কক্সবাজারে প্রযুক্তি আইন নিয়ে মতবিনিময় সভা

নিজস্ব প্রতিবেদক: ‘পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইন, খসড়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন পর্যালোচনা’ বিষয়ক সভা এক মতবিনিময় ৬ সেপ্টেম্বর বিকেলে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়েছে।
আইন ও শালিস কেন্দ্রের (আসক) সহযোগীতায় বেসরকারি সংস্থা মুক্তি কক্সবাজার এ সভা আয়োজন করে। এতে সভাপতিত্ব করেন মুক্তির প্রধান নির্বাহী বিমল চন্দ্র দে সরকার। সভায় বক্তারা অনলাইনে যৌন হয়রানির চিত্র, সাইবার ট্রাইব্যুনালে মামলা আর ওইসব মামলায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ার হার, বাংলাদেশ তথ্য প্রযুক্তি সংক্রান্ত আইনসমূহ, বিদ্যমান আইনের অপূর্ণতাসহ নানা বিষয়ে আলোচনা করেন।
এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন মুক্তির প্রধান নির্বাহী বিমল চন্দ্র দে সরকার। কর্মসূচির পরিচিতি ও লক্ষ্য সম্পর্কে কথা বলেন আসকের শিশু অধিকার ইউনিটের সমন্বয়কারী অম্বিকা রায়। তিনি ২০১৬ সাল থেকে জুলাই ২০১৮ পর্যন্ত সময়ে কর্মসূচির অর্জন সম্পর্কে তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করেন। কর্মসূচির পটভূমি তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন আসকের শিশু অধিকার ইউনিটের টিম লিডার মকসুদ মালেক।
আসকের শিশু অধিকার ইউনিটের কর্মসূচি সংগঠক আমরিন খান বিদ্যমান আইনের অপূর্ণতা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য-উপাত্ত তুলে ধরেন। সভায় বলা হয়, পর্ণোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১২-এ ভিকটিম হিসেবে শিশুদের প্রসঙ্গ উল্লেখ আছে। কিন্তু অভিযুক্ত হিসেবে শিশুদের কোন প্রসঙ্গের কোন উল্লেখ নেই। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে শিশু সংক্রান্ত কোন বিধান নেই। কোন আইনেই জুভেনাইল জাস্টিস নিয়ে উল্লেখ নেই। যদি কোন শিশু এ সংক্রান্ত কোন অপরাধ করে থাকে তাহলে তাদের জন্য কোন বিশেষ ব্যবস্থার কথা উল্লেখ নেই। ক্যামেরা ট্রায়ালের কোন বিধান নেই। ব্যক্তিগত গোপনীয়তার অধিকার নিশ্চিত করা হয়নি। তৃতীয় লিঙ্গের কেউ যদি অনলাইনে যৌন হয়রানির শিকার হন এ সংক্রান্ত কোন বিধান নেই। যৌন হয়রানি সংক্রান্ত হাইকোর্টের যে নির্দেশনা রয়েছে সেটি মূলত নারী ও শিশুদের জন্য। কোন পুরুষ যদি যৌন হয়রানির শিকার হন, এ সংক্রান্ত কোন বিধান নেই। এছাড়াও যৌন শোষন ও হয়রানি সংক্রান্ত বিভিন্ন অপরাধের সংজ্ঞা প্রদান প্রয়োজন। যেমন অনলাইন যৌন হয়রানি, অনলাইন যৌন শোষন, অনলাইনে শিশু যৌন হয়রানি, অনলাইন শিশু যৌন শোষন, সাইবার হয়রানি, সাইবার বুলিং, সাইবার স্টকিং, সেক্সটরশন, সেক্সটিং-সহ আরো অন্যান্য অপরাধ সমূহ।
এতে মুক্ত আলোচনা পর্বে অংশ নেন কক্সবাজারের জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক মুহাম্মদ আলী জিন্নাত, কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান হেলেনাজ তাহেরা, প্রকৌশলী কানন পাল, কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষিকা মাসুদা মোর্শেদ আইভী, ব্র্যাকের প্রতিনিধি ওমর ফারুক, শেড এর প্রতিনিধি আব্দুল মান্নানসহ আরও অনেকই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*