মাটির নিচে খাদ্য গুদামের চাল! দেখার যেনো কেউ নেই


নিউজ কক্সবাজার:কক্সবাজার সদর উপজেলার ঝিলংজা খাদ্যগুদামে উন্নত মানের চাল বাহিরে বিক্রি করে দিয়ে নষ্ট চাল গুদামঘরে রাখার অভিযোগ উঠেছে। নষ্টচাল গুলো খাবার অনুপযোগী হওয়ায় অত্যন্ত গোপনে মাটির নিচে পুঁতে ফেলার ঘটনা ঘটেছে। খাদ্যগুদাম কর্মকর্তা (ওসি এলএসডি) এর সহযোগীতায় দীর্ঘদিন যাবত নানাভাবে চাল নিয়ে চালবাজি ও দুর্নীতির চলে আসছে। স্থানীয়রা জানিয়েছে, খাদ্য গুদামের পেছনে শতশত চাল ভর্তি বস্তা মাটির নিচে পুঁতে ফেলা হয়েছে। এবিষয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন রহস্যজনক ভাবে নিরব রয়েছে।
জানাগেছে, কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ও কক্সবাজার জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যালয়ের আওতাধীন ঝিলংজা খাদ্যগুদামে ৩ হাজার বস্তা চাল মজুত রাখা হয়েছিল। এই চালগুলো দেখভাল করার দায়িত্বে রয়েছে জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যালয়ের অফিস সহকারী বিপ্লব বাবু।
সরেজমিনে দেখা গেছে, কয়েক শতাধিক বস্তা চাউল গর্তের মধ্যে ছুড়ে ফেলা হয়েছে এবং আর কিছু চাউল বিভিন্নভাবে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকলেও অফিসের কোনো কর্মকর্তা উপস্থিত না থাকায় স্থানীয় লোকজন যে যার মতো করে চাউলের বস্তাগুলো নিয়ে যায়। কিছুক্ষণের জন্য ওইখানে এক লঙ্কাকা-ের পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এবিষয়ে কক্সবাজার জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যালয়ের কর্মকর্তা রইছ উদ্দিন মুকুলের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, গুদামে চাল ভর্তি তিন হাজার বস্তা ছিলো। এরমধ্যে কয়েকশত বস্তা চাল নষ্ট হয়ে গেছে। তাই এই চালগুলো মাটিতে পুঁতে ফেলা হচ্ছে। চাল নষ্ট হওয়ার কারণ জানতে চাইলে তিনি কোনো সদুত্তোর দেয়নি। ডিআরও অফিসের বিপ্লব বাবু নাটেরগুরু, চক্রের চাল বিক্রেতা আলী আকব্বর মাঝিসহ অর্ধডজন সিন্ডিকেট বছরের পর বছর জড়িত রয়েছে এই সিন্ডিকেট । গত রমজানে ক্রয় করা বিস্কিট, সেমাই, নানা খাদ্য সামগ্রীসহ বেশ কিছু কাপড় নস্ট করে ফেলার খবর পাওয়া গেছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ও কক্সবাজার জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যালয়ের আওতাধীন এই গুদামে ৩ হাজার বস্তা চাউল ছিলো। এই চাউলগুলো দেখার দায়িত্বে রয়েছে জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যালয়ের অফিস সহকারী বিপ্লব বাবু। অপরদিকে, কক্সবাজার সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা সুভাষ চাকমার কাছ থেকে জানতে চাইলে তিনি এবিষয়ে কিছুই জানেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন। সূত্রে জানা যায়, স্থানীয় আলী আকবর মাঝি, মকছুদ ও কক্সবাজার জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যালয়ের অফিস সহকারী বিপ্লবসহ আরও বেশ কয়েকজন কর্মকর্তার যোগসাজশে এই গুদাম থেকে কয়েক ট্রাক চাল রাতের আধারে পাচার হয়ে গেছে। আবার অনেকেই বলছেন, এই বিশাল অংকের পাচার হওয়া চালগুলো হজম করার জন্য চাল নষ্টের নাটক সাজানো হয়েছে। যেনো নষ্ট চালের হিসেবে লিপিবদ্ধ হয় এই গুলোও। এদিকে, গত রমজান মাসে বিতরণের জন্য বিভিন্ন ভাবে সাহায্যপ্রাপ্ত সেমাই, চিনিসহ বিভিন্ন খাদ্যসামগ্রীসহ বেশ কিছু কাপড় ও এই গুদামে নষ্ট অবস্থায় পড়ে আছে। সংশ্লিষ্টদের চরম খামখেয়ালীপনায় রাষ্ট্রীয় সম্পদ বিনষ্ট হলেও যেনো দেখার কেউ নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*