বদি পরিবারের ১০ সদস্যসহ শতাধিক ইয়াবা ডন এখন সেফহোমে


নিজস্ব প্রতিবেদক: জলদস্যুদের পর এবার আত্নসমর্পণ করতে যাচ্ছে মরণনেশা ইয়াবা কারবারীরা। যাদের মধ্যে শীর্ষ ২৯ জনসহ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ৫৭ জন রয়েছে। ইয়াবার পাশাপাশি তারা জমা দিতে পারে ইয়াবা তৈরীর সরঞ্জাম, টাকা এবং অস্ত্র। একটি বেসরকারী টেলিভিশনের সহযোগিতায় পুলিশের কয়েক মাসের টানা চেষ্টায় আত্নসমর্পণ প্রক্রিয়া সফলতার পথে। ইতোমধ্যে কক্সবাজার জেলা পুলিশের সেফহোমে নেয়া হয়েছে শতাধিক ইয়াবা কারবারী।
আত্নসমর্পণকারীদের মধ্যে বহুল আলোচিত সরকার দলীয় সাবেক এমপি আবদুর রহমান বদির ১০ জন নিকটাত্নীয়সহ শীর্ষস্থানীয় বেশ কয়েকজন ইয়াবা কারবারী রয়েছে। আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারি টেকনাফ পাইলট উচ্চবিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠান ঠিক করা হয়েছে। ওই অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এমপির হাতে ইয়াবা ব্যবসায়ীরা আত্নসমর্পণ করবে।
আত্নসমর্পণের জন্য ইতোমধ্যে সেফহোমে রয়েছে, সাবেক এমপি আবদুর রহমান বদির ভাই আবদু শুক্কুর, আবদুল আমিন, মো. শফিক, মো. ফয়সাল, বেয়াই শাহেদ কামাল, চাচাতো ভাই মো. আলম, ফুফাতো ভাই কামরুল ইসলাম, ভাগিনা সাহেদুর রহমান নিপু, খালাতো ভাই মং মং সিং, টেকনাফ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাফর আহমদের ছেলে দিদার মিয়া, ভাইপো মো. সিরাজ, হ্নীলার ইউপি সদস্য জামাল হোসেন, নুরুল হুদা মেম্বার, তার ভাই নুরুল কবির, টেকনাফ পৌরসভার কাউন্সিলর নুরুল বশর নুরশাদ, নারী কাউন্সিলর কহিনুর বেগমের স্বামী ইয়াবা ডন শাহ আলম, টেকনাফ সদর ইউপি সদস্য এনামুল হক, ছৈয়দ হোসেন মেম্বার, ছৈয়দ আহমদ ছৈতু, শফিকুল ইসলাম, মো. ইউনুছ, একরাম হোসেন, রেজাউল করিম মেম্বার, মোজাম্মেল হক, জোবাইর হোসেন, মারুফ বিন খলিল ওরফে বাবু, মো. ইউনুছ, উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুল্লাহর ২ ভাই জিয়াউর রহমান ও আবদুর রহমানসহ শতাধিক শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী। তাঁদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে ২ থেকে ১৬টি মামলা রয়েছে। ইয়াবা ডন খ্যাত হাজি সাইফুল করিমও আত্নসমর্পণে আসছেন বলে একটি সুত্রে জানা গেছে। এমপি বদির আরেক ভাই পৌর কাউন্সিলর মাওলানা মুজিবুর রহমানও আত্নসমর্পণ করতে পারেন। তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ৭৩ জনের মধ্যে অন্যতম। তবে, আত্নসমর্পণকারীরা ‘সাধারণ ক্ষমা’ পাওয়া আশা করছে।
এদিকে, ইয়াবা ব্যবসায়ীদের অন্ধকার জগত থেকে আলোর পথে ফিরিয়ে আনতে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করেন বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের অনুসন্ধানী প্রতিবেদক আকরাম হোসাইন।
একটি সুত্রে জানা গেছে, আত্নসমর্পণের জন্য ১২০ জনের মতো মাদক ব্যবসায়ী পুলিশের হেফাজতে গেছে। ১৬ ফেব্রুয়ারির আগে এই সংখ্যা প্রায় ২০০ হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
ইতিমধ্যে পুলিশ হেফাজতে থাকা মাদক ব্যবসায়ীদের জিজ্ঞাসাবাদ করে আরও ২০২ জন ইয়াবা কারবারির তালিকা চূড়ান্ত করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। তাঁদের মধ্য থেকে কয়েকজন আত্নসমর্পণের প্রস্তুতি নিচ্ছে।
কক্সবাজার জেলা গোয়েন্দা পুলিশের সর্বশেষ ইয়াবা ব্যবসায়ীর তালিকায় ১ হাজার ১৫১ জনের নাম রয়েছে। এর মধ্যে ৭৩ জন প্রভাবশালী ইয়াবা কারবারি (গডফাদার)। তাঁদের ৬৬ জনই টেকনাফের বাসিন্দা।
গত বছরের ৪ মে থেকে দেশজুড়ে মাদকবিরোধী অভিযান শুরু হয়। এরপর আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও সন্ত্রাসীদের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধে শুধু কক্সবাজার জেলায় ৪৪ মাদক ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে টেকনাফে মারা গেছে ৪০ জন।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সব ক’টি তালিকায় পৃষ্ঠপোষক হিসেবে আবদুর রহমান বদি ও ইয়াবা গডফাদার হিসেবে তাঁর পাঁচ ভাই, এক বোনসহ ২৬ জন নিকটাত্নীয়ের নাম রয়েছে।
পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন জানান, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এমপি ১৫ ফেব্রুয়ারি সকালে বিমানযোগে কক্সবাজার পৌঁছবেন। একইদিন তিনি জেলা পুলিশ ও পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে ইয়াবাবাজদের আত্নসমর্পণের সার্বিক প্রস্তুতি ও অনুষ্ঠানে ইয়াবাবাজদের কি কি করা হবে, এবিষয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত দিতে বৈঠক করবেন।
পরদিন শনিবার সকাল ১০ টায় টেকনাফে ইয়াবাবাজদের আত্নসমর্পণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে যোগ দেবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। অনুষ্ঠান সার্বিক তদারকী করার জন্য আইজিপি মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী ১৪ ফেব্রুয়ারি বিকেলে বিমানযোগে কক্সবাজার আসছেন। ১৫ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের জন নিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দিন, ১৪ ফেব্রুয়ারি পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক ও কক্সবাজার আসছেন। অনুষ্ঠানে পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন সভাপতিত্ব করবেন। ইয়াবাবাজদের আত্নসমর্পণ অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি দেখভাল করার জন্য চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি মোহাম্মদ আবুল ফয়েজ ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে কক্সবাজারে অবস্থান করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*