২৭ বছর পার হয়ে গেলেও এখনও অরক্ষিত মহেশখালী

কক্সবাজার: আজ ভয়াল ২৯ এপ্রিল ১৯৯১ সাল! এই দিনে কক্সবাজারের মহেশখালীসহ বিভিন্ন উপকূলীয় অঞ্চলে প্রলয়ংকারী ঘূর্ণিঝড়ে প্রাণহানিসহ ক্ষয়ক্ষতি হয়। কিন্তু এখনো পর্যন্ত মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়ী ও ধলঘাট ইউনিয়নের ২০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধের মধ্যে ১৭ কিলোমিটারই ক্ষতিগ্রস্ত অবস্থায় রয়েছে। ফলে এপ্রিল থেকে জুলাই পর্যন্ত আতঙ্কে কাটে এখানকার মানুষের দিন।
মহেশখালী উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯১ সালের ২৯ এপ্রিলের ঘূর্ণিঝড়ের পর স্থানীয় লোকজনের আশ্রয় নেয়ার জন্য বিভিন্ন সংস্থার অর্থায়ানে এ উপজেলায় ৮৩টি আশ্রয় কেন্দ্র স্থাপন করা হয়। এসব আশ্রয় কেন্দ্র স্থাপনের পর থেকে কোনো রক্ষণাবেক্ষণ এবং সংস্কার না হওয়ায় প্রায় ৪০টি আশ্রয় কেন্দ্র ব্যবহারের অনুপযোপগী হয়ে পড়েছে। উপজেলার বর্তমান সাড়ে চার লাখ মানুষের বসবাস হলেও জনসংখ্যা অনুপাতে আশ্রয় কেন্দ্রর সংখ্যা অতি নগণ্য।
সরেজমিন দেখা গেছে, উপজেলার মাতারবাড়ী ইউনিয়নের উত্তর রাজঘাট ও সাইটপাড়ার পশ্চিম পাশের প্রায় আড়াই কিলোমিটার বেড়িবাঁধ জোয়ারের পানির ধাক্কায় ধসে গেছে। আর যে অংশ রয়েছে তা যেকোনো মুহূর্তে ধসে গিয়ে মাতারবাড়ী পানিতে ডুবে যেতে পারে। ধলঘাট ইউনিয়নের অবস্থা আরও খারাপ। সরইতলা থেকে ভারত ঘোনা এলাকা পর্যন্ত বেড়িবাঁধ অরক্ষিত। তবে ধলঘাট ইউনিয়নে পানি উন্নয়ন বোর্ড পাউবোর অর্থায়ানে প্রায় ৬০ কোটি টাকার ব্যয়ে টেন্ডার হলেও এখনো বেড়িবাঁধের কাজ শুরু হয়নি।

সুতুরিয়া বাজার এলাকার রক্ষা বাঁধ ও বেড়িবাঁধের ভাঙা ভারত ঘোনার সামান্য যে অংশ রয়েছে সেটি যেকোনো মুহূর্তে জোয়ারের পানিতে ধসে যাওয়ার আতঙ্কে দিন কাটছে ধলঘাটার বাসিন্দাদের। তেমনটা হলে পুরো ইউনিয়ন সাগরের পানিতে তলিয়ে যাবে বলে মনে করেন পরিবেশ বিশেষজ্ঞরা। স্থানীয় লোকজন জানান, বর্ষার আগে বাঁধ সংস্কার না হলে মাতারবাড়ী ও ধলঘাটার ১৬ গ্রাম লোকালয়ে জোয়ার-ভাটা চলবে। এখনো হাতে যে সময় আছে তা কাজে লাগিয়ে বাঁধ সংস্কার জরুরি।

মাতারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. উল্লাহ কক্সবাজার কন্ঠকে বলেন, স্থায়ী বেড়িবাঁধ না থাকায় ১৯৯১ সালের ২৯ এপ্রিল ঘূর্ণিঝড়ের কবলে পড়ে এই এলাকার কয়েক হাজার মানুষ প্রাণ হারায়। এরপর দুই যুগ পেরিয়ে গেলেও চারপাশে টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা হয়নি।
তিনি আরও বলেন, কোল পাওয়ার জেনারেশন মাতারবাড়ি ইউনিয়নে কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বাউন্ডারি ওয়াল নির্মাণের ফলে পানি চলাচলের জন্য নির্মিত সমস্ত স্লুিইচ গেইট বন্ধ করে দিয়েছে। বিষয়টি জানিয়ে ইতোমধ্যে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক, কোলপাওয়ার জেনারেশন ও মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে আবেদন করেছেন মাতারবাড়ীর চেয়ারম্যান মোহাম্মদ উল্লাহ।

ধলঘাটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুল হাসান কক্সবাজার কন্ঠকে বলেন, বাঁধ মেরামত না হওয়ায় আতঙ্কে কাটছে কমপক্ষে ১৫ হাজার মানুষের দিন। দুর্যোগ কবল থেকে এলাকাবাসীকে রক্ষা করতে হলে আপাতত বাজার রক্ষা বাঁধ ও ভারত ঘোনা ভাঙা অংশ মেরামত ধলঘাটবাসীর প্রাণের দাবি হয়ে দাঁড়িয়েছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বার বার বলার পরও ভাঙা অংশ মেরামতের কোনো উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না। ১৯৯১ সালের ২৯ এপ্রিলের ঘূর্ণিঝড়ে ধলঘাটার প্রায় ১০ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। ধলঘাটার চারদিকে আরো ৮ কিলোমিটার বেড়িবাধঁ ঝুকিঁপূর্ণ রয়েছে। বেড়িবাধ নির্মাণের টেন্ডার হলেও ঠিকাদার কাজ করতে অনিহা প্রকাশ করায় কাজ হচ্ছে না। ফলে এ বছরও ধলঘাটা প্রাকৃতিক দূর্যোগ ও বর্ষায় পানিতে ডুবে যাবে উল্লেখ করে দ্রুত বেড়িবাধঁ নির্মাণের দাবী জানান।

মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জামিরুল ইসলাম কক্সবাজার কন্ঠকে বলেন মাতারবাড়ী ধসে যাওয়া বেড়িবাঁধ সংস্কারের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করা হয়েছে। বরাদ্দ হাতে পেলেই ভাঙা বেঁড়িবাধ মেরামত করা হবে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*