মাদক কারবারিদের জন্য বাংলাদেশ হবে একটি নিষিদ্ধ দেশ

মমতাজ উদ্দিন বাহারী কক্সবাজার : মাদক কারকারিদের জন্য বাংলাদেশ একটি নিষিদ্ধ দেশ হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এমপি। ১৬ ফেব্রুয়ারি বেলা ১১টার দিকে কক্সবাজারের টেকনাফ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ইয়াবা কারবারীদের আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মাদক ব্যবসায়ীদের জন্য বাংলাদেশ হবে একটি নিষিদ্ধ দেশ। এদেশে মাদক উৎপাদন হয় না, অন্যদেশ হতে এদেশের চোরাকারবারীদের মাধ্যমে মাদক প্রবেশ করে। এসব মাদক কারবারিদের ছাড় দেয়া হবে না। তাদের প্রত্যেককে আইনের আওতায় আনা হবে। এর আগে টেকনাফের ১০২ জন মাদককারবারি ও মাদক পৃষ্ঠপোষক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নিকট আত্মসমর্পণ করে। এ সময় তারা ৩ লাখ ৫০ হাজার ইয়াবা ও ৩০টি দেশীয় পিস্তল ও ৭০ রাউন্ড তাজা কার্তুজ জমা দেন।

এ সময় আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করেছেন। সে নীতি প্রতিপালনে আমরা অবিচল। বাংলাদেশের কক্সবাজারের ১৯৩ কিলোমিটার সীমান্ত দিয়ে মাদক প্রবেশ করে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সমন্বিত অভিযান ও প্রচেষ্টায় সীমান্তে মাদক প্রবেশ বন্ধ করা হবে। মন্ত্রী বলেন, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো সদস্য যদি মাদক কারবারীদের সহযোগী হয় তাহলে তাদেরও মাদক কারবারীদের মতো একই পরিণতি ভোগ করতে হবে।

যারা আত্মসমর্পণ করেছেন তাদেরকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে আইনি সহযোগিতা প্রদানসহ তাদের পুনর্বাসনে সহযোগিতার কথাও বলেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, বর্তমান বিশ্বে উন্নয়নের এক বিস্ময় নাম বাংলাদেশ। বাংলাদেশকে বাঁচাতে হলে দেশকে মাদকমুক্ত করতে হবে। মাদকমুক্ত করার জন্য যা যা করা দরকার সরকার তাই করবে। যারা এখনও মাদক ব্যবসা করছেন তাদেরকে দ্রুত মাদক ব্যবসা ছেড়ে আত্মসমর্পণের আহ্বান জানান তিনি।

আত্মসমর্পণকারীদের উদ্দেশে মন্ত্রী বলেন, আপনারা আল্লাহ কাছে মাফ চান। আপনারা ভালো হয়ে যান। দেশ ও জাতির ভবিষ্যত গঠনে এগিয়ে আসুন। আর যারা এখনও আত্মসমর্পণ করেন নাই, তারা দ্রুত আইনের কাছে আত্মসমর্পণ করুন। না হলে ইয়াবা কারবারি যত বড় শক্তিশালি হোক না কেন তাদের অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে।

কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আইজিপি ড. মো. জাবেদ পাটোয়ারী, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দিন, জেলা প্রশাসক কামাল হোসেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল, শাহিন আক্তার, জাফর আলম, আশেক উল্লাহ রফিক, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমেদ চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সিরাজুল মোস্তফাসহ পদস্থ সরকারি কর্মকর্তাসহ প্রমুখ।

এদিকে ইয়াবা কারবারি আত্মসমর্পণ নিয়ে মানুষের মাঝে কৌতূহলের শেষ নেই। ইতিমধ্যে এমপি বদির ৩ ভাই, ভাগিনা, ফুফাতো ভাইসহ ৭ জন আত্মসমর্পণ করেছেন। অনুষ্ঠান শেষে আত্মসমর্পণকারিদের কক্সবাজার পুলিশ লাইনে নিয়ে যাওয়া হয় এবং প্রত্যেকের বিরুদ্ধে নতুন করে মামলা রুজু করে কারাগারে পাঠানোর কথা রয়েছে। অবশেষে বহুল আলোচনা-সমালোচনা শেষে সরকারের দেয়া বিভিন্ন শর্তে আত্মসমর্পণ করেছেন ১শ’ ২ ইয়াবা কারবারী।

প্রসঙ্গত, গত বছর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ তালিকায় কক্সবাজার ও টেকনাফের ১১৫১ জন মাদক ব্যবসায়ীর নাম আসে। তারমধ্যে ৭৩ জন শীর্ষ মাদক কারবারী নাম আছে। তালিকার মধ্যে সাবেক সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদিসহ তার পরিবারের ২৬ জন সদস্য রয়েছে। তাছাড়া টেকনাফ ও কক্সবাজার অঞ্চলের আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জামায়াতসহ বিভিন্ন দলের নেতাদের নাম আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*