বদরখালী জেটিতে যাত্রীবাহী ট্রলার ডুবি


নিজস্ব প্রতিবেদক: কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার বদরখালী জেটিঘাটে যাত্রীবাহী লঞ্চ ডুবে প্রায় ৩ লাখ টাকা মূল্যের মালামাল ভেসে গেছে। তবে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় প্রাণে রক্ষা পেয়েছে যাত্রীরা। তবে তাদের মধ্যে এতে নারী শিশুসহ ১৫ জন আহত হয়েছে। যাত্রীদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে । ১৩ ফেব্রুয়ারী দুপুর ১২ টার দিকে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। লঞ্চটি উদ্ধার করতে বদরখালী নৌ-পুলিশ ফাঁড়ি ও মহেশখালী কোস্ট গার্ডের সদস্যরা যৌথ ভাবে চেষ্টা চালিয়েছেন।
জানাগেছে, কুতুবদিয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান শাকের উল্লাহ মালিকানাধীন এমবি সাকিব লঞ্চটি প্রতিদিনের ন্যায় ১৩ ফেব্রুয়ারী সকাল ৮টায় কক্সবাজার কস্তুরা ঘাট থেকে যাত্রী নিয়ে কুতুবদিয়ার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। উক্ত যাত্রীবাহী লঞ্চটি বদরখালী নৌ-অভ্যন্তরীণ জেটিঘাটে নোঙর করে লঞ্চে থাকা নারী-পুরুষদের নিচের কেবিনে বসায়। পরে বদরখালী বাজার থেকে প্রায় ৭০/ ৮০ বস্তা পিয়াজ ও গোল আলু তুলে লঞ্চের উপরের কেবিনে। এ অবস্থায় নোঙর তুলে কুতুবদিয়ার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়ার মুহুর্তে কোন কিছু বুঝে উঠার পূর্বে লঞ্চটি এক পাশে খাত হয়ে যায় ।
এ সময় লঞ্চের ভিতরে থাকা শিশু ও নারী-পুরুষসহ শতাধিক যাত্রী চিৎকার করে পানিতে ঝাঁপ দেয়। তখন উক্ত ঘাটে নোঙরে থাকা মাছ ধরার নৌ-যান ও জেটি থেকে লোকজন গিয়ে তাদেরকে উদ্ধার করে বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করে। এ সময় লঞ্চে থাকা বেশ কিছু মালামাল পানির ¯্রােতে ভেসে যায়। যাত্রীদের অভিযোগ, ট্রলারের মাঝি কথা না শুনে অতিরিক্ত মাল উঠানোর ফলে এমনটি হয়েছে। তারা প্রতিদিন অতিরিক্ত যাত্রী ও মালামাল সিয়ে সদুর কুতুবদিয়া চলাচল করে থাকে। এ বিষয়ে বদরখালী নৌ-পুলিশ ফাঁড়ি’র ইনর্চাজ বলেন, অতিরিক্ত মালামাল নেয়ার কারনে লঞ্চটি দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে। তিনি আরও বলেন এব্যাপারে উদ্ধতন কৃর্তপক্ষের কাছে জানানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*