সরকার দলীয় নেতারাই নদী দখল করছে

নিউজ ডেস্ক: সরকার দলীয় নেতারাই নদী দখল ও দূষণ করছেন বলে মন্তব্য করেছেন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান। তিনি বলেছেন, ‘বাস্তবতা হচ্ছে সরকার দলীয় নেতারাই নদী দখল ও দূষণ করছে। আর তাদের সহযোগিতা করছে স্থানীয় প্রশাসন।’

আজ শনিবার দুপুরে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন ও জেলা প্রশাসন আয়োজিত সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলং ও তামাবিল এলাকার নদ-নদী দখল, পানি ও পরিবেশ দূষণ প্রতিরোধে স্থানীয় নেতাদের সঙ্গে মত বিনিময় সভায় মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

সিলেট অঞ্চলে বোমা মেশিন দিয়ে পাথর উত্তোলনের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীও উদ্বিগ্ন  উল্লেখ্য করে মন্ত্রী বলেন, ‘বিষয়টি সরেজমিনে পরির্দশন করতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই আমি সিলেটে এসেছি।’ এ সময় নদী ও পরিবেশ বিনষ্টকারীদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান মন্ত্রী।

জাফলংকে তার আগের রূপে ফিরিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দেন নৌমন্ত্রী। মন্ত্রী আরও বলেন, ‘আগামী নির্বাচনে যদি কেউ আওয়ামী লীগকে ফু দিয়ে উড়িয়ে দেওয়ার কথা চিন্তা ভাবনা করে থাকে তাহলে, সেই চিন্তা হবে দিবা স্বপ্নের মতো। কারণ আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধুর নাম দেশের মানুষের হৃদয়ের সাথে মিশে আছে। তাই মানুষের হৃদয় থেকে এ দুটি নাম ফু দিয়ে উড়িয়ে দেওয়া যাবে না।’

নৌমন্ত্রী বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকার টানা দুই মেয়াদে ক্ষমতায় আছে বলেই সর্বদিক থেকে দেশ সমৃদ্ধশালী হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। আগে বিদেশ থেকে খাদ্য দ্রব্য আমদানি করা হতো। এখন দেশের উৎপাদিত খাদ্যশস্য দেশের চাহিদা পূরণ করে বিদেশেও রপ্তানি করা হচ্ছে।

শাজাহান খান বলেন, ‘কার সাথে আলোচনা বা ঐক্য করব? জঙ্গি-সন্ত্রাসীদের সাথে আলোচনা করে দেশের কোনো কল্যাণ হবে না। যারা মানুষ হত্যা করে তাদের সাথে কোনো আলোচনা হতে পারে না। কারণ বিএনপি-জামায়াতের আগুন সন্ত্রাসীদের হাতে দেশের মানুষ নিরাপদ নয়।’

মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মুজিবুর রহমান হাওলাদার ও সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিন চেীধুরী।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিলেটের জেলা প্রশাসক নুমেরী জামান। সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন— বাংলাদেশ স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান তপন কুমার চক্রবর্তী, জাতীয় নদী রক্ষা কমিটির সদস্য শারমিন মোর্শেদ, সিলেট জেলা নদী রক্ষা কমিটির সদস্য সচিব অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, সিলেট জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মো. মনিরুজ্জামান, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর সিলেটের উপপরিচালক ও নদী রক্ষা কমিশনের সার্বক্ষনিক সদস্য মো. আলাউদ্দিন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*