সাধারণ নির্বাচনে ২ পরিবারের মাঝে মর্যাদার লড়াই

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার: সারাদেশে ৩০০ আসনের মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ আসন হিসেবে বিবেচিত হয় কক্সবাজার-৪ ( উখিয়া-টেকনাফ) আসনটি। কথিত আছে এই আসনে যিনি যে দল নির্বাচিত হয় সে দলই সরকার গঠন করে। আর স্থানীয় রাজনীতি বিবেচনায় উখিয়া উপজেলায় আওয়ামীলীগ ও বিএনপি থেকে দুই পরিবার নেতৃত্ব দিয়ে আসছে। একদিকে বিএনপির ৪ বারের সংসদ সদস্য শাহজাহান চৌধুরী। দীর্ঘদিন ধরে তারা উখিয়া-টেকনাফে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন।
অপরদিকে আওয়ামীলীগের নেতৃত্ব দিয়ে আসছে উখিয়া উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম চৌধুরীর পরিবার। তিনি নিজে রাজাপালং ইউনিয়ন ও উখিয়া উপজেলার চেয়ারম্যান ছিলেন। তারই ছোট মেয়ের জামাই আবদুর রহমান বদি আওয়ামীলীগের দুই বারের সংসদ সদস্য। বদির কাছেই ২০০৮ সালের সংসদ নির্বাচনে ধরাশায়ী হন শাহাজাহান চৌধুরী। এর পরে অন্যান্য নির্বাচনে ও এই দুই পরিবারের মর্যাদার লড়াই চলে আসছে।
সবশেষে ২০১৮ সালের একাদশ সংসদ নির্বাচনে আবারো দুই পরিবারের লড়াই দেখা যাবে। ইতিমধ্যে বিএনপির একক প্রার্থী হিসেবে নাম ঘোষিত হয়েছে শাহজাহান চৌধুরীর। অন্যদিকে আওয়ামীলীগে প্রার্থী হচ্ছেন বর্তমান সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদির স্ত্রী ও উখিয়া উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম চৌধুরীর কন্যা শাহীন আক্তার চৌধুরী। রাজনীতিতে নতুন হলেও শাহীন চৌধুরী পিতা ও স্বামীর জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগিয়ে ভোটের মাঠে প্রভাব ফেলতে পারবেন বলে আশে করছে রাজনৈতিক বোদ্ধারা।
তবে অপরদিকে সাবেক সাংসদ বিএনপি নেতা শাহাজাহান চৌধুরীও অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ। সেদিক দিয়ে লড়াইটা খুবই সহজ হবে না শাহীন চৌধুরীর জন্য। রাজনীতির মাঠে নতুন হলেও পারিবারিক ভাবে শাহীন চৌধুরীর পরিচিত অনেক।
উখিয়া-টেকনাফ আসনে নৌকার প্রার্থী হিসেবে মনোনিত শাহীন চৌধুরী উখিয়া উপজেলার সাবেক জনপ্রিয় চেয়ারম্যান মরহুম নুরুল ইসলাম চৌধুরীর সুযোগ্য কন্যা, উখিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরীর ভাতিজি, উখিয়া উপজেলার বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) ছেনুয়ারা বেগমের ভাতিজী, জেলা পরিষদের সদস্য হুমায়ুন কবির চৌধুরীর ছোট বোন, রাজাপালং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও উখিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক জাহাংগীর কবির চৌধুরীর বড় বোন। সেই সাথে তিনি উখিয়া-টেকনাফের দুইবারের সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদির স্ত্রী, টেকনাফ উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম এজাহার মিয়া কোম্পানির পুত্রবধু। তিনি ঐতিহ্যগত ভাবে রাজনৈতিক পরিবারের কন্যা। তাই এখন সময়ই বলে দিবে কে কা কাকে হারাতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*