২৭ রমজানে কেন কদর তালাশ করি করণীয় কি? - কক্সবাজার কন্ঠ । কক্সবাজারের মুখপত্র

শনিবার, ৬ জুন ২০২০ ২৩শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২০-০৫-১৯ ১৬:০০:২৩

২৭ রমজানে কেন কদর তালাশ করি করণীয় কি?

জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল “কক্সবাজার কন্ঠ” এর সৌজন্যে মাহে রমজানের ধারাবাহিক “রমজান কন্ঠ” কলাম থেকে:-

ধারাবাহিক পর্ব-25

🔷লাইলাতুল কদর নির্ধারণঃ
হযরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত আছে, নবী করীম [ﷺ] ইরশাদ করেন, তোমরা রমজানের শেষ দশ রাতের বেজোড় রাতগুলোর মধ্যে লায়লাতুল কদর তালাশ কর। (সহীহ বুখারী)

শবে কদর কোন রাত্রে হবে, তা কুরআন-হাদীসে স্পষ্ট বর্ণিত হয়নি। তবে এটুকু বুঝা যায়, রমজান মাসের শেষ দশ দিনের বেজোড় রাত গুলোর মধ্যে কোনো একটি, অর্থাৎ, ২১,২৩,২৫,২৭,২৯শে রমজানের যে কোন একটি রাত কদর বা হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ রাত সংগঠিত হয়।

এ রাতকে সুস্পষ্ট করে চিহিৃত না করার তাৎপর্য এই যে, রমজানের শেষ দশ দিনে যাতে করে শবে কদর প্রাপ্তির আশায় নামাজ, জিকির-আজকার, দোয়া-দরুদ ও ইবাদাত-বন্দেগীর বেশী করে আদায় করা যায়। মহান আল্লাহ এ রাতকে গোপন করে আমাদের উপর রহম করেছেন। তিনি দেখতে চান, এর বরকত ও ফজিলত লাভের জন্য কে কত প্রচেষ্টা চালাতে পারে।

🔷কদরের রাত কিভাবে চিনবঃ
উলামায়ে কেরাম কুরআন-হাদীস থেকে শবে কদর চেনার কিছু আলামত বর্ণনা করেছেন।

১. কদরের রাতান্তে যখল সকাল হবে, সেদিনকার সূর্যোদয় হবে সাদা হয়ে কিরণহীয় অবস্থায়। (সহীহ মুসলিম) অবশ্যই এ আলামতটিও কদরের রাত অতিক্রান্ত হওয়ার পর সকালবেলায় জানা যাবে।

২. সত্য স্বপ্নের মাধ্যমেও শবে কদর কবে, তার জ্ঞান লাভ করা যেতে পারে। যেমন রাসূল [ﷺ] এর বেলায়ও এমনটি হয়েছিলো, রাসুল [ﷺ] ‘কে স্বপ্নের মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিলো, শবে কদর কোন রাত্রে হবে। (বুখারী ও মুসলিম)

অধিকতর সম্ভাবনার দিক দিয়ে প্রথম হল ২৭ তারিখ, এরপর ২৫ তারিখ, এরপর ২৯ তারিখ, এরপর ২১ তারিখ, এরপর ২৩ তারিখ।

🔷২৭শে রমজানে কেন পালিত হয়ঃ
এ সম্পর্কে হজরত ইমাম আজম আবু হানীফা (রহ.) এর মতে, পবিত্র কুরআনে কদরের রাতের ফজীলত সম্পর্কে যে সূরা কদর নাজিল হয়েছে, তাতে লায়লাতুল কদর শব্দটি ৩বার এসেছে, আর তাতে ৯টি অক্ষর আছে। সে হিসেবে {৩×৯=২৭} তাই ২৭শে রমজান আমরা শবে কদর পালন করি।

🔷শবে কদরে আমাদের করণীয়ঃ
এ রাতে বেশী-বেশী দোআ করা। হাদীস শরীফে আছে, হযরত আয়েশা (রা.) নবী করীম [ﷺ] ‘কে জিজ্ঞেস করলেন. শবে কদরে আমি কী দোআ করতে পারি? রাসূল [ﷺ] বললেন, তুমি এই দোআ পড়বে. আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আফুয়ুন, তুহিব্বুল আফওয়া, ফা’অফু আন্নি, ইয়া গাফুরু, ইয়া গাফুরু, ইয়া গাফুর।
অর্থ, হে আল্লাহ! নিশ্চয় আপনি ক্ষমাশীল, ক্ষমাকে ভালবাসেন, অতএব, আমাকে ক্ষমা করুন, হে ক্ষমাশীল, হে ক্ষমাশীল, হে ক্ষমাশীল। (তিরমিজী শরীফ)
২. বেশী-বেশী কুরআন তেলাওয়াত করা। ৩. তাহলীল (লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মদুর রাসূলূল্লাহ ) বেশী-বেশী করে পড়া। ৪. তাসবীহ (সুবহানাল্লাহি ওয়াবিহামদিহি সুবহানাল্লাহিল আজীম ) বেশী বেশী পড়া । ৫. দরুদ শরীফ পড়া। ৬. নফল নামাজ বেশী-বেশী আদায় করা। যথা তাহাজ্জুদের নামাজ, সলাতুত তাসবীহ, সলাতুল হাজত।
এ রজনীতে আল্লাহ প্রেমিক বান্দাগণ নিজেদের অতীত অপরাধসমূহের জন্য অনুতাপ ও আত্মসমালোচনার মাধ্যমে আল্লাহ তাআলার সন্তুষ্টি অর্জনের প্রচেষ্টা করে থাকেন।

মহান রাব্বুল আলামীন আমাদেরকে এই অতুলনীয়, মর্যাদাময় রজনীর ফায়দা লাভের মাধ্যমে নিজেদের অতীত জীবনের ভুল-ক্রুটি মাফ ও নেকীর ভান্ডারকে সমৃদ্ধ করার তাওফিক দান করুন আমিন, বেহুরমতি সৈয়্যদিল মুরসালিন।


মাওলানা হেলাল আহমদ রিজভী
কামিল (মাস্টার্স) ফার্স্ট ক্লাস,
মাওলানা ভিলা, সোনারপাড়া, উখিয়া, কক্সবাজার।
মুঠো ফোনঃ- ০১৮২৪৮৭৮৭২১
ই-মেইল- helalrezvi87@gmail.com

আরো সংবাদ