২৫ বছর ধরে একই অফিসে আব্দুর রাজ্জাক, আছে নানা কাহিনী - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২০-০৯-০৬ ১৬:০৫:২৯

২৫ বছর ধরে একই অফিসে আব্দুর রাজ্জাক, আছে নানা কাহিনী

জনকণ্ঠ : কক্সবাজার সদর উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর অফিসের নিরাপত্তা প্রহরী আবদুর রাজ্জাক। কোন সময় তিনি নিজের অফিসে দায়িত্ব পালন করেন। আবার জেলা জনস্বাস্থ্য অফিসে রেস্টহাউজের নিরাপত্তাপ্রহরী বা কেয়ারটেকার হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন। সরকারি চাকরী নীতিমালা অনুযায়ী এক কর্মস্থলে ৩ বছরের অধিক সময় কর্মরত থাকতে না পারলেও এই কর্মচারী কক্সবাজারে আছেন দীর্ঘ ২৫ বছর ধরে।
শুধু তাই নয়, তার মেয়ে জেসমিন আক্তার মটর মেকানিক হিসেবে চাকরী নিয়েছেন একই অফিসে। তিনিও ১০ বছর ধরে একই জায়গায় চেয়ার আঁকড়ে ধরে রয়েছেন। বদলীর নির্দেশ আসলেও উর্ধতন কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে বহাল রয়ে যান একই জায়গায়। এছাড়া আবদুর রাজ্জাকের আপন ভাই মো: ফারুকও এখন সরকারি চাকরী করছেন একই অফিসের নিরাপত্তা প্রহরী হিসেবে।
এই পুরো পরিবার এক সঙ্গে দীর্ঘ ২০ বছর ধরে দখলে রেখেছে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অফিসের সরকারি দ্বিতলবাড়ি। সেখানে তারা আরও কিছু সংস্কার করে বরিশাল থেকে আত্বীয় স্বজনসহ সবাইকে এনে দীর্ঘ বছর ধরে থাকলেও এক টাকাও ভাড়া জমা করেনি সরকারি কোষাগারে। উল্টো সেই কেয়ারটেকার আবদুর রাজ্জাক সরকারি রেস্ট হাউজ ভাড়া দিয়ে ব্যবসা করে চলছে।

সূত্রে জানা গেছে, জেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অফিসের নতুন এবং পুরাতন রেস্ট হাউজের রুম ভাড়া দিয়ে পর্যটকদের কাছ থেকে দৈনিক আয় করে বিপুল টাকা। বিভিন্ন আবাসিক হোটেলের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে পর্যটকদের কাছে উচ্চমূল্যে ভাড়া দেয়া হয় সরকারি রেস্ট হাউজটি। আর কর্মকর্তাদের কাছে বলে বিভিন্ন উর্ধতন কর্মকর্তাদের মেহমান। সরকারি অফিসের এই রেস্ট হাউজে বর্তমানে ৯টি রুম আছে। তার মধ্যে ৪টি ভিআইপি রুম,২ টি এসি, ননএসি রুম ৩টি, যদিও এসি বিহীন ৩টি রুম বর্তমানে জেলা জনস্বাস্থ্য অফিসের কর্মকর্তারা বিনাভাড়ায় দখলে আছেন। জনস্বাস্থ্য অধিদফতরের অন্য কর্মচারীদের দাবী আবদুর রাজ্জাক সরকারী সম্পদ ভাড়া দিয়ে বিপুল টাকা আয় করে চললেও তবে তা দেখার যেন কেউ নেই। এ ব্যপারে আবদুর রাজ্জাকের কাছে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে কোন প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে ফোন কেটে দেন।
জেলা জনস্বাস্থ্য নির্বাহী প্রকৌশলী ঋত্বিক চৌধুরী জানান, এসব অভিযোগ তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরো সংবাদ