পর্যটকের পদভারে মুখরিত কক্সবাজার

জসিম সিদ্দিকী: ঈদের আনন্দে উৎসবের শহরে পরিণত হয়েছে পর্যটন নগরী কক্সবাজার। ভোর থেকে সৈকতের পানিতে জলকেলিতে মেতেছে লাখো পর্যটক। তবে সাগর উত্তাল থাকায় পর্যটকদের নিরাপদে সাগরে নামতে নির্দেশনা দিয়েছে প্রশাসন। পর্যটকদের জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে ট্যুরিষ্ট পুলিশ, লাইফ গার্ডসহ বিভিন্ন স্তরের আইন-শৃংখলা বাহিনী। কিন্তু এবার এখানে প্রত্যাশিত বিদেশি পর্যটকের দেখা নেই। তাদের উপযোগী বিনোদনের সুযোগ না থাকাই এর কারণ বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।
এদিকে লাখো পর্যটকের পদভারে মুখরিত বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের ছয়টি পয়েন্ট। বেলা বাড়ার সাথে সাথে বেড়েছে পর্যটকদের ভিড়। অনেকেই পরিবার পরিজন নিয়ে দেশের দূর দূরান্ত থেকে সৈকত পাড়ে এসেছেন ঈদের ছুটি কাটাতে।
২৪ আগস্ট দুপুরের আগেই লোকে লোকারণ্য হয়ে পড়ে পুরো সৈকত এলাকা। এমনকি ভাটার সময় সাগরে নামার নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা মানছে না কেউ। পর্যটকের ভিড় সামাল দেয়ার পাশাপাশি অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে যেমন ট্যুরিস্ট পুলিশ তৎপর ছিলো, তেমনি দুর্ঘটনা এড়াতে সতর্ক অবস্থায় ছিলো লাইফগার্ড কর্মীরাও। কক্সবাজার শহরের বাইরে ইনানী এবং হিমছড়ি সৈকত এলাকাতেও ছিলো পর্যটকদের ভিড়।
কক্সবাজার হোটেল-মোটেল গেস্ট হাউস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম সিকদার বলেন, প্রতিদিন কক্সবাজারে কমপক্ষে ২ থেকে আড়াই লাখ পর্যটক অবস্থান করছে। পর্যটন সেক্টরে ঈদের পরের এক সপ্তাহে কমপক্ষে ৪০০ কোটি টাকার ব্যবসা হবে।
কক্সবাজারের পুলিশ সুপার ড. একেমএম ইকবাল হোসেন জানিয়েছেন, অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে আইন-শৃংখলা বাহিনী সর্তক রয়েছে। পর্যটকরা নিরাপদে সৈকত পাড়ে আনন্দ করছেন।
কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন জানান, পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য প্রশাসন কাজ করে যাচ্ছে। এবারের ঈদে লাখো পর্যটকের পদভারে মুখরিত হয়েছে দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার। বর্তমানে সৈকতের ছয়টি পয়েন্টে বেড়েছে পর্যটকদের ভিড়। অনেকেই পরিবার পরিজন নিয়ে দূর দূরান্ত থেকে সৈকত পাড়ে এসে নিরাপদে ঈদের ছুটি কাটাচ্ছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*