বন্দরে আসা পিয়াজ যাচ্ছে সারাদেশে : বেড়েই চলেছে দাম - কক্সবাজার কন্ঠ । জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল

সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১১ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০১৯-১১-৩০ ১০:৪৫:২২

বন্দরে আসা পিয়াজ যাচ্ছে সারাদেশে : বেড়েই চলেছে দাম

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার: ভারতের বিকল্প হিসেবে মিয়ানমার ও অন্যান্য দেশে থেকে পিয়াজ আমদানি বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।গত কয়েকদিনে কক্সবাজারের টেকনাফ স্থলবন্দরে আবারও বৃদ্ধি পেয়েছে পিয়াজ আমদানি। নৌ-পথে আসা এসব পিয়াজ চট্টগ্রাম, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় সরবারহ করছেন সংশ্লিষ্টরা।
টেকনাফ স্থলবন্দর সূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার থেকে শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত এ বন্দরে পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে ১ হাজার ৩৯৫ দশমিক ৭৬২ মেট্রিক টন। এরপর ট্রাকে করে দেশের বিভিন্নস্থানে পিয়াজগুলো পাঠানো হচ্ছে। ২ দিনে টেকনাফ স্থলবন্দরে পিয়াজ আমদানি হয়েছে ১ হাজার ৩৯৫ দশমিক ৭৬২ মেট্রিক টন।

Advertisements

টেকনাফ স্থলবন্দরের ব্যবস্থাপক জসিম উদ্দিন বলেন, মিয়ানমার থেকে আমদানি করা পিয়াজের ট্রলার বন্দরে পৌঁছার সাথে সাথে খালাস করা হচ্ছে। হঠাৎ আমদানি বৃদ্ধি পাওয়ায় একটু চাপ বেড়েছে। তাছাড়া এখন যেসব পিয়াজ আসছে তা বড় আকৃতির। ভারতীয় পিয়াজের মতো।
এছাড়াও স্থলবন্দরের ৮ জন ব্যবসায়ী ৫৪৮ মেট্রিক টন বড় পিয়াজ আমদানি করেছেন। তারা এ পিয়াজ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানোর কথা বলছেন। গত দু’দিনে ৫০টি ট্রাকে সরবরাহ করা হয়েছে ১ হাজার মেট্রিক টনের বেশি পিয়াজ। আরও প্রায় ৮০০ মেট্রিক টন পিয়াজ খালাসের অপেক্ষায় রয়েছে।
টেকনাফ স্থলবন্দরের শুল্ক কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবছার উদ্দিন বলেন, আগের থেকে পিয়াজ আমদানি আবারও বেড়েছে। ২ দিনে এক হাজার ৩৯৫ দশমিক ৭৬২ মেট্রিক টন পিয়াজ স্থলবন্দরে আসে। এসব পিয়াজ দ্রুত খালাস করা হচ্ছে। ব্যবসায়ীদের উৎসাহিত করা হচ্ছে। যাতে তারা পিয়াজ আমদানি বৃদ্ধি করে।

পিয়াজ আমদানিকারক হাশেম আলী জানান, দেশে পিয়াজের সংকট মোকাবিলায় মিয়ানমার থেকে পিয়াজ আমদানি করা হচ্ছে। বাজারের চাহিদা মেটানোর জন্য পিয়াজ আমদানি অব্যাহত রেখেছেন। আমদানি করা পিয়াজগুলো দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানো হচ্ছে। কয়েকদিনের মধ্যে পিয়াজের দাম বেশ কমবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন এই ব্যবসায়ী।
হঠাৎ করে আমদানির পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় কর্মচঞ্চল হয়ে উঠেছে টেকনাফ স্থলবন্দর। তবে পিয়াজ সারাদেশে দ্রুত পরিবহনের ক্ষেত্রে বন্দরে অবকাঠামোগত সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো এবং পুলিশি হয়রানি বন্ধের জন্য দাবি জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।
Advertisements

উল্লেখ্য, যতই দিন যাচ্ছে, ততই বাড়ছে পিয়াজের দাম। দেশি ও আমদানি করা এই ২ ধরনের পিয়াজের দাম বেড়েই চলেছে। এক সপ্তাহের ব্যবধানে দেশি পিয়াজের কেজিতে বেড়েছে ৩০ থেকে ৫০ টাকা। আর আমদানি করা পিয়াজের দাম বেড়েছে কেজি প্রতি ৩০ টাকা। ৩০ নভেম্বর সকালে কক্সবাজার শহরের বড়বাজার ঘুরে এই দৃশ্য দেখা গেছে। এতে প্রতি কেজি দেশি পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৬০ থেকে ২৭০ টাকায়। এদিকে নিত্য প্রয়োজনীয় এ পণ্যটির দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাওয়ায় অনেকেই পিয়াজ বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছেন।

আরো সংবাদ