জেলা প্রশাসনের এলএ শাখা নিয়ে চলছে রমরমা বাণিজ্য

মাহাবুবুর রহমান : কক্সবাজার শহরের জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের আশেপাশে বিভিন্ন আবাসিক হোটেলে রুম নিয়ে নিয়মিত অফিস করে জমি অধিগ্রহনের কাজ করছে অসংখ্য দালাল। মহেশখালীসহ বিভিন্ন উপজেলা থেকে জমির ক্ষতিপূরন নিতে আসা লোকজন জেলা প্রশাসকের এলএ শাখার বদলে বিভিন্ন হোটেলের রুমে দালালদের কাছে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে দেখা গেছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এসব হোটেল রুমে এলএ শাখার গুরুত্বপূর্ণ নথি এবং সার্ভেয়ার কানুনগোর রিপোর্ট এমনকি উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাদের স্বাক্ষর করা কাগজপত্র দেখা গেছে। সন্ধ্যা বা মাঝরাতে অনেক সার্ভেয়ার এসব হোটেল রুমে এসে কাগজ পত্র দেখাসহ আর্থিক লেনদেন করে বলেও জানা গেছে।

সচেতন মহলের দাবী মূলত দালালদের কারণে জেলা ভুমি হুকুম দখল অফিসের বদনাম সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে। এসব মধ্যসত্বভোগীরা সাধারণ মানুষকে অনেক মিথ্যা তথ্য দিয়ে বিপুল পরিমান টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। তাই দ্রুত এসব দালালদের আটকের জন্য হোটেল গুলোতে অভিযান চালানোর দাবী জানিয়েছে সাধারণ মানুষ। গতকাল বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে মহেশখালী থেকে আসা ৪/৫ জন মুরব্বি গোছের মানুষ নুর এ ছকিনা হোটেল কোথায় জানতে চাইলে উনাদের হোটেলের ঠিকানা বলার পর কৌতুহল বসত উনাদের সাথে গিয়ে দেখা গেছে সদর থানার পেছনে অবস্থিত নুর এ ছকিনা হোটেলে আছে দালাল তিলক বিশ্বাস, জাকারিয়া, মমতাজের অফিস। তারা দীর্ঘ দিন ধরে সেখানে সাধারণ মানুষের কাগজপত্র নিয়ে এলএ অফিস থেকে টাকা পাইয়ে দেয়ার কাজ করছে। হোটেল ম্যানেজার বলেন, ২০৮, ২১৮ নাম্বার রুমে অনেক দিন ধরে দালালরা অফিস নিয়ে এই কাজ করছে।

