ক্ষতিপুরণের ২২ কোটি টাকা লুটপাট!

 নাটের গুরু কানুনগো শাহনেওয়াজ কুতুবী, সার্ভের রফিক দালাল- বাহাদুর ও জালাল সিন্ডিকেট * ভুঁয়া অবকাঠামো দেখিয়ে টাকা উত্তোলন  * ভূঁয়া পরিচয়পত্র সৃজন করলেন দালালরা * নামে-বেনামে মালিক দেখিয়ে টাকা উত্তোলন, * ক্ষেত্র বিশেষে কমিশন ৩০ থেকে ৪০ পার্সেন্ট * এলও অফিস, দালালদের কমিশন ৩০ থেকে ৪০ পার্সেন্ট ! * ২২ দফা নোটিশ গোপন করে হয়রানী

নিজস্ব প্রতিবেদক:  রেকর্ড সংখ্যক আসন নিয়ে টানা তৃতীয় বারের মতো ক্ষমতায় আসার পর পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মন্ত্রী পরিষদের প্রথম বৈঠকে ঘোষনা করেন মাদক ও দুর্ণীতির বিরুদ্ধে তাহার সরকার জিরো টলারেন্সে থাকবে। কিন্তু কক্সবাজার এলও অফিসে দিনেরপর দিন অফিসের কিছু কর্মকর্তার যোগ সাজসে এবং কিছু দালাল নিয়ে একটি সিন্ডিকেট করে বারবার দুর্ণীতি করে যাচ্ছে জেলার উপকূলে বাস্তবায়নাধীন সরকারের মেঘা প্রকল্পগুলোর জমি অধিগ্রহণের বেলায়। কিছু দিন আগে মাতারবাড়ী কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের ১২১২ একর জমি অধিগ্রহণের সময় দুর্ণীতি করে বর্তমানে জেলার ঘানি টানছে তৎকালীন জেলা প্রশাসক। অথচ বিদ্যুৎ গ্যাস, ও রেল লাইনসহ বিভিন্ন প্রকল্পগুলোর জমি অধিগ্রহণের টাকা নিয়ে দুর্ণীতির শেষ হচ্ছেনা। সাধারণ মানুষ হয়রানীর শিকার হচ্ছে অহরহ। এ যেন এক এলাহী কা-। জেলা প্রশাসক কয়লা বিদ্যুতের দালালদের তালিকা করে প্রকাশ করেছিল। আর এখন সবচেয়ে বড় দুর্ণীতিটা হচ্ছে, মহেশখালীর কালারমারছড়া এসপিএম প্রকল্পের আওতায় মামলা নং -০৮/১৭-২০১৮ কেসের মাধ্যমে সরকারের প্রয়োজনে হুকুম দখল/অধিযাচনকৃত জমির ক্ষতিপুরণ নিয়ে। এজন্য সোনার পাড়া, চিকনি পাড়া, এলাকায় পাহাড়ী জমিসহ ধান্য জমি অধিগ্রহণ করে সরকার। আর এ অধিগ্রহণের জমির, অবকাঠামো, স্থাপনার ক্ষতিপুরণের টাকা ২২ কোটি হরিলুট করেছে বিভিন্ন উপায়ে এমন অভিযোগ করেছে। ভুক্তভোগীরা গত মঙ্গলবার এলাকায় মানববন্ধন ও কক্সবাজার জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি অভিযোগপত্র ও প্রদগান করে প্রকৃত জমির মালিক, চাষা ও ভোগদখলকারী। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, অধিগ্রহণ করা জরি পানবরজের ক্ষতিপুরণের প্রায় ২২ কোটি টাকা লোপাট করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয় ভুক্তভোগীরা। কিছু জমির প্রকৃত মালিকের টাকাও লুটপাট করা হয়েছে। ভুমি অধিগ্রহণ শাখার লোকজন ও স্থানীয় কিছু লোকজন সিন্ডিকেট করে এসব টাকা লুটপাট করেছে অভিযোগ করেন তারা। এ ই বিশাল দুর্নীতির খবর প্রকাশ হওয়ার পর ভুক্তভোগীরা চরম ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে। এর প্রতিকার চেয়ে তারা জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন