছিলেন বর্তমান ইমামে আহলে সুন্নাত, আমার মরহুম আব্বাসহ লাখো আলেমের ওস্তাদ, ভাষা সৈনিক, বীর মুক্তিযোদ্ধা, মুহতারাম আল্লামা নুরুল ইসলাম হাশেমী সাহেব (রাহঃ)।
(যিনি গত ০২/০৬/২০২০ইং, রোজ- মঙ্গলবার, সকাল ভোর ৫ঃ০০ ঘটিকায় আমাদের থেকে বিদায় নিয়ে আল্লাহর ডাকে সাড়া দিয়ে কোটি সুন্নি জনতা’কে শোক সাগরে ভাসিয়ে চলে গেলেন, ইন্না-লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

শেরে বাংলা হুজুরের নির্দেশনায় আল্লামা হাশেমী সাহেব হুজুর পরবর্তীতে আরো অনেকবার এই মাদরাসার সালানা জলসায় এসেছিলেন৷ তাদের অবদান উখিয়াবাসী কখনো শোধ করতে পারবেনা। এই ধারাবাহিকতা বর্তমান পর্যন্ত চলমান না থাকলে আমাদের পূর্বপুরুষ সুন্নিয়তের উপর থাকলেও আমরা হয়তো আজ সুন্নিয়তের উপর অটল থাকতে পারতামনা। আলহামদুলিল্লাহ… আজ উখিয়ার রন্দ্রে রন্দ্রে মানুষ সুন্নিয়ত সম্পর্কে চিনেন জানেন এবং বুঝেন।

মাদরাসার সালানা জলসায় ইমাম শেরে বাংলা ও ইমাম হাশেমি (রাহ) উখিয়া আসছেন খবর শুনে সু-দূর বোয়ালখালী থেকে আরেক ইমামে আহলে সুন্নাত মুফতী আল্লামা ইদ্রিস রজভী (মাজিআ) (বোয়ালখালী, চরনদ্বীপ) বিনা দাওয়াতে চলে এসেছিলেন। প্রত্যক্ষদর্শীদের মুখ থেকে শুনেছি, তিনি (ইদ্রিস রজভী সাহেব) আসতে দেখে মাওলানা ছালামত উল্লাহ ও আশরাফ আলী (রাহঃ) উভয়ই প্রাণের দোস্ত আল্লামা ইদ্রিস রজভী’কে সম্ভাষন জানাতে মঞ্চ ছেড়ে দৌঁড়ে গিয়ে কার আগে কে বুকে জড়াবে সে প্রতিযোগিতায় ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন। জলসায় উপস্থিত জনতা দেখলেন তাদের বন্ধুত্বের বন্ধন কেমন ছিল। মহান আল্লাহ ইদ্রিস রজভী হুজুরের হায়াতে অফুরন্ত বরকত দান করুন আমিন।

