রিজভীর অভিযোগ মন্ত্রীদের নির্দেশেই গণপরিবহন বন্ধ

নিউজ ডেস্ক: সরকারের মন্ত্রীদের নির্দেশেই দেশের গণপরিবহন বন্ধ রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ।

আজ শুক্রবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন রিজভী।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘কোমলমতি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের যৌক্তিক দাবিগুলোকে অগ্রাহ্য করার জন্যই মন্ত্রীদের নির্দেশেই গণপরিবহন বন্ধ রাখা হয়েছে। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাহেব বলেছেন, “নিরাপত্তার জন্য পরিবহন মালিকরা বাস রাস্তায় নামাচ্ছে না।” আপনারা গতকাল দেখেছেন, কোমলমতি শিক্ষার্থীরা গাড়ি চলতে বাধার সৃষ্টি করেনি, বরং তারা সুশৃঙ্খলভাবে গাড়ি চলতে সহায়তা করেছে। তারা গাড়ি ও গাড়িচালকদের লাইসেন্স আছে কি না-সেটি চেক করেছে।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আমরা কী দেখতে পেলাম, মন্ত্রীর গাড়ির চালকের লাইসেন্স নেই, এমপির গাড়ির কাগজপত্র নেই, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের গাড়ির কাগজপত্র নেই, গাড়ির চালকেরও লাইসেন্স নেই। এসব খবর আবার দেশি-বিদেশি গণমাধ্যমে ফলাও করে প্রচার হয়েছে। এটা জাতির জন্য কতবড় লজ্জার, তাতে অবৈধ সরকারের টনক নড়েনি।’রিজভী বলেন, ‘সরকার শুধু পরিবহণ সেক্টরেই ব্যর্থ নয়, দেশের সকল সেক্টরে এ অবৈধ ভোটারবিহীন সরকার ব্যর্থ। তাই সর্বাগ্রে বিএনপির পক্ষ থেকে সরকারের যে পদত্যাগ দাবি করা হয়েছে, তা গণদাবিতে পরিণত হয়েছে। অবিলম্বে দেশ পরিচালনায় লাইসেন্সহীন সরকারের পদত্যাগ ও জবাবদিহিমূলক সরকার প্রতিষ্ঠা করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। সড়ক দুর্ঘটনায় মানুষের মৃত্যু নিয়ে হাসি-তামাশা ও পরিবহন সেক্টরে অরাজকতা সৃষ্টিকারী নৌ-পরিবহন মন্ত্রীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণসহ নিরাপদ সড়কের গণদাবিকে জনগণ ন্যায্য বলে মনে করে।’বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘গতকাল বিকেলে মিরপুরসহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় আন্দোলনরত কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ওপর হঠাৎ করে সশস্ত্র নিষ্ঠুর হামলা চালায় পুলিশ, ছাত্রলীগ ও যুবলীগ। হামলায় বেশ কিছু শিক্ষার্থী গুরুতর আহত হয়েছে, যা আজ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। কোমলমতি এই শিক্ষার্থীদের ওপর এই হিংস্র হামলা নৃশংস দস্যুতার নামান্তর মাত্র।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*