স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

প্রকাশ :  ২০২১-০১-১৮ ১১:৪১:০৫

স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি

স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি

সুষ্ট আর নিরপেক্ষ করার দাবী নিয়ে- কক্সবাজারে স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি-বিস্তারিত প্রতিবেদনে………………

নিজস্ব প্রতিবেদক :  আসন্ন স্থানীয় নির্বাচনকে ঘিরে ফের চাঙ্গা হয়ে উঠেছে কক্সবাজার জেলা বিএনপির কার্যক্রম। যদিও সম্ভাব্য প্রার্থীরা দলীয় কোনো সিদ্ধান্ত না পেলেও নির্বাচনের মাঠে প্রস্তুতি নিয়ে কাজ শুরু করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। দলের পক্ষ থেকে জেলার বেশির ভাগ ইউনিয়ন ও পৌরসভায় প্রার্থী দেয়ার প্রস্তুুতি নেয়া হচ্ছে। তবে নির্বাচন সুষ্ট না হওয়ার আশংকা অনেক প্রার্থী নির্বাচন করতে আগ্রহী নয় বলে জানা গেছে। তবুও দলীয়কর্মী এবং ভোটারদের মনোবল চাঙ্গা রাখতে নির্বাচনে অংশ নিতে আগ্রহী বলে জানান জেলা বিএনপির শীর্ষ নেতারা। তারা একই সাথে সরকারের স্থানীয় নির্বাচনগুলো সুষ্ট এবং নিরপেক্ষ করার দাবী জানিয়েছে।
জানাগেছে, আগামী ফেব্রুয়ারী মাসের প্রথম সপ্তাহে সারা দেশে ইউনিয়ন পরিষদ এবং পৌরসভার নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করার কথা জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন। সে হিসাবে কক্সবাজারের ৭১টি ইউনিয়নের মধ্যে অন্তত ১৫টি ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্টিত হবে আগামী মার্চের দিকে। ইতোমধ্যে কক্সবাজার জেলা প্রত্যান্ত অঞ্চলে নির্বাচনী আমেজ পুরোদমে শুরু হয়েছে।
তবে আওয়ামীলীগের প্রার্থীদের বেশি দৌঁড়ঝাপ দেখা গেলেও এখনও নীরব ভুমিকায় আছে বিএনপির প্রার্থীরা। এর মধ্যে কিছু ইউনিয়নে বিএনপি থেকে প্রার্থী হওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করে অনেকে গণসংযোগ শুরু করেছে। তবে জেলায় বেশির ভাগ ইউনিয়নে বিএনপির পক্ষে কোনো প্রার্থীকেই মাঠে দেখা যাচ্ছে না।
এ ব্যাপারে পিএমখালী ইউনিয়ন পরিষদের বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী ছৈয়দ নুর বলেন, আমি গত নির্বাচনেও বিএনপির ধানের শীর্ষ মার্কা নিয়ে নির্বাচন করেছিলাম। তখনও বহুমুখি ষড়যন্ত্রের কারনে সামান্য ভোটের হেরেছি। আমি বিশ^াস করি সাধারণ মানুষ ভোট দিতে পারলে পিএমখালীতে ধানের শীর্ষের প্রার্থীর বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না। তবে ইতোমধ্যে বিএনপির কর্মী সমর্থকদের হুমকি ধমকি শুরু হয়ে গেছে, জানিনা ভবিষ্যতে কি হয়।
মহেশখালী উপজেলার ধলঘাটা ইউপি নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী সরওয়ার আলম বলেন, ইতোমধ্যে আমি ধানের শীষের প্রার্থী হিসেবে প্রচারনা শুরু করেছি। তবে শুরুতেই আমাদের দলের পক্ষে কাজ করতে পারে এমন মানুষজনকে নানাভাবে হুমকি ধমকি দেয়া শুরু হয়ে গেছে। অনেককে মিথ্যা মামলা দিয়ে এলাকাছাড়া করার হুমকি আসছে। সর্বোপরি ভোটকেন্দ্রে আদৌ মানুষ যেতে পারবে কিনা সেটা নিয়ে চিন্তাই আছি। তিনি আরও বলেন, যদি সুষ্ট নির্বাচন হয় তাহলে ধানের শীষের প্রার্থীর বিজয় হবে ইনশাআল্লাহ।
এদিকে কক্সবাজার সদর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন জিকু বলেন, গত কয়েকটি নির্বাচন দেখে সাধারণ মানুষ এখন ভোট কেন্দ্রে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে। সাধারণ মানুষের চাপে সারা দেশে বিএনপি নির্বাচনে যেতে আগ্রহী। সে বিষয়ে এখনও কেন্দ্রীয়ভাবে কোনো সিদ্ধান্ত আসেনি। তবে পরিবেশ ভালো থাকলে আমরা নির্বাচনে যাওয়ার জন্য আগ্রহী।
এ ব্যাপারে কক্সবাজার জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শামীম আরা শপ্না বলেন, আমি ব্যাক্তিগতভাবে নির্বাচনে যেতে আগ্রহী না। কারন গেল কয়েকটি নির্বাচন দেখে যে অভিজ্ঞতা হয়েছে তা কোনো নির্বাচন বা মানুষের মতামত প্রকাশের মাধ্যম হতে পারে না। সে জন্য মানুষ এখন আর ভোট কেন্দ্রে আসে না। তিনি আরও বলেন, এখনও কেন্দ্র থেকে কোনো নির্দেশনা আসেনি। কিভাবে প্রার্থী বাছাই করবো বা কাদের বাছাই করা হবে। তাই কেন্দ্র থেকে নির্দেশনা পেলে সে অনুযায়ী কাজ করবো।
এদিকে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির মৎসজীবী বিষয়ক সম্পাদক সাবেক সংসদ লুৎফুর রহমান কাজল বলেন, এখনও কেন্দ্রীয় কোনো নির্দেশনা আসেনি। যেহেতু দেশের বিভিন্ন স্থানে বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে সেই হিসেবে আমরা আসন্ন ইউপি নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়ে রাখছি। আমি ব্যাক্তিগতভাবে আশা করি যেহেতু স্থানীয় নির্বাচন সরকার পরিবর্তন হবে না তাই স্থানীয় নির্বাচনগুলো সরকারের উচিত সুষ্ট এবং নিরপেক্ষ করা। আমরা সেই আশাতেই নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়ে রাখছি।

এ বিষয়ে কক্সবাজার জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক চিফ হুইপ আলহাজ্ব শাহজাহান চৌধুরী কক্সবাজার কন্ঠকে জানান, এখনও কেন্দ্রীয় কোনো নির্দেশনা আসেনি। চলমান নির্বাচনে দেশের বিভিন্ন স্থানে বিএনপি অংশ নিচ্ছে সেই অনুযায়ী কক্সবাজারেও আসন্ন ৭১টি ইউপি ও ৪টি পৌরসভায় নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করা হচ্ছে।

আরো সংবাদ