তারই ধারাবাহিকতায় পরবর্তীতে উক্ত মাদরাসার সালানা জলসায় গারাঙ্গিয়ার বড় হুজুর, ছোট হুজুর (রাহঃ), জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়ার সাবেক অধ্যক্ষ আল্লামা ওয়াকার উদ্দিন (রাহঃ) পাকিস্তান, আল্লামা মোবারক সাহেব (রাহঃ) লোহাগাড়া, উখিয়ার রাজাপালং ফাজিল মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা মরহুম আল্লামা আয়াজ উদ্দিন (রাহঃ)। যাদের আমরা দেখেছি, এই মাদরাসার প্রতিবছর সভার নিয়মিত বক্তা মাতারবাড়ীর আল্লামা উকিল আহমদ মজিদি (রাহঃ), খুটাকালীর পীর হাফেজ আব্দুল হাই (রাহঃ), লোহাগাড়ার আল্লামা শফিক সাহেব (রাহঃ), বদরখালীর আল্লামা জাফর আহমদ বদরী (রাহ), আল্লামা আবুল কাশেম নুরী (মাজিআ), কদমতলীর মাওলানা মাকছুদ উল্লাহ সাহেব সহ অসংখ্য সুন্নি আলেম মাদরাসার প্রতি বছরের জলসার নিয়মিত বক্তা। স্থানীয়দের উদ্যোগে মাহফিলে জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া’র সাবেক অধ্যক্ষ আল্লামা জালাল উদ্দিন আল কাদেরী (রাহঃ), শায়খুল হাদীস অাল্লামা উবায়দুল হক নঈমী, বর্তমান অধ্যক্ষ অাল্লামা অসিয়র রহমান অাল কাদেরী, অাল্লামা অাবু সুফিয়ান অাল কাদেরী, জামেয়ার মুহাদ্দিস অাল্লামা অাশরাফুজ্জামান অাল কাদেরী, রাউজানের অাল্লামা হাফেজ রুহুল অামিন অাল কাদেরী সাহেব, উদীয়মান বক্তা মাওলানা মুফতী অাব্দুল অাজিজ রজভী, অালামা সেকান্দার হোসাইন অাল কাদেরী, অাল্লামা ফেরদৌস অালম অাল কাদেরী, অাল্লামা নুর মুহাম্মদ অাল কাদেরী, অাল্লামা নুর মুহাম্মদ ছিদ্দিকি, অাল্লামা মুখতার রজভী সহ দেশের খ্যাতনামা অনেক মুহাক্কিক সুন্নি অালেমগণ এই এলাকায় সে সময় থেকে অাজ অবধি ওয়ায়েজ হিসেবে অামন্ত্রিত হয়ে অাসছেন।

মাদরাসার নামকরণঃ
➖➖➖➖➖➖➖
সোনারপাড়া মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতাদ্বয়’গণ সহ এই এলাকার স্বাধীনতা পূর্ব সময়ের অসংখ্য মুরব্বী অালেমগণের ওস্তাদ ছিলেন সদরুশ শরীয়ত মুফতী অামজাদ অালী (রাহঃ)। তিনার ওস্তাদ ও মুর্শিদ ছিলেন, ১৫০০ উর্দ্ধে কিতাবের লেখক, ইমামে ইশকে মোহাব্বত, রাহবারে সুন্নিয়ত, চতুর্দশ শতাব্দীর মোজাদ্দিদ, মোজাদ্দিদে দ্বীন ও মিল্লাত ইমাম অা’লা হযরত ইমাম অাহমদ রেজা খাঁন ফাজেলে বেরলভী (রাহঃ)। (যুগশ্রেষ্ট বিশ্ব বিখ্যাত কবি ও দার্শনিক অাল্লামা ড.ইকবাল (রাহঃ) যাকে সেই যুগের ইমাম অাজম অাবু হানিফা বলে ঘোষনা দিয়েছিলেন)।

মূল নাম- অাহমদ রেজা খাঁন (রহঃ)। সবাই ডাকতেন “রেজভী সাহেব” নামে। এমনকি দেওবন্দ মাদরাসার অনেক অালেম হযরতকে এই নামে ডাকতেন।

অা’লা হযরতের মূল নাম “অাহমদ” নাম থেকে “অাহমদিয়া” নামকরণ এবং অত্র এলাকায় সে সময় থেকে সর্বস্তরের ধর্মপ্রাণ মুসলমানগণ সুন্নি অাকিদায় বিশ্বাসী ছিলেন বলে “সুন্নিয়া” শব্দটিও সংযোজন করা হয়।

সুতরাং, সোনারপাড়া মাদরাসার ঐতিহাসিক নাম- “সোনারপাড়া অাহমদিয়া সুন্নিয়া দাখিল মাদরাসা”।

কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, ১৯৮৬ সালে মাদরাসা কর্তৃপক্ষ যখন দাখিল মঞ্জুরীর জন্য মাদরাসা বোর্ডে অাবেদন করে। তখন বোর্ডের সাথে ডিলকারীর জনৈক ব্যক্তির সামান্য ভূলের কারণে অাবেদন ফরমে “অাহমদিয়া সুন্নিয়া” নামটি বাদ পড়ে যায়। যিনি এই অদূরদর্শিতার পরিচয় দিয়েছেন তিনি যদি ব্যক্তিগত উদ্দ্যেশ্য হাসিলের কারণে করে থাকে তাহলে অাল্লাহ বিচার করবেন। অার যদি প্রকৃতিগত ভূলে হয়ে থাকে তাহলে অাল্লাহ ক্ষমা করুন। তারপরেও মাদরাসা কর্তৃপক্ষ সবকিছুতে পুরো নামটি ব্যবহার করে থাকেন, অালহামদুলিল্লাহ। ভবিষ্যতেও নামটি পুরোপুরি ব্যবহার করে প্রতিষ্ঠাতাদ্বয়ের ঐকান্তিক সদিচ্ছাকে মূল্যায়ন করলে অামার বিশ্বাস তাদের অাত্মার প্রশান্তি যোগাবে নিঃসন্দেহে। মাদরাসা কতৃপক্ষের কাছে প্রতিষ্ঠাতা পরিবারের পক্ষ থেকে শুধুমাত্র এই বিনীত অনুরোধটুকু থাকবে। (প্রশাসনিক নিষেধাজ্ঞা ব্যতিরেকে)

পরিশেষে, মহান অাল্লাহ তায়ালার দরবারে নবিজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে সকলের ঐকান্তিক এ প্রচেষ্টার কবুলিয়াত ও সকলের রাফে দারাজাত কামনা করে ইতি টানছি। ওয়ামা তাওফিক ইল্লাবিল্লাহ, অাসসালামু অালাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহ।

তথ্যসুত্রঃ (১) প্রতিষ্ঠাকালীন ইতিহাসের বর্ণনাকারী মাদরাসার সাবেক সুপার শ্রদ্ধেয় পিতা মরহুম মাওলানা মুহাম্মদ তৈয়ব সাহেব (রাহঃ)। (২) সাবেক ভাইচ চেয়ারম্যান জনাব জাকির হোসাইন মাষ্টার (৮৯) যিনি এই এলাকার বর্তমান সর্বোচ্চ বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তি। তার প্রিয় নাতি রিফাত এর অকাল মৃত্যূর দিন হাসপাতাল থেকে মরদেহ পৌঁছার পূর্বাক্ষনে তিনিও এভাবে প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে ঘটনার বর্ণনা দেন। (৩) অালহাজ্ব মাওলানা হাফেজ রাহমত উল্লাহ। (প্রতিষ্ঠাতা ছালামত উল্লাহ (রাহঃ)’র কনিষ্ঠ শাহজাদা)। (৫) পরবর্তীতে বর্তমান সুপার মাওলানা নুরুল হক অারমান সাহেবের শ্রদ্ধেয় পিতা অালহাজ্ব জাফর উল্লাহ সাহেবের মুখ থেকেও হুবহু একইভাবে বর্ণনা শুনেছি। (৬) তাছাড়া এলাকার বর্তমান মুরব্বি যারা মাদরাসা প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ের চাক্ষুষ সাক্ষী ছিলেন তাদের অনেকের মুখ থেকেও এভাবেই প্রতিষ্ঠাকালীন ইতিহাস বর্ননা করতে শুনেছি।


অধম এম হেলাল অাহমদ রিজভী
কামিল (মাস্টার্স) ফার্স্ট ক্লাস,
সাবেক শিক্ষার্থী
সোনারপাড়া আহমদিয়া সুন্নিয়া দাখিল মাদরাসা।
উখিয়া, কক্সবাজার।
পিতা- আলহাজ্ব মাওলানা মুহাম্মদ তৈয়ব সাহেব (রাহঃ) সাবেক সুপার, অত্র মাদরাসা।
দাদামহ- আলহাজ্ব মাওলানা ছালামত উল্লাহ (রাহঃ)
প্রধান প্রতিষ্ঠাতা, অত্র মাদরাসা।

আরো সংবাদ