স্বাস্থ্য বিধি মেনে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরছে সমুদ্র সৈকতে - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৮-১৭ ১৯:৩৫:২৬

স্বাস্থ্য বিধি মেনে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরছে সমুদ্র সৈকতে

কালের কন্ঠ : করোনাকালের দীর্ঘ প্রায় পাঁচ মাস বন্ধ থাকার পর সোমবার প্রতিকূল আবহাওয়ার মাঝেই সীমিত আকারে কক্সবাজারের হোটেল, মোটেল, কটেজ, রেস্টুরেন্টসহ পর্যটন শিল্প খুলে দেয়া হয়েছে। তাও খুলে দেওয়া হয়েছে শুধুমাত্র কক্সবাজার পৌর এলাকার পর্যটন শিল্প সম্পৃক্ত প্রতিষ্ঠানসমূহ। বৈরি আবহাওয়া সত্বেও সাগর পাড়ে জমায়েতসহ ভ্রমণে সাময়িক নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ায় সোমবার সকাল থেকেই সৈকতে ফিরে আসতে শুরু করেছে প্রাণচাঞ্চল্য। আগের মতোই লোকজন দৌঁড়াচ্ছেন বালুচরে। পর্যটকরা সাগরের ঢেউয়ে পা ভিজাচ্ছেন। তবে পর্যটন শিল্প খোলার ব্যাপারে স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে প্রতিপালন করে শারীরিক ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার ব্যাপারে জেলা প্রশাসন বেশ কিছু শর্ত আরোপ করে দিয়েছে। এমনকি সৈকতে মাস্ক পরিধান থেকে শুরু করে বালুচরের পর্যটন ছাতার দুরত্ব, হোটেল-রেষ্টুরেন্টের টেবিল-চেয়ারের দুরত্ব অবশ্যই তিন ফুটের বেশি রাখারও নির্দেশনা বাধ্যতামূলক বলে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। সাগর পাড়ের বীচ মার্কেট, সৈকতের কিটকট, বীচ বাইক ও জেটস্কী, প্যারাসেইলিংসহ সব কিছুতেই দূরত্ব বজায় রাখার বিষয়টিকে গুরুত্ব দিতে হবে। কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন এ বিষয়ে বলেছেন-‘পর্যটন শিল্প খুলতে দীর্ঘদিন ধরেই আমরা তাগিদ অনুভব করছি। কেননা এ শিল্পে হাজার হাজার লোক এখন নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিকে আমরা সবচেয়ে গুরুত্ব দিয়ে এতদিন বন্ধ রাখতে বাধ্য হয়েছিলাম।’ তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে কেবলমাত্র কক্সবাজার শহরের পর্যটন স্পটটিকেই খুলে দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ কেবলমাত্র সৈকত এবং শহরের হোটেল-মোটেল ও পর্যটন মার্কেট খুলে দেওয়া হলো। এ জন্য কঠোর শর্ত আরোপ করা হয়েছে বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, মহামারিকে খাট করে দেখার কোনো সুযোগ নেই। এজন্যই মেনে চলতে হবে, এ বিষয়ে প্রণীত কর্মপন্থার সকল নিয়ম-কানুন ও শর্তাবলী। মানতে হবে-জাতীয় স্বাস্থ্যবিধির গাইডলাইনও। এদিকে গত ক’দিন ধরে প্রতিকুল আবহাওয়া বিরাজ করছে কক্সবাজারের বিস্তীর্ণ উপকূল জুড়ে। গত ক’দিনের ভারি বর্ষণও অব্যাহত রয়েছে। তা সত্বেও ইতিমধ্যে অনেক হোটেল-মোটেলে পর্যটকরা বেড়াতে আসার জন্য রুম বুকিং দিতে শুরু করেছে। যেহেতু ১৭ আগস্ট হোটেল-মোটেলসহ পর্যটন শিল্প খোলার বিষয়টি অনেক আগে থেকেই প্রচার করা হচ্ছিল এ কারণে দেশের নানা প্রান্তের ভ্রমণবিলাসী লোকজন কক্সবাজারে বেড়াতে আসতে উদগ্রীব হয়ে পড়েছিল।
কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের পর্যটন সেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইমরান জাহিদ খান জানান, দীর্ঘদিন পর পর্যটন শিল্প খুলে দেওয়া উপলক্ষে পর্যটন ব্যবসায়ী ও পর্যটকদের জন্য বেশ কিছু বিধি নিষেধ পালন করতে বলা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত এসব নিয়ম-কানুনের ব্যাপারে সচেতনতা সৃষ্টির একটি কর্মসূচিও নেওয়া হয়েছিল গতকাল সোমবার বিকালে। কিন্তু বৈরি আবহাওয়া কারণে কর্মসূচিটিও পরিবর্তন করতে হয়েছে। লাইট হাউজ এলাকার নিসর্গ কটেজের ম্যানেজার মোহাম্মদ সোহেল এ প্রসঙ্গে জানান, এমন বৈরি আবহাওয়ার মাঝেও রবিবার দিবাগত রাতেই প্রচুরসংখ্যক লোকজন কক্সবাজার শহরের বিভিন্ন হোটেল-মোটেলে উঠেছেন।
অপরদিকে সোমবার থেকে কক্সবাজারের পর্যটন শিল্প সীমিত আকারে খুলে দেওয়ায় কক্সবাজারের হোটেল, মোটেল, কটেজ, রেস্টুরেন্ট, ক্ষুদে ব্যবসায়ী, কিটকট ব্যবসায়ী, ভাসমান ব্যবসায়ীসহ সংশ্লিষ্ট সকলে পর্যটকদের বরণ করতে প্রায় সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন। সকলের হাঁক-ডাকে সরব হয়ে উঠেছে সৈকত তীরের হোটেল মোটেল জোন এলাকা। ফিরে এসেছে কর্মচাঞ্চল্য। নিয়েছেন, স্বাস্থ্যবিধির আলোকে বিভিন্ন ব্যবস্থা। ফিরে এসেছে, কক্সবাজারের কোলাহলময় ঐতিহ্যবাহী পর্যটন শিল্পের আসল রূপ।
কক্সবাজার জেলা টুরিস্ট পুলিশের পুলিশ সুপার জিল্লুর রহমান জানান, পর্যটক এবং পর্যটন শিল্পের সার্বিক নিরাপত্তায় বেশ প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। কক্সবাজার বীচ ম্যানেজমেন্ট কমিটি, রেসকিউ টিমগুলোসহ সংশ্লিষ্ট সকলে তাদের প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট বিভাগসমূহ নিশ্চিত করেছেন। প্রসঙ্গত, গত ৫ আগস্ট কক্সবাজার জেলা করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটির জুম কনফারেন্স সভায় নেওয়া সিদ্ধান্তের আলোকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন পর্যটন শিল্প খুলে দেওয়ার জন্য এই ব্যবস্থা নিয়েছে।

আরো সংবাদ