টেকনাফে নব্য মহিলা আ.লীগের নেত্রী কোহিনুরের বাড়িতে অভিযান

নিজস্ব প্রতিবেদক: কক্সবাজারের টেকনাফ পৌরসভার নারী কাউন্সিলর ও নব্য  মহিলা আ.লীগের নেত্রী কোহিনুরের বাড়িতে মাদক বিরোধী যৌথ টাস্ক ফোর্সের অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। এ সময় তার স্বামী চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী শাহ আলম পালিয়ে যাওয়ায় তাকে আটক করা সম্ভব হয়নি। তবে শাহ আলমকে আইনের আওতায় আনার যাবতীয় প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর।
জানাগেছে, ১০ সেপ্টেম্বর দুপুরে টেকনাফ পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী শাহ আলমের বাড়িতে র‌্যাব, পুলিশ, আনসার ও মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর যৌথ মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানের নেতৃত্বে ছিলেন, মাদক নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের গোয়েন্দা পরিচালক মাসুম রব্বানী।
এদিকে স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে, আইনশৃংক্ষলা বাহিনীর উপস্থিতি টের পেয়ে শাহ আলম কৌশলে বাড়ির পিছনের দরজা দিয়ে পালিয়ে গেছে। শাহ আলম টেকনাফ পৌরসভার নারী কাউন্সিলর ও সদ্য যুবলীগ নেত্রী কোহিনুর আক্তারের স্বামী! শাহ আলম এবং তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক মাদক মামলা রয়েছে এবং ইয়াবা মামলায় শাহ আলম সদ্য জেল ফেরত আসামী বলে জানা গেছে।
স্থানীয় একটি সুত্র জানিয়েছে, দিন মুজর শাহ আলম থেকে এখন ইয়াবা ব্যবসা করে কোটি কোটি টাকাসহ রকমমারি গাড়ী বাড়ির মালিক বনে গেছে ইয়াবা ব্যবসায়ী শাহ আলম। টাকার বিনিময়ে স্ত্রীকে যুবলীগ নেত্রীসহ পৌরসভার কাউন্সিলরও বানিয়েছে চৌতুর শাহ আলম।
গত এপ্রিল মাসে চট্টগ্রাম গোয়েন্দা পুলিশ কর্তৃক আটক কৃত ইয়াবার চালানটি কাউন্সিলর কোহিনুর আক্তারের বলে তথ্য পাওয়া গেছে। উক্ত ঘটনায় কাউন্সিলর কোহিনুর,তার পিতা সুলতান, স্বামীসহ চার জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানিয়েছে নগর গোয়েন্দা পুলিশ। এ ঘটনায় ইয়াবা বহনকারী কাভার্ড ভ্যানের ড্রাইভার আনোয়ার বর্তমানে জেল হাজতে রয়েছে।
এনিয়ে কক্সবাজার জেলা মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন সহকারী পরিচালক সৌমেন মন্ডল অভিযানের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, শাহ আলম একজন তালিকাভূক্ত মাদক ব্যবসায়ী। তিনি দীর্ঘদিন ধরে কৌশলে শক্তিশালী নেটওয়ার্ককের মাধ্যমে ইয়াবা ব্যবসা করে আসছে। তিনি আরও বলেন, অভিযানের সময় বাড়িটি তালাবদ্ধ ছিলো। তালা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে একজন বয়স্ক মহিলার উপস্থিতি পাওয়া গেছে। তবে শাহ আলমকে আইনের আওতায় আনার যাবতীয় প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*