কক্সবাজার সদর সমবায় কর্মকর্তা বেবী আক্তারের বিরুদ্ধে পাহাড় কেটে দালান নির্মানের অভিযোগ

শ. করিম কক্সবাজার: কক্সবাজার সদর উপজেলা ভবনের পেছনে আইন অমান্য করে সরকারী পাহাড় কেটে বহুতল ভবন নির্মাণ করে আসছে উপজেলা সমবায় অডিট কর্মকর্তা বেবী আক্তার।
কোটি টাকার সরকারী এই পাহাড় কেটে আলিশান বসতবাড়ী নির্মাণ অব্যাহত রাখলেও সংশ্লিষ্ট প্রশাসন এখনো কোন ধরনের পদক্ষেপ নিচ্ছেননা।
স্থানীয়রা জানান, সরকারী পাহাড় কেটে প্রায় অর্ধ কোটি টাকা ব্যয়ে বহুতল দালান নির্মাণ করছে বেবী আক্তার।
এদিকে কোনো অনুমতি ছাড়া তিনি দালান নির্মাণকল্পে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তরের কাছ থেকে কোন ধরনের অনুমতি নেননি বলে জানা গেছে। প্রকাশ্যে পাহাড় কেটে দালান নির্মাণে পরিবেশ বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন সচেতন মহল।
এলাকাবাসী জানান, চলতি বছরের শুরুতে সাবেক সদর সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাজিম উদ্দিন ও ঝিলংজা ইউপি চেয়ারম্যান টিপু সুলতান অভিযান চালিয়ে নির্মিত বিল্ডিং এর ফাউন্ডেশনের কাজ গুঁড়িয়ে দেন। পরে ক্ষমতাধর বেবী আক্তার মোটা অংকের বিনিময়ে পূনরায় বহুতল ভবন নির্মান করে আসছে। অভিযোগের বিষয়ে বেবী আক্তারের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি উত্তেজিত হয়ে বলেন কি পাইছেন আমাকে। আমি কোন সরকারী সম্পদ দখল করিনি। আমার ব্যাপারে কেন এতো অভিযোগ আসে? আমার পশ্চিম পাশে সরকারী উঁচু পাহাড় কেটে পাঁচ তলা বিল্ডিং তৈরী করেছে। প্রতি মাসে ১০ হাজার টাকা প্ল্যাট ভাড়া দিচ্ছে। তাদের ব্যাপারে কোন দিন কোন অভিযোগ না আসলেও আমার বিরুদ্ধে কেন এত অভিযোগ? তার পাল্টা প্রশ্ন। তার স্বামী আনছারুল করিম স্বীকার করেন, এবিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর ও নির্বাহী কর্মকর্তা আমার স্ত্রী বেবী ও আমাকে ডেকে ছিলেন কয়েকবার। অভিযুক্ত বেবী আক্তার দাবী করেন, আপনাদের মত ১০ হাজার সাংবাদিক এসেছিল। আপনাদের আরো কিছু প্রয়োজন হলে ডিসি সাহেবের কাছে যান। আমার জমির বিষয়ে হাইকোর্টের স্থিতি অবস্থা আছে। তবে স্থিতি অবস্থায়ও অবৈধ নির্মাণ অব্যাহত আছে কেন? এর কোন সদোত্তর দিতে পারেননি তিনি।
এ বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সাইফুল আশ্রাব বলেন, পাহাড় কাটা, বিল্ডিং তৈরীর বিষয়ে কাউকে অনুমতি দেয়া হয়নি কেউ অবৈধ ভাবে সরকারী সম্পদ দখল করে ভবন নির্মান করলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*