সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯ ১১ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সোমবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০২-০৭ ১২:৫৬:৫৬

দুদকের অভিযানে কক্সবাজারে ২০ একর পাহাড় উদ্ধার

দুর্নীতিবাজদের অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান শুরু

যুগান্তর অনলাইন: প্রভাবশালী একটি মহল কক্সবাজারের ফাতেরঘোনা ও নুরু সওদাগরের ঘোনা এলাকায় পাহাড় কেটে প্লট তৈরি করছে। ওই প্লট বিক্রি করে হাতিয়ে নিচ্ছে অর্থ।

চক্রটির বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) আসা অভিযোগের ভিত্তিতে এনফোর্সমেন্ট টিম ২৯ জানুয়ারি থেকে ৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত পুলিশ, র‌্যাব ও প্রশাসনের সহযোগিতায় অভিযান চালায়।

এতে বিপুল পরিমাণ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। এতে প্রায় ২০ একর পাহাড় অবৈধ দখলমুক্ত করা হয়।

এনফোর্সমেন্ট টিম জানায়, কক্সবাজারের একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট সরকারি কর্মকর্তা এবং ক্ষমতাধর ব্যক্তিদের ঘুষের বিনিময়ে পাহাড় ধ্বংসের অপতৎপরতায় নামে। এসব জমি স্থানীয় বিভিন্ন ব্যক্তির কাছে কয়েক দফায় বিক্রি করে এ সিন্ডিকেট প্রায় ১২ কোটি টাকা অবৈধ আয় করে। দুদকের অভিযানে সিন্ডিকেটের কয়েকজনের নামও বেরিয়ে আসে। এদের দুজন হলেন- নওশাদ হোসেন ও আজাদ হাসান।

এর ভিত্তিতে বেশ কয়েকজনের অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান শুরু করতে যাচ্ছে দুদক। এ প্রসঙ্গে দুদক এনফোর্সমেন্ট অভিযানের প্রধান মহাপরিচালক মোহাম্মদ মুনীর চৌধুরী বলেন, পাহাড় ধ্বংস ও প্লট বিক্রি করে যারা অবৈধভাবে অর্থ উপার্জন করেছে তাদের সম্পদের হিসাব বের করা হবে। দুদক আইনে মামলা করা হবে এবং সম্পদ জব্দ করা হবে। পরিবেশ ধ্বংস করে দুর্নীতির মাধ্যমে অবৈধ অর্থ উপার্জনের পথ বন্ধ করতে দুদক বদ্ধপরিকর। শিগগিরই উদ্ধার করা পাহাড়ে মাটি ভরাট করে বৃক্ষরোপণ করা হবে।

নবাবগঞ্জ ও কেরানীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে দুদকের অভিযান : বিদ্যুৎ অফিসে গ্রাহকদের জিম্মি করে ঘুষের বিনিময়ে দালালরা কর্মকর্তাদের সঙ্গে পকেটভারি করছে। দুদক হটলাইনে পাওয়া এ অভিযোগের ভিত্তিতে মঙ্গলবার ঢাকার নবাবগঞ্জে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর অধীন পল্লী বিদ্যুৎ জোনাল অফিস এবং বুধবার ঢাকা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৪ এর অধীন কেরানীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ জোনাল অফিসে অভিযান চালায় দুদক টিম।

সরেজমিন অভিযানে দুদক টিম জানতে পারে, নতুন সংযোগ প্রদান, মিটার প্রাপ্তিসহ বিভিন্ন কাজে দালাল ছাড়া কর্মকর্তারা কোনো কাজ করেন না। ফাইল নিয়ন্ত্রণ করে দালালরা। বুধবার অভিযানকালে গ্রাহক সেজে দুদক কর্মকর্তারা দুই দালালকে হাতেনাতে গ্রেফতার করে ভ্রাম্যমাণ আদালতের কাছে দেন। দু’দিনের অভিযানে দালালদের সঙ্গে যোগসাজশের অভিযোগে প্রতিষ্ঠান দুটির জিএম, ডিজিএমসহ চার কর্মকর্তাকে চিহ্নিত করা হয়েছে বলে দুদক জানায়।

এ অভিযান প্রসঙ্গে দুদক এনফোর্সমেন্ট অভিযানের প্রধান মহাপরিচালক মোহাম্মাদ মুনীর চৌধুরী বলেন, এ দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। দুর্নীতিবাজদের অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান করা হবে।

আরো সংবাদ