পরে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে সিনেমা হলের পাশে গার্ডেন হোটেলে রুম নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে জমি অধিগ্রহনের কাজ করে আসছে জসিম উদ্দিন হোয়ানক, আমান উল্লাহ হোয়ানক এবং ইব্রাহিম (ইতি মধ্যে আটক হয়েছে) তারা সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত এখানে এলএ ও ভুমি অফিসের বিভিন্ন কাজ করে। তার পাশ্ববর্তি হোটেল সৌদিয়াতে ৫ নাম্বার রুমে বিশাল অফিস করে বিপুল পরিমান ফাইল নিয়ে রীতিমত চেম্বার খুলে বসেছে তাজুল ইসলাম নামের শীর্ষ দালাল। গতকাল সন্ধ্যায় সেখানে গিয়ে মহেশখালী কালারমারছড়া নজির আহাম্মদ বলেন, আমার বেশ কিছু জমি সরকার অধিগ্রহন করেছে। আমার ভাইরাও তাজুলের কাছে কাজ করেছে সে জন্য আমি ও এখানে এসেছি। তিনি বলেন,২৫% থেকে ৩০% ছাড়া কথাও বলেনা। এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে তাজসেবা হোটেলের পাশে হায়দার বিল্ডিংএর নীচে অফিস নিয়ে বসে এলএ অফিসের কাজ করে কালারমারছড়ার দোলোয়ার হোসেন, শহিদুল্লাহ, কালারমারছড়া সোনার পাড়া এলাকার মৃত জাফর আহমদ এর পুত্র মোহাম্মদ হোছাইন (ড্রাইভার) এবং পৌরসভা রেষ্ট হাউজের পাশের বিল্ডিং এ হেলাল উদ্দিন অফিস খুলে বসে কাজ করে। এছাড়া বদরমোকাম মসজিদের পাশে বিশাল অফিস নিয়ে কাজ করে মাতারবাড়ির বাবর চৌধুরী। এছাড়া হোটেল আল আমিনে আমান উল্লাহ, মামুন, হান্নান, সমিতির পাড়ার মৌলবী জাকারিয়া, পেশকার পাড়া এলাকার মুবিন, ঢাকা হোটেলের নীচে অসংখ্য দালাল নিজস্ব চেম্বার খুলে বসেছে। এছাড়া মৌসুমি হোটেলে বসে দালালদের আখড়া সেখানে সামনের সবুজ কম্পিউটারসহ আশপাশের কম্পিউটার দোকান গুলোতে দিনে রাতে দেখা মিলে এলএ শাখার বেশির ভাগ কাগজ পত্র। এমনকি সার্ভেয়ার কাননগোদের স্বাক্ষর করা রিপোর্ট ও পাওয়া যায়। এদিকে বিভিন্ন হোটেলের ম্যানেজারের সাথে কথা বলে জানা গেছে তারা মুলত মাসিক ভাড়ায় এসব রুম নিয়েছে এবং অনেকে যে কোন একজন আইনজীবির নাম ব্যবহার করে কিন্তু এখানে কোন আইনজীবি আসেনা। বরং এলএ অফিসের দালালরাই এখানে বসে কাজ করে এবং মাঝে মধ্যে অনেক সার্ভেয়াররা এখানে আসে বলে জানান তারা। এ ব্যাপারে স্থানীয় বাসিন্দা অনুপ বড়ুয়া অপু বলেন, খুব ভোরে বাড়ি থেকে বের হলেও অনেক মুরব্বি মানুষকে দেখি হাতে ফাইল নিয়ে ঘুরাঘুরি করছে। এবং রাতে বাড়ি ফেরার সময়ও দেখি অনেক মানুষ বিভিন্ন হোটেলের সামনে ফাইল নিয়ে দাড়িয়ে থাকে। পরে আমরা খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি এরা সবাই জমি অধিগ্রহন সংক্রান্ত কাজে আসে। আমি মনে করি দালালরা তাদের নিজস্ব লাভের জন্য সাধারণ মানুষকে ব্যবহার করে কোথায় ২ টাকা খরচ হলে তারা সেখানে ৫ টাকার হিসাব দিয়ে সাধারণ মানুষ কে হয়রানী করে বিপুল টাকা হাতিয়ে নেয়।

মহেশখালী কুতুবজোম এলাকার ভুক্তভোগী উজির আলী, নজিবুল আলমসহ অনেকে বলেন,মূলত আমরা নিরুপায় হয়ে দালালের কাছে আসি। কেউ খুশি হয়ে দালালের কাছে আসেনা। আমরা কাগজ পত্র নিয়ে অনেক দিন ডিসি অফিসে ঘুরেছি কেউ আমাদের কথা শুনেনা। সব সময় ব্যস্ত দেখায় সার্ভেয়াররা। অথচ দালালের মাধ্যমে গেলে ঠিকই সব কাজ হয়। তাছাড়া অনেকে নামে বেনামে অভিযোগ নিয়ে হয়রানী করে তাই বাধ্য হয়ে দালালের মাধ্যমে করে কোন মতে শেষ করতে চাই। পরে আমাদের চেয়ারম্যান বলেছে এসব দালালের সাথে যোগাযোগ করার জন্য শুনেছি তিনিও নাকি এখানে আসে, তাদের দাবী দালালরাও অফিস খরচ বাদে প্রায় ৫% রেখে দেয়। মোট কথা চারিদিকে আমরাই ক্ষতিগ্রস্থ। এ ব্যাপারে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) ও ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক  আশরাফুল আফসার বলেন, দালালের কারনে অনেক ক্ষেত্রে বদনাম বাড়ছে কোন দালালকে ছাড় দেয়া হবেনা। ইতিমধ্যে অনেককে আইনের আওতায় আনা হয়েছে। এখন হোটেল বা অন্য যেখানে এসব কাজ করছে সেখানেও প্রয়োজন হলে অভিযান চলবে।

তবে অভিযোগ উঠেছে কথিত কিছু ভিআইপি আইনজীবি, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন স্থরের দালাল প্রতিনিয়ত এলও অফিসে দান্ধার কাজে ব্যস্ত থাকেন। বর্তমানে তারা আঙ্গুল ফুলে কলা গাছে পরিণত হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়ার জন্যও দাবী উঠেছে সচেতন মহলের মাঝে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*