সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯ ১১ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সোমবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৯-০৩-০২ ১১:৪৭:৩৪

অস্তিত্ব সংকটে কক্সবাজারের ঐতিহ্যবাহী বাঁকখালী নদী


জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার: পর্যটন রাজধানী কক্সবাজারের অর্থনীতির প্রাণ-প্রবাহ নামে খ্যাত বাঁকখালী নদীটি আজ অস্থিত্ব সঙ্কটে পড়েছে। তবে সম্প্রতি সরকার এই নদী রক্ষায় উদ্যোগ নিলেও বেশিরভাগ জায়গা দখল হয়ে যাওয়ায় কচ্ছপ গতিতে চলছে ড্রেজিং প্রকল্প। তাই দ্রুত নদীটি দখলমুক্ত করার দাবী জানিয়েছেন পরিবেশবাদীরা।
জানাযায়, এক সময় বড় বড় জাহাজ থেকে পণ্য উঠা-নামার ঘাট ছিল বাঁকখালী নদীর কস্তুরাঘাট পয়েন্ট। যেখানে হাজারো শ্রমিক এসব কাজ করতেন। ষাটের দশকের দিকে জাহাজে করে ঢাকা-চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাত্রী পরিবহনের একমাত্র অবলম্বন ছিলো এই নদী। অসংখ্য বাঁকে ভরা বলেই নদীটির নাম হয়েছিলো বাঁকখালী। তবে রাখাইন ইতিহাস বলছে, বাগোলী নামে এক বর্মি সেনা প্রধানের নাম থেকেই উৎপত্তি এই বাঁকখালী শব্দটির।
নদীটি কক্সবাজার শহর লাগোয়া হওয়ায় দু’পাশের বেশিরভাগ চরাঞ্চল দখল করে স্থাপনা গড়ে তুলেছেন প্রভাবশালীরা। এদের মধ্যে বসতবাড়ি বানিয়ে শীর্ষ দখলবাজের তালিকায় রয়েছে আবদুল খালেক, রফিকুল হুদা, ছালেহ আহমদ। এছাড়া জাহাঙ্গীর কাশেমের আল্লাহওয়ালা হ্যাচারী ও নাজিম উদ্দিনের সাইনবোর্ড সম্বলিত প্যারাবন দখলসহ অসংখ্য রথি-মহারথির নাম আছে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ৪শ’ জনের তালিকায়।
কক্সবাজার শহরের ময়লা আবর্জনা ফেলে ভরাট হচ্ছে নদীর উপরিভাগ। বছরের পর বছর বন্ধ হয়ে আছে সু-ইস গেইট। ফলে বর্ষা মৌসুমে ভয়াবহ জলাবদ্ধতার কবলে পড়ে পর্যটন শহর।
অন্যদিকে এসব দখলদাররা প্রকাশ্যে তাদের দখল কাজ চালিয়ে গেলেও প্রশাসনের টনক নড়েনি। এনিয়ে এ ঐতিহ্যবাহী নদীটির অস্থিত্ব নিয়ে আশংকা দেখা দিয়েছে। নদীর চারপাশ দ্রুত দখলমুক্ত করা না হলে ক্রমান্বয়ে সরু হয়ে খালে পরিণত হবে বলে মনে করছেন পরিবেশবাদী সংগঠনের নেতারা।
কক্সবাজার সিভিল সোসাইটি সহ-সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার কানন পাল বলেন, এক দিকে উচ্ছেদ করে আসলে অন্যদিকে দখল করে বসে তারা। এসব দখলদারদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া না হলে কোনকিছুই সম্ভব নয়।
কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান জানান, দখলদারদের একটি নোটিশ দেয়া হয়েছে। বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে তারা অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে না নিলে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে। কোনভাবে বাঁকখালী নদী দখল করতে দেয়া হবে না। শহরের ময়লা আবর্জনার জন্য ডাম্পিং স্টেশন করা হচ্ছে। এটি চালু হলে ময়লা ডাম্পিং স্টেশনে নিয়ে যাওয়া হবে। মেয়র মুজিবুর রহমান আরও জানান, কক্সবাজার পৌরসভার ৬২ একর জমি ছিল। এখন ৬২ শতকও নেই। সবাই দখল করে নিয়েছে। এসব দখলের কারণে এখন পৌর শহরে জলবদ্ধতা সৃষ্টি হচ্ছে।
জানা গেছে, বাঁকখালী নদীর দৈর্ঘ্য ৯০ কিলোমিটার। এর মধ্যে ২৫ কিলোমিটার এলাকায় রয়েছে অবৈধ দখলদারদের বিভিন্ন স্থাপনা। অবৈধ দখলদারদের হাত থেকে বাঁকখালী নদী বাঁচাতে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে আসছে স্থানীয় সামাজিক সংগঠনগুলো। এসব আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে এবং হাইকোর্টের নির্দেশে বাঁকখালী নদীর ২ তীরে অবৈধ দখলদারের একটি তালিকা তৈরি করেছে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন। বিষয়টি নিশ্চিত করে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আশরাফুল আফসার বলেন, নদী বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর দর্শন নিয়ে কাজ শুরু করেছে জেলা প্রশাসন।

আরো সংবাদ