উন্নয়ন বঞ্চিত কক্সবাজারের পর্যটন শিল্প

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার: নানা সমস্যায় উন্নয়ন বঞ্চিত হচ্ছে কক্সবাজারের পর্যটন শিল্প। বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত থাকা সত্ত্বেও এখনো পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা গড়ে না উঠায় দিন দিন ভ্রমণে আগ্রহ হারাচ্ছে দেশি-বিদেশি পর্যটকরা। পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের দাবি, সরকারি দপ্তরগুলোর সমন্বয়হীনতার কারণে কোনোভাবেই উন্নয়নের ধারে পৌঁছাতে পারচ্ছে না পর্যটন শিল্প।
তবে পর্যটনকে ঘিরে সরকারের চলমান উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডগুলো স্বল্প সময়ে শেষ হলে সুফল পেতে শুরু করবে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসক কামাল হোসেন।
দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের সাগর পাড়ের সত্যিকারের মনোরম আবহ খুঁজে পেতে পর্যটকরা ছুটে আসে সৈকতের এই শহরে। বিশেষ করে ছুটির দিনগুলোতে সৈকতে জড়ো হয় লাখো পর্যটক। কিন্তু এখনো পর্যটকদের জন্য পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা গড়ে ওঠেনি। শুধুমাত্র সমুদ্র সৈকত ও হোটেল ছাড়া আর কিছুই নেই। ফলে দিন দিন ভ্রমণে আগ্রহ হারাচ্ছে দেশি-বিদেশি পর্যটকরা।
রাজশাহী হতে ঘুরতে আসা শাহীন বলেন, বীচে যাওয়ার পর আমাদের আর যাওয়ার জায়গা নেই। শুধু বীচেই ঘুরতে হয়। খুলনা থেকে আসা নাজনিন বলেন, ‘বাচ্চাদের জন্য খেলার আলাদা জায়গাসহ অন্য রকম কিছু থাকলে পর্যটন ব্যবস্থা আরও উন্নত ও সুবিধা হতো। অন্যদিকে রাজস্বও আদায় করা সম্ভব হতো।
এ দিকে সরকারি দপ্তরগুলোর সমন্বয়হীনতার কারণে কোনোভাবেই এগুচ্ছেনা কক্সবাজারের পর্যটন শিল্প এমনটায় মনে করছেন কক্সবাজার হোটেল মালিক সমিতির নেতারা।
হোটেল মালিক সমিতির নেতা মুকিম খান বলেন, জেলা প্রশাসন, বীচ ম্যানেজমেন্ট কমিটি এবং কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ এদের সমন্বয়ে আরো ত্বরান্বিত হবে পর্যটন শিল্প। তবে জেলা প্রশাসক জানালেন, কক্সবাজারকে ঘিরে সরকারের চলমান উন্নয়ন কর্মকান্ডগুলো স্বল্পসময়ে শেষ হলেই বিকশিত হবে পর্যটন খাত। জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, ‘বীচের এলাকার যে নিরাপত্তা এসবের কার্যক্রম খুবই তাড়াতাড়ি শুরু হবে।
প্রতি বছর অবকাশ যাপনে কক্সবাজার ভ্রমণে আসেন ১৫ লাখের বেশি ভ্রমণ পিপাসু। কিন্তু তাদের সমুদ্র-স্নান ও নিরাপত্তায় নিয়োজিত রয়েছে বেসরকারি ৪০ জন লাইফ গার্ড ও ২ শতাধিক ট্যুরিস্ট পুলিশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*