হোটেল মোটেল জোনে চলছে মাদকের রমরমা বাণিজ্য - Coxsbazarkontho.com | Newspaper

মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মঙ্গলবার

প্রকাশ :  ২০১৯-১১-০৭ ১২:২৯:৪৫

হোটেল মোটেল জোনে চলছে মাদকের রমরমা বাণিজ্য

কক্সবাজার: পর্যটন রাজধানী কক্সবাজার শহরের কলাতলী হোটেল-মোটেল জোনের কটেজগুলো ঘিরে চলছে ইয়াবা, ফেনসিডিলসহ নানা মাদকের রমরমা বাণিজ্য। সাথে চলছে স্বঘোষিত পতিতা ব্যবসা। আর এসব ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করছেন স্থানীয় নারী কাউন্সিলরসহ ৫ জন। এ ৫ জন নেতৃত্ব দিলেও ভেতরে রয়েছে আরও অন্তত অর্ধ-শতাধিক রাঘব বোয়াল। ইয়াবা বিক্রির এরকম চিত্র হরহামেশাই দেখা যায় জানিয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হোটেল মোটেল জোনের এক ব্যবসায়ী বলেন, কক্সবাজার হোটেল মোটেল জোনের ১০টির বেশি স্পটে খালি রিকশা সারিবদ্ধ হয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। এসব রিকশা চালকরা মূলত খুচরা ইয়াবা বিক্রেতা। ওই ব্যবসায়ীর দেয়া তথ্য মতে, কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, তাহের ভবন সংলগ্ন এলাকা, সুগন্ধার মোড়, সী প্যালেস সংলগ্ন, সী ইন পয়েন্ট, সী গাল সংলগ্ন এলাকাসহ বেশ কয়েকটি জায়গায় দেখা যায় এসব খালি রিকশা দাঁড় করিয়ে রাখার দৃশ্য। সম্প্রতি এরকমই এক রিকশা চালকের সঙ্গে আলাপ হয়েছে এ প্রতিবেদকের সাথে। ৩৫-৪০ বছর বয়সের এ রিকশাচালক নিজেকে বধু বলে পরিচয় দেন। সী ইন পয়েন্ট থেকে রিকশায় উঠে কিছু দূর যেতে না যেতেই নিজ থেকে কথা শুরু করেন। 
Advertisements
তিনি প্রতিবেদকের কাছে জানতে চান ‘কিছু লাগবে কি না?’ প্রতিবেদক কি কি রয়েছে জানতে চাইলে ওই চালক বলেন, ‘ভাই, চম্পা, গোলাপী, আর-সেভেন সব আছে’। দাম জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘চম্পা ২০০ টাকা, গোলাপী ৩৫০ টাকা এবং ৫০০ টাকায় মিলবে আর সেভেন। এছাড়াও অভিযোগ আছে, সাইনবোর্ডধারী হোটেলের আড়ালে চলে মাদক বাণিজ্য। ‘ওপেন সিক্রেট’ চলছে ইয়াবা ও পতিতার হাট।
Advertisements
সকাল-সন্ধ্যা কটেজ জোনের বিভিন্ন সড়কে বিচরণ অপরাধীদের। বিশেষ টোকেনের মাধ্যমে কটেজে প্রবেশ করে এসব অপরাধ কর্মকান্ড চলছে দীর্ঘদিন ধরে। পতিতা-খদ্দের খোঁজে ব্যবহার করা হচ্ছে শিশু-কিশোরদেরও। কমিশন ভিত্তিতে পতিতা ও মাদকদ্রব্য সরবরাহ করে কিছু রিক্সা ও সিএনজি চালক। অতিরিক্ত টাকার লোভে এসব চালকও এ কাজে লিপ্ত রয়েছে। মাসিক চুক্তিতে ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে এসব অবৈধ ব্যবসা অনেকটা নির্বিঘেœ ও ঝামেলা মুক্ত! কেবল টাকা দেয়ার হেরফের হলেই চলে মাঝে মধ্যে আয়েশী অভিযান। সব মিলিয়ে পুলিশী সহযোগিতায় পর্যটন নগরীর কটেজ জোন অপরাধ ও অপরাধীদের নিরাপদ আস্তানায় পরিণত হয়েছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। তবে, কক্সবাজার সদর মডেল থানায় নতুন যোগদানকৃত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নেতৃত্বে সম্প্রতি অভিযান চালিয়ে শতাধিক নারীকে আটক করা হয়। এছাড়াও ডিবি পুলিশের অভিযানেও আটক হয় শতাধিক। এসব অভিযান নাম সর্বস্ব বলে দাবি স্থানীয়দের। পুলিশসহ রাজনৈতিক নেতাদের ম্যানেজ ও পতিতা, মাদক ব্যবসার জন্য গড়ে উঠেছে একটি সিন্ডিকেট। এদের প্রত্যেকের রয়েছে দুই থেকে তিনটি করে কটেজ। এসব কটেজে চলে মাদক ও পতিতাবৃত্তি। আর এসব রিসোর্ট থেকে রাজনৈতিক নেতা ও পুলিশের বিভিন্ন দফতরের জন্য মাসিক চাঁদা তোলেন আব্দুল মান্নান ওরফে ইয়াবা মান্নান। এ মান্নানের বিরুদ্ধে রয়েছে তিনটি মানব পাচার মামলা। শুধুই রাজনৈতিক ও স্থানীয় নেতাদের ছত্রছায়ায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছে এই মান্নান। এব্যাপারে জানতে চাইলে সী টাওয়ারের মালিক সিরাজুল ইসলাম বলেন, ব্যবসা এখন তেমন নেই। আগে ছিল। এখন পুলিশের সঙ্গে ঝামেলা চলছে। তাই তারা সমস্যা করছে। ওদের সঙ্গে চুক্তি হয়ে নেক। আপনার সাথেও যোগাযোগ করবো। তবে একাধিকবার চেষ্টা করা হলেও আব্দুল মান্নানে মুঠোফোনে সংযোগ পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে জানতে কক্সবাজার সদর থানার ওসি শাহজাহান কবিরের সঙ্গেও যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

আরো সংবাদ

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার
নভেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০