পর্যটন ব্যবসায় চাঙ্গা ভাব : শীতে আসছে পর্যটকের দল

জসিম সিদ্দিকী: পর্যটন রাজধানী কক্সবাজারে শীতের শুরুতে পর্যটকের আগমন ঘটছে কক্সবাজারে। বিশেষ করে সাপ্তাহিক ছুটির দিনগুলোতে সাগর তীরে পর্যটকের উপচে পড়া ভিড় লক্ষণীয়। পরিচ্ছন্ন ও নিরাপত্তা কর্মীরা যথা সময়ে তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করে আসছে। সব কিছু মিলিয়ে পর্যটন ব্যবসায় এবার চাঙ্গা ভাব ফিরবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা। আর পর্যটকদের ভ্রমণে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশ। বিশাল সাগর, হিমেল হাওয়া আর নীল জলরাশি। যার দেখা মিলবে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারে। এদিকে কিছু দিন ধরে অনুভব হচ্ছে হাল্কা শীত। তাই শীত শুরুর সাথে সাথে সাগর তীর ভিড় করতে শুরু করেছেন পর্যটকরা। বিশেষ করে সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্র এবং শনিবার বাড়ছে পর্যটকের আনাগোনা। আর সাগরের নীল জলরাশি উচ্ছ্বাসে মেতে উঠছেন ভ্রমণ পিপাসুরা। রাজশাহী হতে কক্সবাজারে আসা জেসমিন রুহি জানান, এখানে এসে খুবই ভাল লাগছে। যেহেতু ছুটি রয়েছে সেজন্যই ঘুরতে আসলাম। অন্য আরেকজন জানান, আবহাওয়া ভাল রয়েছে। আর সী ওয়াটার তো সব সময় গরম, আরামদায়ক। তবে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা জানান, শীত মৌসুমে সমুদ্র শীতল থাকায় পর্যটকরা সাগরে স্নান করতে বেশি আগ্রহী হয়ে থাকে। ওই সময় উত্তাল সমুদ্র শীতল থাকে। এ অবস্থায় পর্যটন স্পটগুলোতে নিরাপত্তা জোরদার করার আহবান জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। পাশাপাশি বেচাকেনায় চাঙ্গা ভাব ফিরবে আশা করছেন পর্যটন ব্যবসায়ীরা।
কক্সবাজারের হোটেল ব্যবসায়ী মুকিম খান জানান, আমরা অনেক সাড়া পাচ্ছি। বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও সরাসরি অনেক বুকিং আসছে। এছাড়াও সাপ্তাহিক ছুটিতে প্রচুর পর্যটক কক্সবাজারে আসে।
এদিকে ট্যুরিস্ট পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, পর্যটন স্পটগুলোতে ভ্রমণ পিপাসুরা যাতে স্বাচ্ছন্দ্যে ঘোরাফেরা করতে পারে সেজন্য সব ধরণের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।
কক্সবাজারের ট্যুরিস্ট পুলিশের ওসি মিজানুর রহমান সিদ্দিকী বলেন, ২৪ ঘণ্টা আমাদের পর্যটন পুলিশের নজরদারি রয়েছে। সেই সাথে সব পর্যটকদের নিরাপত্তা দিতে প্রস্তুত রয়েছে। সৈকতের লাবণী, কলাতলি, সুগন্ধা ও ইনানিতে দিনে ও রাতে পুলিশ থাকে।
কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, কক্সবাজারের অপার সম্ভাবনা নিয়ে কাজ করছে সরকার। কক্সবাজারের উন্নয়নে সরকারের বড় প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন হলে বিদেশি পর্যটকদের আরও বেশি আগমন ঘটবে।
এদিকে কক্সবাজার সচেতন মহল মনে করেন, বাংলাদেশে পর্যটন খাতে সবচেয়ে বেশি আয় হয় কক্সবাজারের পর্যটন শিল্প থেকে। অথচ সম্ভাবনাময় এ খাতটি এখনও অবহেলিত। কক্সবাজারে সৌন্দর্যের নানা উপাদান থাকলেও তা কাজে লাগানো যাচ্ছে না। উল্টো সেখানের সৌন্দর্য্য নষ্ট করা হচ্ছে। তাই কক্সবাজারের পর্যটন সম্ভাবনা কাজে লাগানোর দাবি জানিয়েছেন পর্যটন খাতে জড়িতরা।
আর দেশি পর্যটকদের মাধ্যমে কক্সবাজার থেকে প্রতি বছর হাজার কোটি টাকা আয় হলেও সেখান থেকে তেমন বৈদেশিক মুদ্রা অর্জিত হচ্ছে না। এর জন্য পর্যাপ্ত বিনোদন আর প্রচারণার অভাবসহ নানা অব্যবস্থাপনা দায়ী। সম্ভাবনাময় এই শহর যদি দেশীদের পাশাপাশি বিদেশিদের ভ্রমণ উপযোগী করে গড়ে তোলা যায় তাহলে দেশের অর্থনীতি আরো সচল হবে।
কক্সবাজার হোটেল মালিকদের দেয়া তথ্য মতে, প্রতিবছর শীতের মৌসুমে ১৫ লাখের বেশি পর্যটক কক্সবাজারে ঘুরতে আসেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*