এনাম মেম্বারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ভুক্তভোগিদের আহবান

নিউজ ডেস্ক:  ইয়াবা, ধর্ষণ, অস্ত্র, বন্দুক যুদ্ধ সহ ১৪ মামলার আসামী মাদক সম্রাট বা শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী যাই বলা হউক না কেন টেকনাফের এনাম সারাদেশে ইয়াবা ছড়িয়ে দেয়ার পেছনে ব্যাপক ভুমিকা রেখে যাচ্ছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। এসব করতে গিয়ে আইনশৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীর তালিকায় মোস্ট ওয়ান্টেড হিসেবেও চিহ্নিত হলেও এখনো ধরা ছোয়ার বাইরেই থেকে গেছে এই ইয়াবা এনাম। পুরো নাম এনামুল হক এনাম ওরফে এনাম মেম্বার প্রকাশ ইয়াবা এনাম (২৫) । টেকনাফ সদর ইউনিয়নের নাজিরপাড়ার মোজাহের মিয়ার ছেলে। থানা পুলিশের তালিকায় মোষ্ট ওয়ান্টেড হলেও তাকে আটক করার বিষয়ে কোন তৎপরতা দেখা যাচ্ছেনা থানা প্রশাসনের। ইয়াবার কালো টাকার জোরে মেম্বার হওয়া এনাম বর্তমানে
টেকনাফ সদর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য। র‌্যাব, ডিবিসহ বিভিন্ন আইনশৃংখলা বাহিনীর উপর হামলা, অস্ত্র, ইয়াবা, জমি দখল, মারধর, ধর্ষণ, ত্রাস সৃষ্টিসহ বরাবর ১৪টি মামলার আসামি এনাম। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকায় ইয়াবা ব্যবসায়ী হিসেবেও রয়েছে তার নাম। কিছু দিন আগে নিজেকে গা ডাকা দিয়ে থাকলেও বর্তমানে এই শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী এলাকায় প্রকাশ্যে। জনমনে প্রশ্ন জেগেছে, মোষ্ট ওয়ান্টেড আসামী এনাম কার ইশারায় এলাকার মাঠ ঘাটে এভাবে প্রকাশ্যে চষে বেড়াচ্ছে  ? তাকে আইনের আওতায় কেন আনা হচ্ছেনা এমনটি প্রশ্ন এলাকার সচেতন মহলের। সুত্রমতে, এলাকায় জমি দখল, হামলা, ভাংচুর, লুটপাটসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে একটি ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে সে।আর সমানতালে চালিয়ে যাচ্ছে ইয়াবা ও মায়ানমার থেকে পাচারকৃত স্বর্ণের ব্যবসা। রহস্যজনক কারণে দেশজুড়ে চলমান ‘মাদক বিরোধী অভিযানে’ও ধরাছোঁয়ার বাইরে ছিলো শীর্ষ এই ইয়াবা কারবারি। শুধু ইয়াবা এনামই নয়, তার তিন ভাই সাহাব মিয়া সাবু, চাঁদ মিয়া এবং হাফেজ নুরুল হকের বিরুদ্ধেও রয়েছে একাধিক মামলা। তারা মাদকসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের কারণে একাধিকবার কারাভোগ করে। কিন্তু তারাও এখন প্রকাশ্যে ইয়াবা ব্যবসা চালাচ্ছে। বন্ধ নেই সন্ত্রাসী কর্মকান্ডও। এনামুল হক এনাম বাহিনীর বিষয়ে জানতে চাইলে টেকনাফ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রণজিত কুমার বড়ুয়া বলেন, এনামের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে। তিনি প্রকাশ্যে কিনা তা আমার জানা নেই। তবে তাকে সহ আরও যারা শীর্ষ মাদক কারবারি রয়েছে তাদের খোঁজা হচ্ছে। আইনশৃংখলা বাহিনী সূত্র জানায়, টেকনাফ সদর ইউনিয়নের নাজির পাড়া ইয়াবার ট্রানজিট পয়েন্ট। এটি ইয়াবা গ্রাম হিসেবেও পরিচিত। ওই ট্রানজিট পয়েন্ট নিয়ন্ত্রণ করে এনাম বাহিনীর নেতৃত্বে গড়ে তোলা একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট। ইয়াবা ব্যবসার মাধ্যমে হঠাৎ করে আংগুল ফুলে কলাগাছে পরিণত হয় এই সিন্ডিকেটের প্রতিটি সদস্য। এনাম বাহিনী মিয়ানমার ভিত্তিক শীর্ষ ইয়াবা কারবারীদের সাথে আতাঁত করে এলাকার উঠতি বয়সী যুবকদের অল্পদিনে কোটিপতি হওয়ার স্বপ্ন দেখিয়ে বৃহত্তর সিন্ডিকেট গড়ে তোলে। এরপর টেকনাফ সীমান্তের নাজির পাড়াসহ বিভিন্ন সীমান্ত পয়েন্ট দিয়ে কোটি কোটি ইয়াবা এদেশে নিয়ে এসে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাচার করে হাতিয়ে নিয়েছে কোটি কোটি টাকা। নামে-বেনামে একাধিক গাড়ী, বাড়ী ও অঢেল সম্পদ গড়ে তোলার পাশাপাশি এলাকার নিরীহ লোকজনকে নানা ভাবে হয়রানি করে আসছে বলেও গুরুতর অভিযোগ রয়েছে এ বাহিনীর বিরুদ্ধে। ফলে বাহিনীটি নাজির পাড়াসহ পার্শ্ববতী এলাকায় অবৈধ অস্ত্রের মহড়া, জমি দখল, হামলা, ভাংচুর, লুটপাট সৃষ্টির মাধ্যমে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে।
এক নজরে ইয়াবা সম্রাট এনামের বিরুদ্ধে মামলাগুলো-জি.আর-৮০/২০১৪ টেকনাফ থানা র‌্যাবের সাথে বন্দুক যুদ্ধ এবং অস্ত্রসহ গ্রেফতার। জি.আর-২৬৪/২০১৬ ৩৩ হাজার ইয়াবা ও অস্ত্রসহ বিজির হাতে গ্রেপ্তার। জি.আর-৪৩৯/২০১৭ টেকনাফ থানা, ডিবি পুলিশের হাত থেকে আসামী ছিনতাই ও ডি.বি পুলিশের উপর হামলা। জি.আর- ২৪৭/২০১৮ কক্সবাজার মডেল থানা, অস্ত্র মামলা। জি.আর-৭৪৩/২০১৪ কক্সবাজার থানা। জি.আর-৫৪ বাকলিয়া থানা চট্টগ্রাম মহানগর ৭০ হাজার ইয়াবা নিয়ে আটক। জি.আর-১৭/২৮৮/২০১৭ শিবপুর মডেল থানা, নরসিংদী তার ড্রাইভার গফুর ৭০ হাজার ইয়াবাসহ আটক এনাম পালাতক। জি.আর-৩৮ টেকনাফ থানা। জি.আর- ২৯১ টেকনাফ থানা ঘরপোড়া মামলা। সি.আর-৫৬ ধর্ষণ মামলা। জি.আর-৩০৩ টেকনাফ থানা ধর্ষণ মামলা। জি.আর-৩৫১/২০১৫ টেকনাফ থানা। লুটপাট ও ধর্ষণ। জি.আর-৫৫ টেকনাফ থানা ধর্ষণ মামলা ও জি.আর- ৫৫৭ টেকনাফ মডেল থানা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*