প্রকৃত জমির মালিক, চাষা ও ভোগদখলকারী। অভিযোগ মত্রে জানা যায়, কালারমারছড়ায় সোনারপাড়ায় সরকার বিপুল জমি অধিগ্রহণ করছে। এটি কালারমারছড়া ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড। অধিকাংশ জমিতে বর্তমানে পানবরজ রয়েছে। প্রায় দেড়শ পানচাষী পানবরজ চাষ করছেন ঐ জায়গায়। অধিগ্রহণের আওতায় পড়ায় জমিগুলো দখলে নিতে পানবরজ গুটিয়ে নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তথ্য মতে, এসব জমি  ও জমির অবকাঠামোর জন্য একর প্রতি ৬২ লাখ টাকা ক্ষতিপুরণ ধার্য্য করা হয়েছে। অবকাঠামো হিসেবে রয়েছে পানের বরজ। টাকা ছাড় দেয়ার জন্য ২২ ধারা নোটিশ জারি করে ভুমি অধিগ্রহণ শাখা। ২২ ধারায় জমির মালিক ও পানবরজের ক্ষতিগ্রস্থদের জন্য নির্দিষ্টভাবে ক্ষতিপুরণের টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। কিন্তু কিছু জমির মালিক ও ভুমি অধিগ্রহণ শাখার কর্মকর্তাদের সাথে যোগসাজস করে ২২ ধারা নোটিশ গোপন করে প্রকৃত মালিকদের অগোচরে প্রায় ২২ কোটি টাকা তুলে নিয়েছে। এসব টাকা ভুমি অধিগ্রহণ শাখার লোকজন ও ওই স্থানীয় অসাধু ব্যক্তিরা অর্ধেক অর্ধেক ভাগ-ভাটোয়ারা করে নিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা। জেলা প্রশাসককে দেয়া অভিযোগপত্র মতে, টাকা লোপাটের এই সিন্ডিকেটের রয়েছেন চিকনী পাড়ার মৃত হোছন আলীর পুত্র নুরুল ইসলাম বাহাদুর, নোয়াপাড়ার মৃত ফলাতলের পুত্র আব্দুল মান্না কানু, চিকনী পাড়ার ছৈয়দ আহমদের পুত্র আবদুস সালাম ও নুরুল ইসলাম, ভুমি অধিগ্রহণ শাখার কানুনগো শাহওনেয়াজ কুতুবী, সার্ভেয়ার ফরিদুল আলম। ভুক্তভোগী সোনারপাড়ার রিদুয়ান ও বদি আলম বলেন,  মূলতঃ কানুনগো শাহনেওয়াজ কুতুবী, সার্ভেয়ার ফরিদুল আলম, মোঃ ওয়াসিম খান, আব্দুল কাইয়ুম, চিকনী পাড়ার নুরুল ইসলাম বাহাদুর, সোনার পাড়ার জালাল উদ্দিন, ও জামাল হোছন, সোনারপাড়ার মৃত জাফর আহমদ এর পুত্র  মোহাম্মদ হোছাইন (ড্রাইভার) ও ৬নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার আহমদ উল্লাহ সহ কিছু স্থানীয় দালাল সিন্ডিকেট করে উক্ত ২২ কোটি টাকা হরিলুট করে। নেপত্যে ভুমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা এলও রেজাউল করিম ও ছিলেন এমনটি জানালেন নয়াপাড়ার আবুল ফজল ও ও মোহাম্মদ হোছন। অনেকে বলেন যারা ৩০ থেকে ৪০ পার্সেন্ট কমিশন দিতে রাজী হয়েছে, তাদের ফাইলগুলো চলমান আছে। আর অনেক ভুয়া দলিল সৃজন করে, ও ভুয়া চাষা হয়ে টাকা লুট করা হয়েছে বলেও জানান তারা। বিদেশ থাকা ওয়ারিশের স্বাক্ষর নিতে সরকারী নিয়ম নীতির তোয়াক্ষা করেনি সিন্ডিকেট। অনেক প্রকৃত চাষা ও মালিকা ভুয়া কাগজ সৃজনের কারণে তাদের ন্যায্য অধিকার বঞ্চিত হয়েছে বলে জানান। সমাবেশে সোনারপাড়ার আমান উল্লাহ জানান, তার রেকর্ডীয় ৭০ শতক জমি অধিগ্রহণের আওতায় পড়েছে। তিনি দীর্ঘদিন গুরুতর অসুস্থ হয়ে চট্টগ্রামের এক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন । সেই সময় তার অনুপস্থিতির সুযোগে দুর্নীতিবাজ চক্র তার জমির ক্ষতিপুরণের টাকা তুলে নিয়েছে। ভুয়া দলিল সৃজন করে সাবেক মেম্বার আব্দুল হকের পুত্র সাইফুল ইসলাম গং টাকা তুলে নিয়েছে । নয়া পাড়ার আবুল ফজল বলেন তারা তাদের ক্ষতিপুরণের একটি টাকাও তুলতে পারেনি । স্থানীয় মৃত মনুর দু’স্ত্রী মাহমুদা ও হামিদা জানান, স্বামীর ওয়ারিশসূত্রে মাহমুদা ও হামিদা ৮০ শতক করে জমি পেয়েছেন। এসব জমি গত ২০ বছর ধরে পানচাষ করা হচ্ছে। অধিগ্রহণের আওতায় পড়ায় তাদের ২০ ধারা নোটিশও পেয়েছেন। কিন্তু টাকা উত্তোলনের ২২ ধারা নোটিশ পাননি। পরে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন তাদের জমির দেড়কোটি টাকা তুলে নিয়েছে দুর্নীতিবাজ চক্র। এই কথা বলে গতকাল গণমাধ্যমকর্মীদের সামনে কান্নায় লুটিয়ে পড়েন। তারা দু’জন । সোনারপাড়া পানচাষী জামাল উদ্দীন, তাজ উদ্দীন, আবুল হোসনসহ অন্যান্য পানচাষীরা জানান, একর প্রতি প্রায় তিন লক্ষ টাকা লায়িগত দিয়ে তারা পান বরজ চাষের জন্য জমিগুলো লায়িত নিয়েছেন। চাষাবাদের জন্যও আরো কয়েকগুণ টাকা খরচ হয়েছে। বর্তমানে পানবরজগুলোতে আয়ের দিন শুরু হয়েছে। এই মুহুর্তে পানবরজগুলো গুটিয়ে দেয়ার উদ্যোগ নেয়অ হয়েছে। কিন্তু তারা ক্ষুতিপুরণের আওতায় এসে ২০ ধারা নোটিশ পেলেও চূড়ান্তভাবে ২২ ধারা নোটিশ পাননি। খোঁজ নিয়ে জেনেছে- তাদের টাকা গুলো তুলে নেয়া হয়েছে। তারা বলেন- এত টাকা খরচ করে করা পানবরজ গুলো চলে গেলে তারা নিঃস্ব হয়ে যাবেন। এদিকে তারা ক্ষোভের সাথে জানান, টাকা লোপাটের সাথে জড়িতদের দিয়ে করানো তদন্ত সঠিক হবে না। তাই নিরপেক্ষ সরকারি কর্মকর্তা বা কোন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দিয়ে স্বচ্ছভাবে তদন্ত করারও দাবি জানান তারা। এ ব্যাপারে কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এড. সিরাজুল মোস্তফা বলেন, ‘ক্ষতিপুরণের ২২ কোটি টাকা লোপাট করার ঘটনাটি আমি জেনেছি। এটা নিয়ে আমি জেলা প্রশাসকের সাথে কথা বলেছি। তিনি বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নিবে বলে জানিয়েছেন। টাকা লোপাটকারীদের কোনোভাবেই ছাড় দেয়া হবে না। এর জন্য যেখানে যেতে হয় আমি সেখানে যাবো। জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন বলেন, ‘ক্ষতিগ্রস্ত লোকজন আমার কাছে অভিযোগ নিয়ে এসেছিল। তাদের অভিযোগ গুরুত্বসহকারে নিয়ে আমি দ্রুত তা তদন্ত করার ব্যবস্থা করেছি। তদন্তে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রমাণ পেলে কঠো পদক্ষেপ নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*