ওয়াল্ড ভিশনের প্রকল্প কর্মকর্তার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানীর অভিযোগ

উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত এনজিও সংস্থা ওয়াল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর প্রকল্প কর্মকর্তা বিরুদ্ধে মহিলার কর্মীকে যৌন হয়রানী, নিয়োগে সেচ্ছাসারিতা, ত্রাণের মালামাল আত্মসাৎ এবং বিনা কারনে স্থানীয় ছেলে/মেয়েদের চাকুরীচ্যূত সহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট স্বারকলিপি প্রদান করেছে ওই প্রকল্পের বিভিন্ন পদে কর্মরত ৪০জন পুরুষ/মহিলা কর্মী। এতে আরো উল্লেখ করেছেন যে, উক্ত প্রকল্প কর্মকর্তা মোত্তারুল ইসলামের বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে তাদের কক্সবাজারস্থ নিজস্ব অফিসে একাধিক বার অভিযোগ করেও কোন কাজ হয়নি। এত বিশাল অভিযোগের শর্তেও বহাল তবিয়তে চাকুরী করার সুযোগ পাওয়ায় দিন দিন আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে এই প্রকল্প কর্মকর্তা। জানা গেছে, মিয়ানমার সেনা নির্যাতনের মূখে এদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মানবিক সেবার নামে বিভিন্ন ক্যাম্পে দেড় শতাধিক এনজিও সংস্থার কর্মরত রয়েছে। তৎমধ্যে এনজিও সংস্থা ওয়াল্ড ভিশনের নানান বির্তকিত কর্মকান্ডে কারনে স্থানীয়দের পাশপাশি রোহিঙ্গারাও ফুঁসে উঠতে শুরু করেছে। এমনকি কক্সবাজারের বহুল প্রচারিত দৈনিক আজকের দেশবিদেশ পত্রিকায় সম্প্রতি এ সংক্রান্ত একটি তথ্য বহুল প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার পর অভিযুক্ত প্রকল্প কর্মকর্তা মোত্তারুল ইসলামের বিরুদ্ধে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। উপরের নির্দেশে উক্ত কমিটি মোত্তারুল ইসলামের পক্ষে রিপোর্ট প্রদান বাধ্য হয় বলে গোপন সুত্রে নিশ্চিত হওয়া গেছে। এরপর থেকে ওয়াল্ড ভিশনের বিরুদ্ধে ক্ষোভের সৃষ্টি হয় চাকুরীচ্যুত এবং চাকুরীরত স্থানীয় ছেলে/মেয়েদের। লিখিত স্মারকলিপিতে এক মহিলা কর্মীর উদ্বৃতি দিয়ে আরো উল্লেখ্য করা হয় যে, গত ৫ ডিসেম্বর ১৮নং ক্যাম্পে কর্মরত ওই মহিলা কর্মীকে বিভিন্ন ভয়ভীতি এবং প্রলোভন দেখিয়ে কু-প্রস্তাব দেয় প্রকল্প কর্মকর্তা মোত্তারুল ইসলাম। এ ধরনের আরো একাধিক মহিলাকর্মীকে যৌন হয়রানী করেছে বলে স্মারকলিপিতে উল্লেখ করেন।‘ওয়াল্ড ভিশন বাংলাদেশ ’ এর (নিউটেশন) প্রকল্প কর্মরত সুপার ভাইজার আলাউদ্দিন, মোঃ আরফাত এবং মোঃ শাকিল জানান, মোক্তারুল ইসলাম উখিয়ার ১২,১৩,১৫,১৮,১৯ নং ক্যাম্পে নিয়োজিত থাকার সুযোগে রোহিঙ্গা শিশুদের জন্য শিশু কিট নামের ৮হাজার ৪১পিস মালামাল ২৬ সেপ্টেম্বরের মধ্যে বিতরণে জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নির্দেশনা থাকলেও মোত্তারুল ইসলাম অন্যান্য কর্মকর্তাদের যোগসাজসে ৫ হাজার পিস শিশু কিট বিতরণ করে বাকী গুলো আত্মসাৎ করে। যার প্যাকেটে সহ¯্রাধিক টাকার মালামাল রয়েছে। এছাড়াও নারী কর্মীদের যৌন হয়রানী সহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

অভিযুক্ত প্রকল্প কর্মকর্তা মোত্তারুল ইসলামের নিকট এ ব্যাপারে জানার জন্য একাধিক বার চেষ্টার করে কথা বলা সম্ভব না হওয়ায় ওয়াল্ড ভিশন বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনালের লিয়াজো অফিসার মোঃ আব্দুল বারেক নিকট জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে তার জানা নেই। তিনি বলেন, এ ধরনের অভিযোগ থাকলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ নিকারুজ্জামান চৌধুরী বলেন, যৌন হয়রানীসহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে ওয়াল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর প্রকল্প কর্মকর্তা মোত্তারুল ইসলামের বিরুদ্ধে একটি স্মারকলিপি প্রদান করেছে ওই প্রকল্পে কর্মরত বেশ কয়েকজন ছেলে/মেয়ে। বিষয়টি তদন্তপূর্বক অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*