১৫ হোটেল গুঁড়িয়ে দেয়ার নির্দেশে চিন্তিত মালিকরা - Coxsbazarkontho.com

শনিবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২০ ১১ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০১৯-১২-২৬ ১২:৪৬:৪০

১৫ হোটেল গুঁড়িয়ে দেয়ার নির্দেশে চিন্তিত মালিকরা

কক্সবাজার: সমুদ্র সৈকতের লাবণী থেকে কলাতলী পয়েন্ট পর্যন্ত দীর্ঘ দেড় কিলোমিটারের সব স্থাপনা গুঁড়িয়ে দিতে আদেশ দিয়েছেন সর্বোচ্চ আদালত। এর ফলে সীগ্যাল, সায়মনসহ ৫টি পাঁচ তারকা ও ১০টি ৪ তারকা মানের হোটেল ভেঙে ফেলতে হবে।

আদালতের এই রায়কে স্বাগত জানিয়ে, দ্রুত এটা কার্যকর করার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়সহ পরিবেশবাদীরা। এ রায় মাইফলক, যে কোন মূল্যে সৈকতের পরিবেশ রক্ষা করতে হবে বলে জানিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল। প্রশাসন বলছে; রায়ের কপি পাওয়ার পর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Advertisements

বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘ সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার। যার সৌন্দর্যে মুগ্ধ দেশি-বিদেশি পর্যটক। এই সমুদ্র সৈকতের ঝিলংজা মৌজায় গড়ে উঠেছে ৩৫টি তিন, চার ও পাঁচ তারকা মানের হোটেল। যার মধ্যে রয়েছে হোটেল অভিসার, সী-ওয়ার্ল্ড, সীগ্যাল, সাইমন, কক্স-টুডে, প্রসাদ প্যারাডাইস, ওশান প্যারাডাইস, সী-প্রিন্সেসসহ আরও শতাধিক হোটেল মোটেল।

১৯৯৯ সালে কক্সবাজারের লাবনী পয়েন্ট থেকে কলাতলী পর্যন্ত এলাকাকে প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন হিসেবে ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশ করে সরকার। কিন্তু সেই গেজেটকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ওই এলাকায় গড়ে তোলা হয় একের পর এক স্থাপনা। এই নিয়ে ৫টি রিটের চূড়ান্ত রিভিউয়ের রায়ে ১৯৯৯ সালের পর নেয়া হোটেল সাইমন, সীগ্যালসহ বড় বড় বেশ কিছু হোটেলের লিজ বাতিল করেছেন আপিল বিভাগ। রায়ে গুঁড়িয়ে দিতে বলা হয়েছে এসব স্থাপনা।

তবে এ ব্যাপারে কথা বলতে রাজি হননি হোটেল মালিকরা। রায়ের পর চিন্তিত সৈকতের এসব এলাকার ব্যবসায়ীরা।

একজন বলেন, আমাদের জন্য পুর্নবাসন করতে হবে। তা না হলে আমরা পথে বসে যাবো। আমাদের তো পরিববার আছে, তারা তো আমাদের এই ব্যবসার উপর নির্ভরশীল।

আরেকজন বলেন, এর ফলে আমরা ব্যবসায়ীরা অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হবো।

সর্বোচ্চ আদালতের রায়কে স্বাগত জানিয়েছের স্থানীয় ও পরিবেশবাদীরা। তারা বলছেন, আদালতের এই রায় যাতে দ্রুত কার্যকর করা হয়।

বন ও পরিবেশ সংরক্ষণ পরিষদ সভাপতি দীপক শর্মা দীপু বলেন, আমাদের সব সময় দাবি ছিল, এবং আমরা আন্দোলনও করেছি এসমব স্থাপনা উচ্ছেদ করার জন্য। আদালতের এই রায়ে আমরা অত্যন্ত খুশি হয়েছি। একই সঙ্গে এই রায় দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য আমরা দাবি জানাচ্ছি।

আদালতের রায়ের কপি পাওয়ার পর পরিকল্পনা করে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানালেন জেলা প্রশাসনের এই কর্মকর্তা।

কক্সবাজার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. আশরাফুল আফসার বলেন, আমরা এখনও রায়ের কপি হাতে পাইনি। হাতের পাওয়ার পর কিভাবে কাজ শুরু করা যায়, সেই পরিকল্পনার মাধ্যম কাজ শুরু করবো।

আর অ্যাটর্নি জেনারেল বলছেন, এ রায় একটি মাইলফলক, অবশ্যই তা বাস্তবায়ন করা হবে।

Advertisements

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন,  এই রায়টি আমাদের একটি গাইড লাইন দিচ্ছে। কারণ ভবিষ্যতে এই গাইড লাইন কেউ না মেনে স্থাপনা করলে, তার বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার পদক্ষেপ নেয়া যাবে।

সমুদ্র সৈকতের ছয়টি পয়েন্ট থাকলেও তার মধ্যে লাবণী, সুগন্ধা ও কলাতলী পয়েন্টে দোকান ও রেস্তোরা রয়েছে এক হাজারের বেশি।

আরো সংবাদ