স্কুল ছাত্রীকে পিঠানোর ঘটনায় শিক্ষক আটক

কক্সবাজার: কক্সবাজার শহরের কুতুবদিয়া পাড়ায় ৬ষ্ঠ শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রীকে বেধড়ক পিঠানোর ঘটনায় অবশেষে অভিযুক্ত শিক্ষক হেলাল উদ্দিনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃত হেলাল উদ্দিন শহরের সমিতি পাড়ার মুসা সাওদাগরের পুত্র। ৮ অক্টোবর বিকেলে কক্সবাজার সদর মডেল থানা পুলিশ তার কোচিং সেন্টার থেকে তাকে আটক করে। এদিকে দীর্ঘ তিন দিন ধরে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে আহত স্কুল ছাত্রী নাজিফা বাড়ী ফিরেছে বলে জানা গেছে।

সূত্রমতে, কক্সবাজার শহরের পশ্চিম কুতুবদিয়া পাড়ার জাকারিয়া আজাদের মেয়ে নাজিফা স্থানীয় কক্সন মাল্টিমিডিয়া স্কুলের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী। প্রতিদিনের ন্যায় ৬ অক্টোবর শনিবার স্কুলে যায়। সেখানে দুপুর ১ টার দিকে শিক্ষক হেলাল উদ্দিন ক্লাস নিতে শ্রেণী কক্ষে যায়। ওই সময় উক্ত শিক্ষকের পরিচালনাধীন কোচিং সেন্টারে প্রাইভেট পড়ার পরার্মশ দিয়ে শরীরের র্স্পশ কাতর স্থানে হাত দেন শিক্ষক। এসময় নাজিফা বাড়ীতে গৃহ শিক্ষকের নিকট পড়ে বলে জানালে উক্ত শিক্ষক ক্ষিপ্ত হয়ে আবুল তাবুল প্রশ্ন করতে থাকে। এক পর্যায়ে পড়া না শিখার ওজুহাত তুলে এলোপাতাড়ি বেত্রাঘাত করে শিক্ষক। পরে স্কুল ছুটি হলে বাসায় চলে যায় ছাত্রী নাজিফা।

নাজিফার মামা ব্যবসায়ি মোজাম্মেল হক জানান, বাড়ীতে গিয়ে মেয়ে প্রচন্ড কান্নাকাটি শুরু করে এবং এক পর্যায়ে বমি করে। পরে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে ডাক্তারের জিজ্ঞাসাবাদে পিঠানোর দাগ ও মূল ঘটনা বেরিয়ে আসে। এই ঘটনায় শিক্ষকের বিরুদ্ধে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় মামলার এজাহার দায়ের করা হয়েছে।

এদিকে গত দুই দিন ধরে ছাত্রী পিঠানোর খবরে কক্সবাজার শহরে আলোচনা ও সমালোচনার ঝড় ওঠে। এক পর্যায়ে বিষয়টি স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ের গণমাধ্যমে প্রচার হলে পুলিশ প্রশাসনের উর্ধতন কর্মকর্তা পর্যন্ত গড়ায়। পরে ছাত্রীর মায়ের দেয়া এজাহারের ভিত্তিত্বে ৮ অক্টোবর বিকেলে শিক্ষক হেলাল উদ্দিনের কোচিং সেন্টার শহরের বাহারছড়া থেকে তাকে আটক করে পুলিশ।

তদন্তকারি কর্মকর্তা এসআই মাজেদুল ইসলাম জানান, মারধরের বিষয়টি সত্য। আহত স্কুল ছাত্রীর মায়ের দেয়া এজাহার মতে অভিযুক্ত শিক্ষককে আটক করা হয়েছে।
এদিকে স্থানীয়দের মতে, শিক্ষক যথাক্রমে হেলাল উদ্দিন, রাহাত ইকবাল ও মহিউদ্দিন তিন ভাইসহ তাদের আত্মীয় স্বজনরা মিলে কক্সন মাল্টিমিডিয়া নামের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে পারিবারিক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের এই ব্যবসায় বর্তমানে এলাকার মানুষ নানা ভাবে অপদস্ত হচ্ছে।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন খন্দকার বলেন, শহরের পশ্চিম কুতুবদিয়া পাড়ার ৬ষ্ঠ শ্রেণীর স্কুল ছাত্রী নাজিফাকে বেধড়ক মারধরের ঘটনায় শিক্ষক আটক হয়েছে। বিষয়টি গত দুই দিন ধরে তদন্তপূর্বক সত্যতা পাওয়ায় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*