সদরে সংযোগ ব্রীজে ভাঙ্গা পাটাতনে ঘটছে দুর্ঘটনা!

নিজস্ব সংবাদদাতা কক্সবাজার: কক্সবাজার সদর উপজেলার পোকখালী ইউনিয়নে গোমাতলী সংযোগ ব্রীজের কয়েকটি পাটাতন ভেঙ্গে যাওয়ায় যানবাহন চলাচলে ব্যাঘাত হচ্ছে। গত ১ মাস ধরে ওই ব্রীজটির কয়েকটি লোহার পাটাতন ভেঙ্গে পড়ায় যানবাহন চলাচল বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। এ অবস্থায় যাতায়াতকারী যাত্রী সাধারণ ও পরিবহন চালক-শ্রমিকদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বিভিন্ন সময় ঘটছে দুর্ঘটনা। ১২ মার্চ সরেজমিন সড়কের ওই ব্রীজ এলাকায় গেলে দুর্ভোগের এমন চিত্র দেখা যায়।
ব্রীজের একাধিক পাটাতন ভেঙ্গে যাওয়ায় অত্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে সিএনজি, অটোরিকশা, ইজিবাইক, মোটরসাইকেল ও ভ্যানগাড়ীর মতো ছোট ছোট যানাহন চলাচল করছে। এতে যেকেনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। গোমাতলী থেকে ঈদগাঁও-কক্সবাজার যাতায়াতের জন্য এ সড়কটি ব্যবহৃত হয়। এ ছাড়াও লবণ মৎস্য চাষীরা এ সড়কে বেশি চলাচল করে থাকে।
স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ব্রীজের পাটাতন ভাঙ্গা অংশে কোন প্রকার বিপজ্জনক সংকেত বা লাল নিশানা না থাকায় যেকোন মুহুর্তে বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংকা রয়েছে। তারা বলেন, রাতে ভাঙ্গা ব্রীজের আশপাশে বাতি বা আলোর ব্যবস্থা না থাকায় অনেকেই ব্রীজের ভাঙ্গা পাটাতনের ভেতর পড়ে যান।
এলাকার ব্যবসায়ীরা জানান, স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত লবণ মাছ এ সড়কে পরিবহনে অবনর্ণীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এ সড়কে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ, অসংখ্য যাত্রীবাহী ও মালবাহী গাড়ী চলাচল করে থাকে।
কক্সবাজার সদর উপজেলা এলজিইডি প্রকৌশলী বলেন, প্রতিবছরই ওই বেইলী ব্রীজের পাটাতন ভেঙ্গে পড়ে। তাই প্রতিবছরই মেরামত করা হয়। এছাড়া যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক করতে প্রাথমিকভাবে সংস্কার কাজ দ্রুত করা হবে বলে জানান তিনি।
এদিকে সরেজমিন এলাকা ঘুরে এবং স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বিগত কয়েক বছর পূর্বে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) সদর কক্সবাজার এ সড়কের গোমাতলী সংযোগ ব্রীজ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করেন। এর পরপরই গোমাতলী রাজঘাট সড়ক সম্প্রসারণ কাজ হলে গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কে যান চলাচল বৃদ্ধি পায়। যানবাহন বৃদ্ধির সাথে সাথে এ সড়ক দিয়ে কোটি টাকার লবন ও চিংড়ি পরিবহন বাড়তে থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*