খাদ্যমন্ত্রীর মেয়ের বিরুদ্ধে স্বামীকে হত্যার অভিযোগ!

নিজস্ব প্রতিবেদক: খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের জামাতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসক রাজন কর্মকার মারা গেছেন। রোববার ভোর পৌনে ৪টার দিকে তাকে রাজধানীর বেসরকারি হাসপাতাল স্কয়ারে নেওয়া হয়। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আসাদ বলেন, মৃত অবস্থায়ই রাজনকে হাসপাতালে আনা হয়।

এদিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ওরাল অ্যান্ড মেডিসিন সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রাজন কর্মকারের মৃত্যু অস্বাভাবিক দাবি করেছেন তার সহকর্মীরা। তারা তার ময়নাতদন্তের দাবিতে বিক্ষোভ করছেন।

এদিকে রাজন কর্মকারের পরিবারের অভিযোগ তার মৃত্যু অস্বাভাবিক। তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে আশঙ্কা করছেন তারা। হাসপাতালে রাজনের মামা সুজন কর্মকার সাংবাদিকদের বলেন, রাজনের বাবা-মা ময়নাতদন্তসহ এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেছেন। এজন্য ময়নাতদন্তসহ যা যা করণীয় তা করার অনুরোধ জানিয়েছেন যাতে কারও মনে কোনো সন্দেহ না থাকে। ময়নাতদন্তের দাবি নিয়ে তিনি শেরে-বাংলানগর থানায় যাচ্ছেন বলেও জানান।

নিহতের চাচাত ভাই অভি বলেন, ‘রাজন ভাইয়ের সঙ্গে তার স্ত্রীর সম্পর্ক খারাপ যাচ্ছিল। এর আগে একাধিকবার তাকে মারধর করা হয়েছিল। এ জন্য আমাদের সন্দেহ তাকে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে। আমরা তার লাশের ময়নাতদন্ত করাতে চাই।’

সুজন কর্মকার বলেন, ‘রাতে রাজনের স্ত্রী কৃষ্ণা আমার বোনকে ফোনে বলেছে যে, আপনার ছেলে মারা গেছে, আমি আপনাদের দেখে নেবো, নিজেও সুইসাইড করবো। আপনাদের শান্তিতে থাকতে দেবো না। আমাকে আমার বোন (রাজনের মা) ভোর সাড়ে ৪টার দিকে ফোন করে কাঁদতে কাঁদতে বলে, রাজন মারা গেছে, মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে আমি হাসপাতালে ছুটে আসি।’

রাজনের সহকর্মী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের নিউরোলোজি বিভাগের চিকিৎসক শাহ নেওয়াজ বারী জানান, এখন আমরা এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত চাই। কারণ এর আগেও এমন কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে। তাই আমরা উদ্বিগ্ন হয়ে সহকর্মীরা সবাই ছুটে এসেছি। এটার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করছি।

বিএসএমএমইউ এর ওরাল অ্যান্ড ম্যাক্সিলোফেসিয়াল সার্জারি (ওএমএস) বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. কাজী বিল্লুর রহমান বলেন, ‘রাজনের পরিবারের লোকজন লাশের ময়নাতদন্ত চায়, সেক্ষেত্রে কারও কোনও আপত্তি নেই। আমি মন্ত্রী মহোদয়ের সঙ্গে কথা বলেছি, ময়নাতদন্তে তাদের কোনও আপত্তি নেই। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল মর্গে নিয়ে যাওয়া হবে।’ তিনি বলেন, ‘বিএসএমএমইউ এর সব চিকিৎসক ও শিক্ষার্থীরা এখানে এসেছে। সবার দাবি, ঘটনার একটি সুষ্ঠু তদন্ত হোক।’

বিকেল শেরে-বাংলানগর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) তোফাজ্জল হোসেন বলেন, ‘এখন পর্যন্ত আমাদের থানায় কোনো অভিযোগ যায়নি। খবর পেয়ে নিজ উদ্যোগে আমরা হাসপাতালে এসেছি। পরিবার থেকে অভিযোগ করা হলে ময়নাতদন্তসহ পরবর্তী সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

শেরে-বাংলানগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জানে আলম বলেন, দুপুরে মন্ত্রীর লোকজন স্কয়ার হাসপাতালে গেলে মৃতের পরিবারের লোকজনের সঙ্গে বাদানুবাদের সৃষ্টি হয়।

জানা গেছে, রাজনের স্ত্রী কৃষ্ণা চন্দ্র মজুমদারও বিএসএমএমইউ’র জেনারেল সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক। তারা দুজন ৪৭ ইন্দিরা রোড, তেজগাঁওয়ের হাসেম বাড়ির ৩/সি ফ্ল্যাটে থাকতেন।

নিহতের স্বজনরা জানান, শনিবার (১৭ মার্চ) গ্রিন লাইফ হাসপাতালে প্রাইভেট প্র্যাকটিস শেষে রাত ১২টায় বাসায় ফেরেন ডা. রাজন। রাত সাড়ে ৩টায় নিহতের মাকে ফোন করে তার স্ত্রী কৃষ্ণা মজুমদার জানান, রাজন রাতে মারা যাবে। পরে তারা জানতে পারেন, রাজনকে রাতে স্কয়ার হাসপাতালে নিলে, চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহত চিকিৎসকের স্ত্রী খাদ্য মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের মেয়ে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*