থমকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা!

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার কন্ঠ: কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের চিকিৎসক আনিসুল হোসেনের উপর হামলার ঘটনায় হাসপাতালটি ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। এ ঘটনায় হাসপাতালের পরিস্থিতি আবারও থমকে গেছে চিকিৎসা সেবা। তবে এ ঘটনাকে দুঃখজনক বলে মন্তব্য করে হাসপাতালের চিকিৎসা সেবাকে বাধা গ্রস্থ করতে ৩য় পক্ষ কাজ করছে কিনা সেটা খতিয়া দেখার কথা জানালেন কতৃপক্ষ।
কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. শাহীন আবদুর রহমান চৌধুরী জানিয়েছেন ৫ দিন ধরে হাসপাতালের স্বাভাবিক চিকিৎসা কার্যক্রম বাধা গ্রস্থ হওয়ার পরে সব পক্ষের সহযোগিতায় কাজ শুরু করার দিনই ৯ এপ্রিল বেলা ১১ টার দিকে আবারও হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসকের উপর হামলা হয়েছে। তিনি জানান এক শিশুর কানের মারাত্বক ইনফ্যাকশন হওয়ার কারনে নাক কান গলা বিভাগের ডাক্তার তাকে হাসপাতালে ভর্তি দিয়েছে কিন্তু অবস্থা ভাল না হওয়ায় তাকে চট্টগ্রাম রেফার করছে ইএনটি বিভাগ। কিন্তু কক্সবাজার শহরের সাহিত্যিকা পল্লী এলাকার এক যুবক এসে সার্জারি বিভাগে ডা. আনিসুল হোসেনের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন বিষয়টি ইএনটি বিভাগে। এই কথা বলার সাথে সাথে উক্ত ডাক্তারকে নাজেহাল করে এবং শারিরিক ভাবে হামলা করে। পরে এই খবর ছড়িয়ে পড়ছে আবারো হাসপাতালে সব বিভাগ বন্ধ হয়ে যায়। পরে প্রশাসন এবং পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তারা এসে তাকে আটক করে নিয়ে যায়। এখন সব কিছু ঠিক হয়ে গেছে।
এদিকে সচেতন মহলের দাবী শহরের বেসরকারী হাসপাতাল গুলো ইর্ন্টাণ চিকিৎসক নির্ভর। মূলত সেই ইন্টার্ণ চিকিৎসক দিয়ে পরিস্থিতি ঘোলাটে করে সরকারি হাসপাতাল বন্ধ করে প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসা মুখি করছে ইর্ন্টাণ ডাক্তাররা। আর গরীব মানুষ চিকিৎসা না পেয়ে মারা যাচ্ছে।
এ বিষয়ে কোন মন্তব্য না করে হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্বাবধায়ক ডা. বিধান পাল বলেন,বার বার ডাক্তারদের উপর হামলা করে চিকিৎসা ব্যবস্থা নিয়ে কেউ ফায়দা হাসিল করতে চাই কিনা সেটা খতিয়া দেখা দরকার। তবে এর ফলে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে গরীব মানুষ তারা সঠিক চিকিৎসা পাচ্ছে না। এখন হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা স্বাভাবিক হয়েছে।
এদিকে এর আগে রোগির স্বজন এবং ইর্ন্টাণ ডাক্তারদের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনায় ৫ দিন ধরে হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা বন্ধ ছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*