কক্সবাজার মেডিকেলে দুর্নীতি : ১৪ জনকে নোটিশ

সংবাদ ডেস্ক:

image

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যন্ত্রপাতি কেনাকাটার নামে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার তথ্য পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদকের উপপরিচালক সামছুল হকের নেতৃত্বাধীন টিম অনুসন্ধন করতে গিয়ে সরকারি এ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কেনাকাটায় দুর্নীতির সঙ্গে স্বাস্থ্য অধিফতরের সাবেক হিসাব রক্ষণ আবজাল ও তার স্ত্রী রুবিনা খানম, স্বাস্থ্য অধিফতরের পরিচালক (মেডিকেল শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. আবদুর রশিদসহ ১৪ জনের সংশ্লিষ্টতা পেয়েছে। এর আগে গত ৯ জানুয়ারি কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপতালসহ সরকারি ৫টি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের যন্ত্রপাতি কেনাকাটার তথ্য চেয়ে চিঠি পাঠিয়েছিল দুদক। দুর্নীতির অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে অনুসন্ধান টিম কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নথিপত্র যাচাই করে কোটি টাকা দুর্নীতির তথ্য পেয়েছে। এদিকে অভিযোগের বিষয়ে বক্তব্য জানতে আবজাল দম্পতি, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. সুবাহ সাহা, স্বাস্থ্য অধিফতরের পরিচালক অধ্যাপক ডা. আবদুর রশিদসহ ১৪ জনকে ১ থেকে ৩ এপ্রিলের মধ্যে দুদকের কার্যালয়ে হাজির থাকতে গতকাল নোটিশ পাঠিয়েছে দুদকের অনুসন্ধান কর্মকর্তা।

অনুসন্ধান সংশ্লিষ্ট সম্পদের মালিক হওয়া স্বাস্থ্য অধিদফতরের তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারী বরখাস্ত হওয়া হিসাব রক্ষণ (মেডিকেল শিক্ষা বিভাগ) আবজাল ও তার স্ত্রী সাবেক স্টেনো কিপার এবং রহমান ট্রেডিংয়ের মালিক রুবিনা খানম, স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (মেডিকেল শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. আবদুর রশীদ, সাবেক অধ্যক্ষ মোহাম্মদ রেজাউল করিম, কমিউনিটি মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মায়েনু, মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মো. ফরহাদ হোসেন, সহযোগী অধ্যাপক মুহাম্মদ নুরুল আলম, সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শাখাওয়াত হোসেন ও শহিদুল হক, মাইক্রোবায়োলোজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ আবদুল মাজেদ, হেপাটোলোজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আবুল বরকত মোহাম্মদ আদনান, এনাটমি বিভাগের প্রভাষক আশরাফুল ইসলাম, প্যাথলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক কামরুল হাসান, স্টোর কিপার আবু জায়েদ ও হিসাবরক্ষক হুররমা আক্তার খুকীর বিরুদ্ধে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যন্ত্রাংস কেনাকাটার নামে টেন্ডার বাণিজ্যে জড়িয়ে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। এ অভিযোগের বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ওই ১৪ জনকে তলব করে গতকাল নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

দুদক সূত্র জানায়, এর মধ্যে স্বাস্থ্য অধিদফতরের ভুয়া টেন্ডারের মাধ্যমে অর্থ আত্মসাত, কেনাকানায় দুর্নীতিসহ অন্যান্য দুর্নীতির অভিযোগের অংশ হিসেবে স্বাস্থ্য অধিদফতরের বরখান্ত হওয়া হিসাব রক্ষণ আবজাল ও পরিচালক (মেডিকেল শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. আবদুর রশিদকে জিজ্ঞাসাবাদও করেছে দুদক। এরপর আবজাল ও তার স্ত্রীর নামে হাজার কোটি টাকার অবৈধ সম্পদের তথ্য পাওয়া যায়। ওইসব সম্পদ চিহ্নিতও করেছে দুদক। এর মধ্যে আবজালকে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। আবজাল দম্পতিসহ কয়েকজনের বিষয়ে বিদেশ যাত্রায়ও নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিলো দুদক। তবে আবজাল দম্পতির কোন খোজ পাওয়া যাচ্ছে না। ধারণা করা হচ্ছে আবজাল দম্পতি দেশত্যাগ করে তাদের অষ্ট্রেলিয়ার বাড়িতে আত্মগোপনে আছেন। তবে তারা সত্যিই দেশত্যাগ করেছে কিনা তা নিশ্চিত হতে গত ১৩ মার্চ পুলিশের বিশেষ শাখার ইমিগ্রেশন বিভাগে তথ্য চাওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*