সমুদ্র সৈকতে উড়ছে নানা রকমের ঘুড়ি


জসিম সিদ্দিকী: বাহারি ঘুড়ি আর নানান আকৃতির দেশীয় পুতুলের সাজে কক্সবাজারে শুরু হলো জাতীয় ঘুড়ি উৎসব ২০১৯। সৈকতের আকাশে উড়ছে বাঘ, অজগর, হাঙর, ডলফিন, অক্টোপাস, জেলি ফিশসহ আরও নানা প্রাণীর আকৃতির ঘুড়ি। আর দর্শক প্রাণভরে উপভোগ করছে সেই দৃশ্য।
প্রতিবারের মত এবারও দুই দিনব্যাপী জাতীয় ঘুড়ি উৎসব আয়োজন করেছে বাংলাদেশ ঘুড়ি ফেডারেশন। ফেব্রুয়ারি বিকেলে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্টে আকাশে ঘুড়ি উড়িয়ে উৎসবের উদ্বোধন করেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। এসময় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চীনের রাষ্ট্রদূত ঝাং ঝু, কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন ও বাংলাদেশ ঘুড়ি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান মৃধা বেনু।
এবারের ঘুড়ি উৎসবে বিশাল পকেট কাইট, ড্রাগন সিরিজ কাইট, ট্রেন কাইট, গোলাপসহ নানা রংয়ের আকর্ষণীয় বিদেশি ঘুড়ি। ফানুস ওড়ানো, আলোক ঘুড়ি ওড়ানোসহ নানা আয়োজনও আছে। এছাড়া ঘুড়ি কাটাকাটি ও শিশুদের জন্য উন্মুক্ত ঘুড়ি ওড়ানো প্রতিযোগিতায় উৎসবে মেতে উঠেছে সমুদ্র সৈকত। পর্যটকদের বাড়তি আনন্দ দিচ্ছে ঘুড়ি উৎসব।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, ঘুড়ি উড়ানো ঐতিহ্যের একটি অংশ। কিন্তু এটি এখন অনেকাংশে হারিয়ে গেছে। এই উৎসবের মাধ্যমে বিশেষ করে শিশুরা মন খুলে আকাশ দেখতে পারে। নির্মল আনন্দ পায়। ঘুড়ি উড়ানো হারিয়ে যেতে দেয়া যাবে না। এটি বাঁচিয়ে রাখতে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।
ঘুড়ি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান মৃধা বলেন, বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত পর্যটকদের কাছে আরো আকর্ষণীয় করে তোলার লক্ষ্যে কক্সবাজারে এই উৎসবটি প্রতিবছর আয়োজন করা হয়েছে। এটি পরিবেশ বান্ধব একটি পর্যটন ক্রীড়া হিসেবে সারাবছর চালু রাখার জন্য সরকার উদ্যোগ নিতে পারে। কারণ ঘুড়ি উড়িয়ে সব বয়সের মানুষেরা যে আনন্দ পায়, সেটা অন্যকোন খেলায় পাওয়া যায় না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*